মা মারা গিয়েছেন বেশ কয়েক মাস আগে। তার পর বাবার সঙ্গেই গুরুগ্রামের পতৌদি এলাকায় থাকত আট বছরের ছোট্ট মেয়েটি। মা-কে হারানোর পর বাবাই ছিল তার একমাত্র অভিভাবক। কিন্তু সেই অভিভাবকের হাতেই যে তার শৈশব নারকীয় হয়ে উঠবে সে কথা বোধহয় স্বপ্নেও ভাবেনি ছোট্ট মেয়েটি। 

মা মারা যাওয়ার পর গত কয়েক মাস ধরে বাবার হাতে ক্রমাগত ধর্ষণের শিকার হয়েছে মেয়েটি। এই অভিযোগে সোমবার অভিযুক্ত ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে পুলিশ। প্রতিবেশীদের অভিযোগের ভিত্তিতেই ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে। 

ওই শিশুটির প্রতিবেশীরা বেশ কিছুদিন ধরে লক্ষ্য করছিলেন, বাচ্চা মেয়েটি কেমন যেন ভয়ে ভয়ে আছে। সারাদিন চুপচাপ ঘরের কোণে নিজেকে গুটিয়ে রাখছে। প্রতিবেশীরা জিজ্ঞাসাবাদ করতেই বাবার হাতে যৌন হেনস্থার কথা জানায় চতুর্থ শ্রেণিতে পড়া মেয়েটি। তারপরই খবর দেওয়া হয় পুলিশে।

এসিপি (ক্রাইম) শামসের সিংহ বলেছেন, ‘‘জিজ্ঞাসাবাদের সময় মেয়েটি জানিয়েছে, রোজ মদ খেয়ে ফিরত তার বাবা। তারপর প্রতি রাতে‌ই তার উপরচলত অত্যাচার। গত সপ্তাহে তাকে দু’বার ধর্ষণ করা হয়েছে বলেও জানিয়েছে শিশুটি।’’ শিশুটিকে উদ্ধার করে শিশু পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে রাখা হয়েছে। মন থ‌েকে এই আতঙ্ক দূর করতে ওই কেন্দ্রেই শিশুটির কাউন্সেলিং চলছে। 

আরও পড়ুন: বিয়ের মণ্ডপেও পাবজি খেলছে বর! ভিডিয়ো ভাইরাল