বউয়ের আবদারে ঝাঁ চকচকে ফ্ল্যাট তো কিনে ফেলেছেন। তবে শুধু মাথার উপর ছাদ হলেই তো আর হল না। ফ্ল্যাটকে মনের মতো করে সাজাতেও হবে। কিন্তু ফ্ল্যাটে যদি একটা মনের মতো টিভি না থাকে হাজার খরচের পরও কি প্রতিবেশীদের নজরকাড়া হয়ে উঠতে পারবেন? হুট করে গাঁটের কড়ি খরচ করার আগে জেনে নিন টিভি কেনার পাঁচটা টিপস্।

১) এইচডি অথবা ৪কে

হাই ডেফিনেশন বা এইচডি টিভির দিকেই এখন মানুষ বেশি ঝোঁকে। ৪-কে হল হাই ডেফিনেশনের ৪ গুণ পিক্সেল। আপনার ফ্ল্যাটের জন্য ৪-কে টিভি উপযুক্ত না-ও হতে পারে। ৪-কে টিভি কেনার আগে টিভি এবং আপনার বসার জায়গার দূরত্ব দেখে নেওয়া উচিত। দূরত্ব যদি খুব বেশি হয়ে থাকে তা হলে অহেতুক বেশি টাকা খরচের প্রয়োজন নেই। একটি রেগুলার এইচডি টিভিই যথেষ্ট।

 

২) এইচডিএমআই পোর্ট (হাই ডেফিনেশন মাল্টিমিডিয়া ইন্টারফেস)

কমপক্ষে দু’টো পোর্ট থাকেই টিভিতে। তবে তিন থেকে চারটে হলে বেশি ভাল হয়। যদি আপনার কেবল্‌ বা স্যাটেলাইট টিভি হয়। তা হলে সেট-টপ বক্সের জন্য একটি পোর্ট লাগবেই। একটি রাখবেন ব্লু-রে প্লেয়ারের জন্য।

 

৩) স্মার্ট টিভি/ওয়াইফাই

অনেক কোম্পানিই এখন ওয়াইফাই কানেকটিভিটি অনছে টিভিতে। পোর্টের ঝামেলা এড়াতে ওয়াইফাই টিভি বেছে নেওয়াই ভাল।

 

৪) রিফ্রেস রেট

দ্রুত পরিষ্কার ছবি পেতে টিভিতে ‘অ্যাকোয়ামোশন’ বা ‘মোশনফ্লো’ টেকনোলজি খুবই দরকারি। এই টেকনোলজি পিকচার কোয়ালিটি ভাল রাখে।

 

৫) অন্যান্য স্ক্রিন বৈশিষ্ট

কার্ভড স্ক্রিন অবশ্যই ভাল। তবে ‘দর্শনধারী’ না হওয়ায় ইদানীং অনেকেই পছন্দ তা করছেন না। পছন্দের তালিকায় আনতে পারেন অর্গানিক লাইট-এমেটিং ডায়োড স্ক্রিনের টিভি। এতে টিভির কালার ডিসপ্লে অনেক ভাল। তবে দাম অনেকটাই বেশি। রয়েছে ৩-ডি, ওএলইডি টিভিও।

পকেটের দিকে তাকিয়ে পছন্দসই টিভি কিনে নিলেই হল।