Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৮ মে ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

কোভিডের উপসর্গে জ্বরের দোসর হাত-পা ব্যথা? কী খেয়াল রাখতেই হবে?

জ্বর যদি থাকে ৮৭.৯ শতাংশ কোভিড রোগীর, শুকনো কাশি থাকে ৬৭.৭ শতাংশের, ক্লান্তি ৩৮.১ শতাংশের, শ্বাসকষ্ট ১৮.৬ শতাংশের, পেশি ও সন্ধি ব্যথা থাকে ম

সুজাতা মুখোপাধ্যায়
কলকাতা ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৫:২৩
Save
Something isn't right! Please refresh.
চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে সুস্থ থাকুন। ছবি: শাটারস্টক।

চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে সুস্থ থাকুন। ছবি: শাটারস্টক।

Popup Close

ইউএস সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল ও প্রিভেনশনের তালিকায় কোভিডের উপসর্গ হিসেবে পেশি-সন্ধি ব্যথার উপসর্গও যোগ হয়েছে, সে আজ বেশ কিছু দিন হল। কিন্তু তা বলে প্রচুর মানুষের যে সমস্যা হয়, এমন নয়। তালিকার বেশ নীচেই আছে তার নাম।

জ্বর যদি থাকে ৮৭.৯ শতাংশ কোভিড রোগীর, শুকনো কাশি থাকে ৬৭.৭ শতাংশের, ক্লান্তি ৩৮.১ শতাংশের, শ্বাসকষ্ট ১৮.৬ শতাংশের, পেশি ও সন্ধি ব্যথা থাকে মোটে ১৪.৮ শতাংশের। চিনের ৫৫৯২৪ জন রোগীর উপর সমীক্ষা চালিয়ে উপসর্গের এই ক্রম তৈরি করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা(হু)।

তালিকার আরও নীচে আছে গলা ব্যথা, ১৩.৯ শতাংশ, মাথা ব্যথা, ১৩.৬ শতাংশ, কাঁপুনি ১১.৪ শতাংশ ইত্যাদি। অর্থাৎ আর যাই হোক, কোভিডের উপসর্গ হিসেবে পেশি-সন্ধি ব্যথা এত গুরুত্বপূর্ণ কিছু নয় বলেই ভাবা হয়েছিল এত দিন। সম্প্রতি তা ভুল প্রমাণিত হল। বিভিন্ন গবেষণায় বিজ্ঞানীরা প্রমাণ পেলেন, কিছু ক্ষেত্রে রোগীর অবস্থা কতটা জটিল হতে পারে, তা নির্ধারণ করে এই উপসর্গটি। যত মারাত্মক হয় ব্যথা, তত আশঙ্কা বাড়ে ফুসফুসের জটিল সমস্যা, এআরডিএস বা অ্যাকিউট রেসপিরেটরি ডিসট্রেস সিনড্রোমের।

Advertisement

আরও পড়ুন: প্রতিবেশী বা আবাসনে কেউ করোনা আক্রান্ত? যা যা খেয়াল রাখতেই হবে​

কখন বিপদ

ক্রিটিকাল কেয়ার বিশেষজ্ঞ সৌতিক পাণ্ডা জানিয়েছেন, ‘যদি দেখেন গা-হাত-পা-কোমরে অসহ্য ব্যথা হচ্ছে, এক-দু-দিন পরও ব্যথা একই রকম আছে ও কোভিডের অন্যান্য উপসর্গ দেখা দিচ্ছে, দেরি না করে ডাক্তার দেখান। সব উপসর্গ একসঙ্গেও দেখা দিতে পারে। উপসর্গ দেখে ডাক্তারের যদি সন্দেহ হয়, তিনি কোভিডের পরীক্ষা করাতে বলবেন। রিপোর্ট পজিটিভ এলে আরও কয়েকটি পরীক্ষা করে দেখতে হবে অবস্থা কতটা জটিল। তার উপর নির্ভর করবে তিনি বাড়িতে থাকবেন, না হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা করাতে হবে।’

জটিলতা

নিউ ইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয়ের সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ মেগান ক্যাফি চিনের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি ৫৩ জন ৩০-৪৯ বছর বয়স্ক কোভিড রোগীর উপর সমীক্ষা চালিয়ে দেখেন, ফুসফুস কতটা ক্ষতিগ্রস্ত হবে তা নির্ভর করে তিনটি বিষয়ের উপর, (১) রক্তে লিভার এনজাইম এসজিপিটি বাড়ছে কিনা (২) পেশিতে তীব্র ব্যথা আছে কি না (৩) রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা কতটা বেড়েছে।

আরও পড়ুন:বর্ষার মরসুমে চিন্তা বাড়াচ্ছে শিশুদের ডায়ারিয়া

এই তিনটি বিষয় মিলে গেলে আরও কয়েকটি পরীক্ষা করা হয়। সব রিপোর্ট মিলিয়ে তার সঙ্গে রোগীর অবস্থা পর্যালোচনা করে তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হবে কি না সেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।



চিকিৎসকের পরামর্শে কোভিড টেস্ট করাতে হবে। ফাইল ছবি।

বিজ্ঞানীরা দেখেছেন, এঁদের মধ্যে কারও কারও অবস্থা খুব দ্রুত খারাপ হয়ে যায়। তখন হয়ত কোনও কষ্ট নেই, তা বলে যে ঠিক তার পর মুহূর্তে হবে না, এমন বলা যায় না। কখনও এত তীব্র শ্বাসকষ্ট শুরু হয় যে হাসপাতালে আনতে আনতেই অবস্থা সংকটজনক হয়ে যায়। এঁদের আগে থেকে ভর্তি করে অক্সিজেন ও অন্যান্য চিকিৎসা দিলে ফুসফুসের দ্রুত খারাপ হয়ে যাওয়া, যাকে এআরডিএস বা অ্যাকিউট রেসপিরেটরি ডিসট্রেস সিনড্রোম বলে, তা ঠেকানো যেতে পারে। বয়স্ক রোগীদেরই সচরাচর এ ধরনের সমস্যা বেশি হয় বলছে সমীক্ষা।

আরও পড়ুন: কেন দাঁতের অতিরিক্ত যত্নের প্রয়োজন ডায়াবিটিসে?

কেন হয়

তীব্র সংক্রমণ হলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সক্রিয় হয়ে যখন ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই শুরু করে, তখন সারা শরীর জুড়ে প্রদাহ হয়। পেশিতে প্রদাহ হলে পেশিতে ব্যথা হয়, লিভারে হলে লিভার এনজাইম এসজিপিটি বাড়ে। ফুসফুসে হলে টান পড়ে তার কার্যকারিতায়। অক্সিজেনের ঘাটতি হতে শুরু করে। হিমোগ্লোবিনের মাধ্যমেই কোষে কোষে অক্সিজেন যায়, তার সংখ্যা বেড়ে ঘাটতি পূরণের চেষ্টা হয়। অর্থাৎ এই তিনটি উপসর্গ থাকা মানে শরীরে বড়সড় ক্ষতি হতে চলেছে বা ইতিমধ্যেই হয়ে গিয়েছে।

ব্যথা মানেই ভয়

তা একেবারেই নয়। অল্পস্বল্প ব্যথা হলে দুশ্চিন্তা করবেন না। সরাসরি ফ্যানের নীচে বা এসি-তে শুয়ে থাকলেও অনেক সময় হয় এ রকম। সঙ্গে হালকা জ্বর থাকলেও ভাবার কিছু নেই। যখন তিন দিন পর্যন্ত ব্যথা সমস্যা তৈরি করছে বলে মনে হবে, চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে সেই মুহূর্তে।

(জরুরি ঘোষণা: কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের জন্য কয়েকটি বিশেষ হেল্পলাইন চালু করেছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। এই হেল্পলাইন নম্বরগুলিতে ফোন করলে অ্যাম্বুল্যান্স বা টেলিমেডিসিন সংক্রান্ত পরিষেবা নিয়ে সহায়তা মিলবে। পাশাপাশি থাকছে একটি সার্বিক হেল্পলাইন নম্বরও।

• সার্বিক হেল্পলাইন নম্বর: ১৮০০ ৩১৩ ৪৪৪ ২২২
• টেলিমেডিসিন সংক্রান্ত হেল্পলাইন নম্বর: ০৩৩-২৩৫৭৬০০১
• কোভিড-১৯ আক্রান্তদের অ্যাম্বুল্যান্স পরিষেবা সংক্রান্ত হেল্পলাইন নম্বর: ০৩৩-৪০৯০২৯২৯)



Something isn't right! Please refresh.

Advertisement