বন্ধু বিনে প্রাণ বাঁচে না— আপনি এমনটা ভাবতেই পারেন। বিপদে আপদে তাই যাঁকে বন্ধু বলে মনে করেন, তাঁর জন্য নিজেকে উজাড় করে দেন। ছোটখাটো মান-অভিমানকে দূরে সরিয়ে বন্ধুর পাশে আপনি সব সময়ে বিরাজমান। কিন্তু আপনার চার পাশে, যাঁদের আপনি বন্ধু বলেই মনে করেন তাঁরাও যে এমনই মনে করেন তা না-ও হতে পারে।
এই অভিজ্ঞতা মোটামুটি সবারই থাকে। তবে প্রথমেই তো আর বোঝা যায় না কোন বন্ধুর মনে কী আছে। তাই, যত বয়স বাড়ে কমতে থাকে বন্ধুর সংখ্যা। কিন্তু কয়েকটি লক্ষণ দেখে ঠিকই আন্দাজ করা যায় যে যাঁকে আপনি বন্ধু বলে মনে করেন, তিনিও কি তেমনই ভাবেন, নাকি বন্ধুত্বের মুখোশের আড়ালে রয়েছে জমানো শত্রুতা।

জেনে নিন কোন লক্ষণগুলো দেখে চিনবেন এমন শত্রুরূপী বন্ধুদের:

১) বন্ধুদের মধ্যে ইয়ার্কি ফাজলামি থাকেই। কিন্তু লক্ষ্য করে দেখবেন, এঁরা জনসমক্ষে আপনাকে মজা করেই অপমানজনক কথা বলেন। আপনার ভাবমূর্তি অন্যদের চোখে নীচে নামিয়ে এঁরা আনন্দ পান।
২) এঁদেরকে ভাল সময়ে আপনি পাবেন। ধরুন রেস্তরাঁয় খেতে যাচ্ছেন, সিনেমা দেখতে যাচ্ছেন, পাবেন। কিন্তু এঁরা নিজেদের সময়ের বাইরে গিয়ে কখনওই আপনার সঙ্গে মিশবেন না। বিশেষ করে খারাপ সময়ে এঁদের দেখা পাওয়া যায় না।
৩) কোনও সাফল্য এলে মানুষের স্বভাব তা বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করে নেওয়া। কিন্তু লক্ষ্য করে দেখবেন আপনার কোনও সাফল্য বা খুশিতে এঁরা মোটেও তত উচ্ছ্বসিত নন। খুব একটা খুশিও নন।
৪) এঁরা দেখবেন, কারণে অকারণে আপনার খুঁত ধরতে ব্যস্ত থাকেন। আপনার ভাবনাচিন্তা, মতামত, সব কিছুর মধ্যেই যেনতেন প্রকারেণ খুঁত বের করতে পারলেই এঁরা খুশি।
৫) নিজের বিপদ হতে পারে ভেবেও আপনি বন্ধুর হয়ে সব সময়ে কথা বলেন। কিন্তু লক্ষ্য করে দেখবেন এঁরা এটা কখনওই করেন না। নিজেকে সেফ সাইডে রাখতে পছন্দ করেন।
এসব ওঠাপড়া থাকবেই। তা বলে কি সম্পর্ক ছিন্ন করে দেবেন? একদমই নয়। বরং সম্পর্ক রাখুন দূরত্ব বজায় রেখে। কিন্তু তা বুঝতে দেবেন না। নিজের প্রিয় বন্ধু কে, সেটা বুঝে নিন।