কাল শুক্রবারই শেষ হচ্ছে ২০১৮-১৯ অর্থবর্ষের আয়কর রিটার্ন জমা দেওয়ার শেষ তারিখ। তবে ভয়াবহ বন্যার জন্য কেরলের ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া হয়েছে। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে আয়কর জমা না দিলে হতে পারে জরিমানা। বছরে দু’লক্ষ ৫০ হাজার টাকার বেশি আয় হলেই রিটার্ন জমা দেওয়া বাধ্যতামূলক। তবে প্রবীণ নাগরিকদের ক্ষেত্রে এই ঊর্ধ্বসীমায় ছাড় রয়েছে।

শেষ দিন ৩১ অগস্ট

প্রথমে রিটার্ন জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ছিল ৩১ জুলাই। পরে ৩১ অগস্ট পর্যন্ত সেই সময়সীমা বাড়িয়ে দেয় আয়কর দফতর। তবে কেরলে ভয়াবহ বন্যার জন্য আরও ১৫ দিন অতিরিক্ত সময় দেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ সেখানে রিটার্ন জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ১৫ সেপ্টেম্বর।

আয়ের ঊর্ধ্বসীমা

বছরে দু’লক্ষ ৫০ হাজার বা তার বেশি আয় হলে রিটার্ন জমা দেওয়া বাধ্যতামূলক। তবে প্রবীণ নাগরিকদের ক্ষেত্রে এই সীমা তিন লক্ষ টাকা এবং অতি প্রবীণদের ক্ষেত্রে পাঁচ লক্ষ। তবে আড়াই লক্ষের কম বা কাছাকাছি আয় হলেও রিটার্ন দেওয়া উচিত। কারণ ব্যাঙ্কের সুদ বা অন্যান্য উৎস থেকে আয়ের ফলে মোট আয় আড়াই লক্ষের বেশি হয়ে যেতে পারে। তখন সেই আয় করের আওতায় চলে আসতে পারে।

আরও পড়ুন: সব নোট ঘরে এল, কালো টাকা কই!

সময়ে রিটার্ন না দিলে কী হতে পারে

নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে জমা না দিলে পরে জরিমানা-সহ রিটার্ন জমা দেওয়া যায়। বকেয়া করের সঙ্গে ৩১ অগস্ট থেকে প্রতি মাসে এক শতাংশ হিসাবে সুদও গুণতে হবে করদাতাদের।

আরও পড়ুন: কেউ বারণ শোনেনি, হওয়ার ছিল এটাই

ভুল থেকে সাবধান

ফর্ম ১৬ বা ২৬এএস এর সঙ্গে আয়ের উৎসের মিল না হলে সমস্যা হতে পারে। তবে রিটার্নে কোনও ভুল হলে বা তথ্যে অসঙ্গতি আছে বলে পরে মনে হলে তা পরিবর্তন করে সংশোধিত রিটার্ন জমা দেওয়ার সুযোগও রয়েছে।

(ভারতের রাজনীতি, ভারতের অর্থনীতি- সব গুরুত্বপূর্ণ খবর জানতে আমাদের দেশ বিভাগে ক্লিক করুন।)