• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

বুননে লুকোনো ছকভাঙার

Gaurav Gupta inaugurates his store in Kolkata
অপেক্ষার অবসান। কলকাতায় স্টোর খুললেন গৌরব গুপ্ত।

ভাবনাচিন্তা হোক বা তার বহিঃপ্রকাশ... সর্বত্রই গতানুগতিকতার বাইরে বেরিয়ে ছক ভেঙে চলতে পছন্দ করেন তিনি। ফলে তাঁর তৈরি পোশাকও হয়ে ওঠে স্বতন্ত্র। কখনও গাউন ভেঙে দেয় সময়ের বাঁধন, কখনও আবার ব্লেজ়ারে থাকে সূক্ষ্ম কারুকাজের অভিনবত্ব। তিনি ডিজ়াইনার গৌরব গুপ্ত। দীপিকা পাড়ুকোন, শাহিদ কপূর, আয়ুষ্মান খুরানা, কর্ণ জোহর, অদিতি রাও হায়দরি থেকে হালফিলের সারা আলি খান... গৌরবের পোশাকে মজেছেন কমবেশি অনেকেই। সম্প্রতি গৌরব তাঁর পোশাকের স্বকীয়তা ছড়িয়ে দিতে কলকাতায় খুলেছেন একটি ডিজ়াইনার স্টোর।

১৫ বছর ধরে পোশাক তৈরি করছেন গৌরব। কিন্তু কলকাতায় এত বছর পরে স্টোর খোলার প্রসঙ্গে বললেন, ‘‘ঠিক সময়ের অপেক্ষা ছিল। আমার ক্লায়েন্টরা অনেক দিন ধরেই স্টোরের কথা বলছিলেন। আবার কলকাতার মতো সংস্কৃতিমনস্ক শহরে দোকান খোলার ইচ্ছেও ছিল। এ রকম হেরিটেজ প্রপার্টি এত দিনে পেলাম। সব মিলিয়ে এই সময়টাই ঠিক মনে হল।’’ প্যাস্টেল শেডে তৈরি মেয়েদের পোশাকে থাকে ম্যাজিক রিয়্যালিজ়ম, সুররিয়্যালিজ়মের বার্তা। কিন্তু গৌরবকে অনুপ্রেরণা দেয় প্রকৃতি, শিল্প, নানা ধরনের আকার-আকৃতি। ‘‘আমার মূল মন্ত্র অরিজিন্যালিটি। নিজস্বতা বজায় রাখার জন্যই আমি এই ধরনের কাজ করতে পারি। তাই আমার চ্যালেঞ্জ হল নতুন আকারে, নয়া প্রযুক্তিতে পোশাক তৈরি,’’ বলছেন গৌরব।

গৌরবের কুতুরের দাম সাধারণত মধ্যবিত্তের ধরাছোঁয়ার বাইরে। ফলে ইচ্ছে থাকলেও তাঁর তৈরি পোশাক কিনতে পারেন না অনেকেই। অভিযোগ মেনে নিয়ে ডিজ়াইনার জানালেন, তাঁরও ভাবনা আছে সাধারণ মানুষের জন্য কাজ করার। কিন্তু ভিন্ন ধারার শিল্পকে তুলে ধরতে চাইলে তাকে টাকায় মাপলে চলে না, এটাও অনস্বীকার্য। ব্লেজ়ার, গাউন কিংবা শাড়ি-লেহঙ্গায় গৌরব বরাবর নিয়ে আসেন ওয়েভের ছোঁয়া। পোশাকের প্লিট, রঙের মাহাত্ম্য, সিকুইন বা এমবেলিশমেন্ট তাকে স্বকীয় করে তোলে। যদিও টাইমলেসনেস গৌরবের পোশাকের মূল নির্যাস, তবু পুজোর মরসুমে বাঙালিদের জন্য থাকছে শাড়ি লেহঙ্গা।

 সেখানে আঁচল বা প্লিটেড কুচির পোশাকে থাকবে না শাড়ি পরার ঝক্কি। সেই পোশাকেও থাকবে সাবেকিয়ানা।

‘‘আত্মবিশ্বাস, নিজের পোশাকে স্বচ্ছন্দ বোধ করা ও স্বকীয়তাই হল ফ্যাশনেবল হয়ে ওঠার আসল রহস্য,’’ ফ্যাশন সম্পর্কে গৌরবের মন্তব্য থেকে স্পষ্ট, কেন তিনি ছকভাঙা। আর রং? ‘‘আমার মুডের উপরে নির্ভর করে বদলে যায় কালেকশনের রং। আমি রঙের নাম দিতেও ভালবাসি। এখন পছন্দ একরু, শ্যাম্পেন, নুড পিঙ্ক, স্যান্ড পিঙ্ক, ভায়োলেট, ব্ল্যাক বা মিডনাইট ব্লু।’’ তবে নান্দনিকতায় বিশ্বাসী গৌরবের কাছে সর্বকালীন রং লাল। যার ছোঁয়া করে তোলে শাশ্বত।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন