রেলের কোনও কর্মী ৩০ বছর ধরে চাকরি করছেন অথবা তাঁর ৫৫ বছর বয়স হয়ে গিয়েছে— এমন কর্মীদের চাকরিতে টিকে থাকার আর নিশ্চয়তা রইল না। নরেন্দ্র মোদী সরকারের সিদ্ধান্ত, এঁদের চাকরিতে রাখা হবে, নাকি আগাম অবসর দেওয়া হবে, তা খতিয়ে দেখে জনস্বার্থে সিদ্ধান্ত হবে। এ নিয়ে পর্যালোচনা শুরু করেছে রেল।

কর্মী সংগঠনগুলির অভিযোগ, রেলে প্রায় সাড়ে ১২ লক্ষ কর্মী কাজ করেন। নির্দেশ কার্যকর হলে ৩ লক্ষ কর্মী কাজ হারাবেন। কেন্দ্রের বক্তব্য, সমস্ত কেন্দ্রীয় সরকারি সংস্থাকেই একই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যা রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা ও ব্যাঙ্কগুলিতে প্রযোজ্য হবে। যার ফলে আরও বেশি সংখ্যক কর্মী কাজ হারাবেন।

৯ জুলাই রেল বোর্ড সব জ়োনের জিএম, রেলের সংস্থাগুলির প্রধানদের চিঠিতে নির্দেশ পাঠিয়েছে, অফিসার, কর্মীদের পর্যালোচনা শুরু করতে হবে। জ়োনাল ম্যানেজাররা নিচুতলায় নির্দেশ দিতে শুরু করেছেন। নির্দেশ— সমস্ত কর্মী, অফিসারদের ঠিকুজিকুষ্ঠি তৈরি করতে হবে। কে কত দিন কাজ করছেন, কত বেতন, সময়মতো কাজে আসেন কি না, খরচ বাঁচিয়ে কাজ করেন কি না, নিজে সিদ্ধান্ত নেন কি না, অধীনস্থ কর্মীদের মধ্যে শৃঙ্খলা রক্ষা করতে পারেন কি না, পাঁচ বছরে অসুস্থতার জন্য কত দিন ছুটি নিয়েছেন, সততা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে কি না— এই সব তথ্য চাওয়া হচ্ছে।

কোনও কর্মীর বিরুদ্ধে ভিজিল্যান্স মামলা বা তাঁর কখনও জরিমানা হয়েছে কি না, জানতে চাওয়া হয়েছে জ়োনগুলির কাছে। ওই কর্মী শারীরিক ও মানসিক ভাবে কতখানি সুস্থ,  সে কথাও জানাতে হবে উপরওয়ালাকে। কর্মীদের ৫৫ বছর বয়স অথবা ৩০ বছরের চাকরির মেয়াদের মধ্যে যেটি আগে হবে, সেটিই প্রযোজ্য হবে। এ, বি, সি, তিনটি গ্রুপের কর্মীদের ক্ষেত্রেই এই নিয়ম কার্যকর হবে।

আরও পডু়ন: কিশোর মন জয়ে চাঁদের হাতছানি, কুইজে সফল হলেই শ্রীহরিকোটার টিকিট, ঘোষণা মোদীর

মন্ত্রক সূত্রের ব্যাখ্যা, ২০১৫-র নভেম্বর থেকেই এই নির্দেশ রয়েছে। বলা হয়েছিল, নির্দিষ্ট সময় অন্তর কর্মী সংখ্যা পর্যালোচনা করতে হবে। কোন কর্মীদের কাজে রাখার দরকার রয়েছে এবং কাদের আগাম অবসর দেওয়া দরকার, তা দেখতে হবে। জুনে রেল বোর্ড সেই সিদ্ধান্ত ফের জানিয়েছে। ২০ জুন কর্মিবর্গ দফতরও চিঠিতে একই নির্দেশের কথা জানায়।

জুলাই থেকে প্রতি মাসের ৮ তারিখের মধ্যে রেল বোর্ডকে বিশেষ কিছু তথ্য দেওয়ার জন্য প্রতিটি জ়োনকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তাদের জানাতে হবে, কত জন কর্মী সম্পর্কে পর্যালোচনা করতে হবে, তার মধ্যে কত জনের করা হয়েছে। কত কর্মী আগাম অবসরের তালিকায় ঢুকছেন এবং কত জনকে আগাম অবসর দেওয়া হয়েছে। শ্রমিক সংগঠনগুলির হিসেবে, কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মী এখন প্রায় ৪৭ লক্ষ। তার মধ্যে রেলের কর্মী ১২ লক্ষ ৪৬ হাজার। এর ১১ হাজার ৫০০ জন গেজেটেড অফিসার।