দেশের অস্ত্রসম্ভারকে আরও শক্তিশালী করতে নিয়ে আসা হল আমেরিকার তৈরি অত্যাধুনিক অ্যাপাচে এএইচ-৬৪ই হেলিকপ্টার। মঙ্গলবার মোট আটটি অ্যাপাচে হেলিকপ্টারের অন্তর্ভুক্তি হল ভারতীয় বায়ুসেনায়।

পঠানকোট বিমানঘাঁটিতে এ দিন বায়ুসেনায় অন্তর্ভুক্ত করা হয় ওই হেলিকপ্টারগুলিকে। সেখানে উপস্থিত ছিলেন বায়ুসেনা প্রধান বি এস ধানোয়া। এ দিন তিনি বলেন, “বিশ্বের ধ্বংসাত্মক এবং আক্রমণাত্মক হেলিকপ্টারগুলোর মধ্যে অন্যতম অ্যাপাচে হেলিকপ্টার। এক সঙ্গে অনেকগুলো মিশনে এদের ব্যবহার করা যেতে পারে। অ্যাপাচের অন্তর্ভুক্তি নিঃসন্দেহে ভারতীয় বায়ুসেনার শক্তি বহু গুণ বাড়িয়ে দিল।”  বায়ুসেনা প্রধান আরও বলেন, “ভারতীয় বায়ুসেনার প্রয়েোজন অনুযায়ী এই হেলিকপ্টারের গঠনে রদবদল করা হয়েছে। নির্ধারিত সময়ে হেলিকপ্টারগুলি হাতে আসায় আমরা খুব খুশি।”

২০১৫-তে বোয়িং-কে ২২টি অ্যাপাচের বরাত দেয় ভারত।  কয়েক হাজার কোটি টাকার চুক্তি হয় মার্কিন সরকার এবং বিমান প্রস্তুতকারক সংস্থাটির সঙ্গে। গত ২৭ জুলাই চারটি অ্যাপাচে হাতে পেয়েছিল ভারত। এ বার আরও ৮টি বায়ুসেনার হাতে এল। সূত্রের খবর, ২০২০-র মধ্যে বাকি হোলিকপ্টারগুলো সরবরাহ করবে বোয়িং।

আরও পড়ুন: ‘মিচ্ছামী দুক্কড়ম্‌’, গুজরাত ভবনের উদ্বোধনে এসে ক্ষমাপ্রার্থী মোদী, কারণ ঘিরে জল্পনা

আরও পড়ুন: ভারতের সঙ্গে সংঘাতে প্রথমে পরমাণু অস্ত্র নয়, মন্তব্য ইমরান খানের

বায়ুসেনার মুখপাত্র অনুপম বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “আনুষ্ঠানিক ভাবেই বায়ুসেনার সদস্য হল অ্যাপাচে। আমাদের হাতে এখন আটটি অ্যাপাচে রয়েছে। ধীরে ধীরে বাকি হেলিকপ্টারকেও বায়ুসেনায় সামিল করা হবে। অ্যাটাক হেলিকপ্টার ভারতের রয়েছে। কিন্তু অ্যাপাচের অন্তর্ভুক্তি বায়ুসেনাকে আরও শক্তিশালী ও নিখুঁত করে তুলল।”

বিশ্বের অত্যাধুনিক মাল্টি রোল-হেলিকপ্টারের মধ্যে অ্যাপাচে এএইচ-৬৪ই অন্যতম। ২০১৮-তে ভারতীয় বায়ুসেনা অ্যাপাচের পরীক্ষামূলক উড়ানে সফল হয়। বায়ুসেনার একটি দল আমেরিকায় এর প্রশিক্ষণও নেয়।