প্রখর দাবদাহে ওষ্ঠাগত মানুষ। তাই নিজেকে বাঁচাতে ভরসা একমাত্র বাতানুকূল ঘর। কিন্তু এই তাপমাত্রার পরিবর্তনে স্বাস্থ্যের বারোটা বাজে। সর্দি কাশি, হাঁচি, ফ্লু এই সব লেগেই থাকে।

তবে শুধু তাপমাত্রার পরিবর্তনে বা ঠান্ডা লেগে নয়, জীবাণু সংক্রংমণেও ফ্লু-এর শিকার হতে হয়।আর ফ্লু হলে শরীর দুর্বল হয়ে পড়ে, সব সময়েই ক্লান্তি বোধ হয়, খিদে চলে যায়। এমনকি, ফ্লু সারার কিছু দিন পর পর্যন্ত এর রেশ বজায় থাকে।

তবে ফ্লু এড়িয়ে চলা সম্ভব। তার জন্য ডায়েটে কয়েকটি খাবার যোগ করা দরকার। এই খাবারগুলি ফ্লু হলেও খেতে পারেন। ফ্লু হলে সাধারণত মুখে কোনও খাবারই রোচে না। তাই এই গুলি খেয়ে শরীর সুস্থ রাখুন।

জেনে নেওয়া যাক সেগুলি কী কী-

১) চিকেন স্যুপ খান। এতে আয়রন এবং প্রোটিন থাকে। ফলে শরীরে শক্তি যোগান দেয়। আরও ভাল হয় যদি চিকেন স্যুপের সঙ্গে গাজর, সেলারি এগুলি মেশাতে পারেন। শরীরকে হাইড্রেটেড রাখবে এই খাবার।

ফাইল ছবি

২) খাবারে স্বাদ আনতে রসুনের জুড়ি মেলা ভার। তবে কিছু ক্ষেত্রে রসুন মহৌষোধির মতো কাজ করে। ফ্লু এড়াতে বা ফ্লু হলে খালি পেটে এক কোয়া কাঁচা রসুন খান। এতে শরীরে রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতা বাড়ে।

আরও পড়ুন- সস্তার এই ফলেই আছে গরম থেকে শরীরকে বাঁচানোর উপায়​

আরও পড়ুন- শিশুর হজমের সমস্যা বড় হয়ে কী হতে পারে জানেন​

৩) ফ্লু-এর সময়ে গলা ব্যথায় কষ্ট পেতে হয়। তাই এই সময়ে ইয়োগার্ট খেলে স্বস্তি পাবেন। কিন্তু দেখবেন সেই ইয়োগার্টে যেন অ্যাডেড সুগার না থাকে।

৪) ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া খুব জরুরি। ভিটামিন সি যুক্ত ফল যেমন টোম্যাটো, স্ট্রবেরি ইত্যাদি খেতে পারেন। এতে শরীরে রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা বাড়ে।

ফাইল ছবি

৫) ব্রকোলিতে ভিটামিন সি ও ই থাকে। এতে ক্যালসিয়াম ও ফাইবারের পরিমাণ যথেষ্ট থাকে। ব্রকোলির স্যুপ বানিয়ে খেতে পারেন। এটি শরীরে শক্তির জোগান দেয়। এছাড়া দেখবেন নুনের পরিমাণটাও যাতে ঠিক থাকে।

৬) ওটমিলে যথেষ্ট মাত্রায় প্রোটিন থাকে। এ ছাড়া ভিটামিন ই থাকায় রোগ প্রতিরোধ করতে পারে। ফাইবার ও পলিফেনল অ্যান্টিঅক্সাইড থাকায় এটি উপকারী খাবার।

৭) এ ছাড়া শরীরকে হাইড্রেটেড রাখতে পানীয় রাখুন ডায়েটে। আদা চা, স্যুপ, মধু, লেবু ইত্যাদি খান।