Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৯ জুন ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

Health Tips: শৌচালয়ে বসে ফোন নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটি করছেন? হতে পারে প্রাণঘাতী অসুখও

স্মার্টফোন হাতে নিয়ে শৌচালয়ে গেলে অজান্তেই অনেকে বেশি সময় কাটিয়ে ফেলেন। তাতে মলদ্বারে চাপ পড়ে।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১৫:২৪
Save
Something isn't right! Please refresh.
শৌচালয়ে ফোনের ব্যবহার ডেকে আনতে পারে নানা রকমের বিপদ

শৌচালয়ে ফোনের ব্যবহার ডেকে আনতে পারে নানা রকমের বিপদ
ছবি: সংগৃহীত

Popup Close

স্মার্টফোন এখন সব সময়ের সঙ্গী। এমনকি শৌচালয়েও সে সঙ্গ ছাড়ে না। সময় দেখার জন্যই হোক, কিংবা সময় কাটানোর জন্য হোক, অনেকেই ফোন নিয়ে শৌচালয়ে যান। কিন্তু এই অভ্যাস ডেকে আনতে পারে মারাত্মক বিপদ। এমনই বলছে গবেষণা।

সম্প্রতি সিডনি বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েক জন গবেষক শৌচালয়ে মোবাইল ফোন ব্যবহারের ফলাফল নিয়ে একটি সমীক্ষাপত্র প্রকাশ করেছেন। সেখানে দাবি করা হয়েছে ৫০ শতাংশের বেশি অস্ট্রেলিয়ার মানুষ এবং ৮০ শতাংশেরও বেশি আমেরিকার মানুষ শৌচালয়ে মোবাইল ফোন ব্যবহার করেন। ৬০ শতাংশের বেশি ব্রিটিশ নাগরিক শৌচালয়ে যান হাতে মোবাইল ফোন নিয়ে। ভারতীয়রাও দৌড়ে পিছিয়ে নেই। ৭০ শতাংশের বেশি ভারতীয় একই কাজ করেন।

এর ফলে কোন কোন ধরনের সমস্যা হতে পারে? বিজ্ঞানীরা তারও একটি তালিকা প্রকাশ করেছেন। কী কী আছে সেখানে?

• স্মার্টফোন হাতে নিয়ে শৌচালয়ে গেলে অজান্তেই অনেকে বেশি সময় কাটিয়ে ফেলেন। তাতে মলদ্বারে চাপ পড়ে। এতে অর্শের আশঙ্কা বাড়ে।

• শুধু অর্শই নয়, দীর্ঘ ক্ষণ শৌচালয়ে বসে থাকার ফলে মলদ্বারের শিরার উপরেও চাপ পড়ে। সেখানেও প্রদাহ হতে পারে। তাতে বাড়ে মলদ্বারের অন্য ধরনের অসুখের আশঙ্কাও।

Advertisement



• শৌচালয়ের আর্দ্র পরিবেশে বিভিন্ন ধরনের জীবাণু দ্রুত বংশবৃদ্ধি করে। তার অনেকগুলিই মোবাইল ফোন এবং তার খাপের মাঝ খানে বাসা বাঁধে। এবং সংখ্যায় দ্রুত বাড়তে থাকে। পরে এগুলিই ফোনের টাচস্ক্রিনে ছড়িয়ে পড়ে। এর মধ্যে ইকোলাইয়ের মতো জীবাণুও থাকে। সেগুলি পরবর্তী সময়ে নানা ধরনের সংক্রমণের কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

• তবে সবচেয়ে বড় সমস্যা হল সালমোনেল্লার মতো জীবাণু নিয়ে। ফোনে এই জীবাণু বাসা বাঁধতে পারে। এর পরে ফোন ব্যবহারের সময়ে গরম হয়ে যায়। এই উত্তপ্ত পরিবেশে সালমোনেল্লার মতো জীবাণু অতি দ্রুত বংশবৃদ্ধি করে। পরে সেটি ছড়িয়ে পড়ে শরীরে। নানা ধরনের সংক্রমণ ঘটাতে থাকে। কারও রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা দুর্বল হলে এই সংক্রমণগুলি প্রাণঘাতীও হয়ে উঠতে পারে।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)


Something isn't right! Please refresh.

Advertisement