অর্থনীতির ঝিমুনি কাটাতে হলে রফতানিকে চাঙ্গা করতে হবে। তার দায়িত্ব পড়েছে বাণিজ্যমন্ত্রী পীযূষ গয়ালের কাঁধে। পীযূষ তা নিয়ে অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামনের দ্বারস্থ হয়েছেন। দাবি, এসইজেড বা বিশেষ আর্থিক অঞ্চলের জন্য বিশেষ কর ছাড় ২০২০-র পরেও অব্যাহত থাকুক। কিন্তু তাতে অর্থ মন্ত্রকের কর্তাদের আপত্তি। তাঁদের যুক্তি, এমনিতেই রাজস্ব আয় কমছে। কর্পোরেট কর কমানো হয়েছে। এসইজেড-এর লগ্নিকারীরা বরং সেখান থেকে সুবিধে নিন। এ নিয়ে পীযূষ গয়ালের বাণিজ্য মন্ত্রকের সঙ্গে নির্মলার অর্থ মন্ত্রকের টানাপোড়েন শুরু হয়েছে। আপাতত ঠিক হয়েছে, আগামী বছরের বাজেটের প্রস্তুতির সময়েই এ নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে।

এসইজেড-এ লগ্নিকারীরা এত দিন রফতানি থেকে আয়ের উপর প্রথম পাঁচ বছরে আয়কর থেকে পুরোপুরি ছাড় পেয়ে এসেছেন। তার পরের পাঁচ বছরের জন্য অর্ধেক কর ছাড় পেয়ে থাকেন তাঁরা। কিন্তু এই সুবিধে ২০২০-র ৩১ মার্চ শেষ হতে চলেছে। বাণিজ্য মন্ত্রকের হিসেবে, গোটা দেশে ৩৫১টি নথিভুক্ত এসইজেড রয়েছে। যার মধ্যে ২৩৪টি এসইজেড চালু রয়েছে। বাণিজ্য মন্ত্রকের যুক্তি, কর ছাড়ের সুবিধে শেষ হয়ে গেলে বাকি ১১৭টি এসইজেড-এ কাজ চালু করতে লগ্নিকারীরা উৎসাহ হারিয়ে ফেলবেন। তাই এই সুবিধে অব্যাহত থাকুক।