প্রখর গরম থেকে রক্ষা পাওয়া, খিচুড়ি-ইলিশের আস্বাদ, কাগজের নৌকো ভাসানোর মতো ছেলেমানুষি, যখন-তখন মেঘলা দিনের মেজাজ-মর্জি এই সব কিছু যদি বর্ষার ভাল দিক হয়, তবেন জল-কাদা, জামা-কাপড় শুকনো করার অসুবিধা, নানা অসুখ, সর্দি-কাশি অবশ্যই এর খারাপ দিক। এ ছাড়া এই বর্ষায় ভিজে ও স্যাঁতসেতে আবহাওয়ার জন্য কিছু ছত্রাকঘটিত সমস্যাও বর্ষায় সমস্যায় ফেলে আমাদের।

হাতের কাছে সর্দি-কাশির ওষুধ মজুত রাখা, ভাইরাল ফিভার ঠেকাতে পাতে সবুজ শাকসব্জি, সুষম আহারের পরিমাণ বাড়ানো, ডালের জল, ডাল, দুধ, জল, স্যুপ ইত্যাদি খেয়ে রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা বাড়ানো এগুলো তো রয়েছেই। ডেঙ্গির প্রকোপ রুখতে কিছু বাড়তি সতর্কতা মেনে চলাও বর্ষার অন্যতম সতর্কতার মধ্যে পড়ে।

বর্ষার আবহাওয়ায় জীবাণুরা আলাদা প্রাণশক্তি পায়, তাই রূপচর্চা থেকে শুরু করে চলতি জীবনেও নানা ক্ষেত্রে কিছু সাবধানতা অবলম্বন করতে হয়। কোন কোন ক্ষেত্রে জরুরি সাবধানতা মানতে হবে জানেন?

আরও পড়ুন: দৈনন্দিন জীবনে এ সব ভুল আর নয়, স্ট্রোক রুখতে মেনে চলুন কিছু মাস্টারস্ট্রোক

  • বর্ষার অন্যতম সমস্যা জামাকাপড় ভিজে যাওয়া। ব্যাগে শুকনো জামা রাখুন। গন্তব্যে গিয়ে তা বদলে ফেলতে পারলে খুবই ভাল হয়। এক সেট অতিরিক্ত মোজাও রাখুন ব্যাগে। ভিজে পোশাক গায়ে শুকোনো বা এসিতে শুকিয়ে নেওয়া একেবারেই ঠিক কাজ নয়। এতে শরীরের ছত্রাকঘটিত রোগ হানা দেখা দিতে পারে।

  • জুতো ভিজে গেলে ভেজা জুতো পায়ে সময় কাটাবেন না। সুযোগ থাকলে পা থেকে জুতো খুলে বসুন। এমনটা সম্ভব না হলে অন্তত মোজাটা বদলে পা ভাল করে মুছে নিন কিংবা দ্রুত বাড়ি ফিরে ভাল করে গরম জলে পা ডুবিয়ে রাখুন কিছু ক্ষণ।

  • অন্তর্বাস বাছার সময়ও সতর্ক হোন। বর্ষায় কোনও ভাবেই স্যাঁতসেতে অন্তর্বাস বাছবেন না। এতে অন্তর্বাসের ভেজা দিক ত্বকের সংস্পর্শে এলে ঘর্ষণের ফলে ছত্রাকঘটিত নানা সমস্যা আনতে পারে।

  • বর্ষায় গুমোট আবহাওয়া বা কড়া রোদের কারণে ভালই ঘাম হয়। তাই চেষ্টা করুন সুতির পোশাক বাছতে। সানস্ক্রিন, ছাতা এগুলো অবশ্যই সঙ্গে রাখুন।

আরও পড়ুন: আনারসেই লুকিয়ে ত্বকের বয়স আটকানোর মন্ত্র, মেনে চলুন এই সব উপায়

 বর্ষায় পায়ের যত্ন নিন, ১৫ দিন অন্তর পেডিকিওর করান।

  • বৃষ্টি ভিজলে বাড়ি ফিরেই গরম জল-সাবান দিয়ে স্নান সারুন। মাথায় বৃষ্টির জল বসে গেলে ঠান্ডা লাগার আশঙ্কা তো আছেই, সঙ্গে বৃষ্টির জল থেকে মাথার ত্বকেও ছত্রাকের সংক্রমণ ঘটতে পারে।

  • ত্বককে আর্দ্র রাখুন। ত্বকের পিএইচ-এর ভারসাম্য ঠিক রাখতে টোনার, ময়শ্চারাইজার ব্যবহার করুন। বর্ষার উপযুক্ত ফেসিয়াল বেছে নিন। পাকা পেঁপে, ওটস ও মধু মেশানো ফেস প্যাক ব্যবহার করুন। এত কিছুর জোগান না থাকলে দুধের সর লাগাতে পারেন মুখে।

  • দিন দুই অন্তর শ্যাম্পু ও কন্ডিশনিং করে মাথার ত্বক পরিষ্কার রাখুন। বর্ষা শুরুর আগে ও পরে একটা হেয়ার স্পা করিয়ে নিন। বর্ষায় জল-কাদা লাগে পায়ে। তাই ১৫ দিন অন্তর পেডিকিওর করান।