• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

মিষ্টি একেবারে বাদ নয়, বরং এ সব উপায়ে খেয়ে ওজন রাখুন বশে

OBESITY
ওজন কমানো মানেই মিষ্টির সঙ্গে আড়ি নয়। ছবি: শাটারস্টক।

শেষপাতে মিষ্টিমুখ না হলে যেন খিদে মেটে না। এ দিকে ওবেসিটি, ডায়াবিটিসের চোখ রাঙানিতে মিষ্টি খাওয়ায় পাতে পড়েছে ঢ্যাঁড়া। তাই অনুষ্ঠান বাড়ি বা পার্টিতে দু’-একটা মিষ্টি পেটে চালান করলেও পরের দিনই আধ ঘণ্টা বেশি শরীরচর্চা করে তা পুষিয়ে নিতে হয়।

তবে ডায়াটেশিয়ান বা ডায়াবেটিক বিশেষজ্ঞ কেউই মিষ্টির বিষয়ে একেবারে ‘না’ করে দেন না। বরং শরীরে বাড়বাড়ি রকমের সমস্যা না থাকলে অনেক রোগীর পাতেই দিনে একটি মিষ্টি দেওয়ার পক্ষপাতী তাঁরা। তবে রাতের খাবারে নয়, বরং দিনের আলোয় মিষ্টি কেয়ে ফেললে শরীরের পক্ষে বিপাককাজ সহজ হয়, বলছেন তাঁরা।

তবে শরীরের কথা ভেবে দোকানের চলতি মিষ্টি বাদ দিয়ে তার বিকল্প কিছু মিষ্টিও পাতে রাখতে পারেন। এতে মিষ্টি খাওয়ার ইচ্ছেও মিটবে আবার শরীরও থাকবে সুস্থ।

আরও পড়ুন: ব্যায়াম করুন, সুস্থ থাকুন

ডার্ক চকোলেট: এতে থাকা ফ্ল্যাভিনয়েড নামক অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট শরীরে ক্লান্তি কাটিয়ে তরতাজা ভাব আনে। রাত জেগে পড়াশোনা করলে এই ডার্ক চকোলেট জেগে থাকতে সাহায্য করবে। হৃদরোগ প্রতিরোধেও এর ভূমিকা রয়েছে। অনেকেই মিষ্টির ভাব পেতে বাজারচলতি সস্তা দামের ডার্ক চকোলেটে আস্থা রাখেন। তাতে উপকারের চেয়ে ক্ষতিই বেশি। চকোলেটে দুধ ও চিনি না মেশানো একটু নামী ব্র্যান্ডের দামি ডার্ক চকোলেট খেতে পারেন।

ছানাতে মধু: ছানা কাটানোর পাউডার সহজেই দোকানে পাবেন। তা দিয়ে বা দুধে লেবু চিপে ছানা বানিয়ে নিন ঘরেই। এ বার এই ছানা মেখে নিয়ে তাতে দু’-এক চামচ মধু মিশিয়ে নিন। আমন্ড, কাজু, কিশমিশ, আখরোট ইত্যাদি মিশিয়ে দিন এতে। এটি খেলে পেট ভরা থাকবে যেমন, তেমনই মিষ্টি খাওয়ার সাধও মিটবে। এই খাবারটি বেশ স্বাস্থ্যকর। যাঁরা ডায়েটে রয়েছেন, তাঁরাও সন্ধের খাবার হিসেবে এটি বাছতে পারেন।

আরও পড়ুন: তর্কে-বিতর্কে কর্ড ব্লাড ব্যাঙ্কিং

আমন্ড-খেজুর দিয়ে বানানো মিষ্টি: আমন্ড ও খেজুর (বীজ বাদ দিয়ে) একসঙ্গে পিষে বেটে নিন। বায়ুনিরুদ্ধ পাত্রে বা ফয়েল পেপারে মুড়ে ফ্রিজে রেখে দিন। জমাট বেঁধে গেলে ছোট ছোট টুকরো করে কেটে খেতে পারেন। এতে মিষ্টি খাওয়ার অভ্যাসও যেমন বজায় থাকবে, তেমন তা বাড়তি ফ্যাটও জমাবে না শরীরে।

তবে ডেজ়ার্ট বা মিষ্টি কখনওই পেট ভরে খাওয়া উচিত নয়। খুব কম সপ্তাহে তিন-চার বার খেতে পারেন এ সব।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন