লোকসভা ভোটের মুখে ফের দলিত নিগ্রহের ঘটনা ঘটল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর রাজ্য গুজরাতে। উচ্চ বর্ণের এক ছাত্রীর সঙ্গে সম্পর্কের অভিযোগে গাছে বেঁধে রেখে বেধড়ক পেটানো হল এক দলিত ছাত্রকে। তাকে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় বসতে দেওয়া হল না। এমনকি, বাকি পরীক্ষাগুলিতে বসার চেষ্টা করলে খুনেরও হুমকি দেওয়া হল ওই দলিত ছাত্রকে। উত্তেজনায় থমথম করছে গোটা এলাকা। সোমবার ঘটনাটি ঘটেছে বডগাম বিধানসভা কেন্দ্রের মেহসানা শহরে। অভিযুক্তদের অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় নির্দল বিধায়ক জিগনেস মেবানি। অভিযুক্তরা ধরা না পড়লে গোটা উত্তর গুজরাত অচল করে দেওয়ারও হুমকি দিয়েছেন তিনি।

পাটান জেলার ধানোদর্দা গ্রামের ছাত্রটি তার মায়ের কাজের সূত্রে থাকে মেহসানা শহরে। সোমবার উচ্চমাধ্যমিকের ইংরেজি পরীক্ষা ছিল দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রটির। তার পরীক্ষাকেন্দ্র ছিল ধিনোঁজ গ্রামের সর্বজনিক বিদ্যা মন্দির হাইস্কুলে।

মারধরের চোটে প্রায় অচৈতন্য ছাত্রটিকে ভর্তি করানো হয় মেহসানা সিভিল হাসপাতালে। হাসপাতালেই ছাত্রটি বলেছে, ‘‘আমার ইংরেজি পরীক্ষা ছিল। একটি সরকারি বাসে চেপে দুপুর একটা নাগাদ পৌঁছই ধিনোঁজ গ্রামে পরীক্ষাকেন্দ্রের সামনে। কিছু ক্ষণ পরেই পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা ছিল। ওই সময়েই রমেশ পটেল নামে একটি ছেলে আমাকে ওর সঙ্গে একটু দূরে যেতে বলে। বলে, কিছু কথা আছে। তার পর কিছুটা দূরে গিয়ে আর একটি ছেলে আমাকে বাইকে তুলে নিয়ে যায় গরাদ গ্রামে।’’

আরও পড়ুন- বিভাজনের রাজনীতি করছেন মোদী, ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকে বার্তা কংগ্রেসের​

আরও পড়ুন- গুজরাতে খোঁজ মিলল ৫০০০ বছরের পুরনো মানব কঙ্কাল​ 

সেখানেই একটি মাঠের উপর গাছের সঙ্গে দড়ি দিয়ে বেঁধে তাকে বেধড়ক মারধর করে দু’জন। পরীক্ষায় বসতে চাইলে তাকে খুনেরও হুমকি দেওয়া হয়। পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ছাত্রটিকে ভর্তি করানো হয় মেহসানা সিভিল হাসপাতালে।

বডগামের নির্দল বিধায়ক জিগনেশ মেবানি বলেছেন, ‘‘ওই ছাত্রটির কোনও ছাত্রীর সঙ্গে সম্পর্ক থাকতেই পারে। কিন্তু তার জন্য তার উপর এই অত্যাচার করা যায় না। হোলির সময় দলিত ছাত্রের উপর এই নির্যাতনের ঘটনা ফের প্রমাণ করল, বিজেপি জমানায় দলিতরা কতটা ভয়াবহ অবস্থায় রয়েছেন গুজরাতে।’’