নিজের ১৯ বছরের মেয়েকে ছ’বছর ধরে নিয়মিত ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠল বাবার বিরুদ্ধে। এই ছ’বছরে বেশ কয়েক বার অন্তঃসত্ত্বাও হয়ে পড়ে নির্যাতিতা কিশোরী। দু’বার তাঁকে গর্ভপাতেও বাধ্য করানো হয়। অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে শুক্রবার রাতে পুলিশে অভিযোগ জানায় মেয়ে। তার পরই অভিযুক্ত বাবাকে গ্রেফতার করেছে উত্তরপ্রদেশের ফিরোজাবাদ জেলার পুলিশ।

অভিযুক্ত বাবার বয়স ৪০। সে পেশায় অটোচালক। গত ছ’বছর ধরে নিজের মেয়েকে নিয়মিত যৌন নির্যাতন করত সে। সংবাদপত্রে প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী, নিজের মেয়েকে দু’বার জোর করে গর্ভপাতও করায় সে। সামাজিক লজ্জা এবং আরও অত্যাচারের ভয়ে সব কিছু জেনে চুপ  ছিল মেয়েটির মা-ও। তাঁকেও বেশ কয়েকবার জোর করে গর্ভপাত করানো হয়েছিল বলে জানতে পেরেছে পুলিশ।

দু’মাস আগে একটি সন্তানের জন্ম দেয় নির্যাতিতা কিশোরী। এর পরই নিজের মেয়েকে তাঁর বয়ফ্রেন্ডের সঙ্গে জোর করে বিয়ে দিয়ে দেয় ‘ধর্ষক’ বাবা। কয়েক দিন আগে নিজের পরিবারকে সঙ্গে নিয়ে বাবা-মায়ের বাড়িতে আসে নির্যাতিতা কিশোরী। শুক্রবার রাতে তাঁর পরিবারের সামনেই তাঁর উপর ফের চড়াও হয় অভিযুক্ত বাবা। এ বার আর ভুল করেননি কিশোরী। নিজের বাবাকে ধর্ষণে বাধা দেওয়ার পাশাপাশি পুলিশে ফোন করে সব জানায় সে।

আরও পড়ুন: গগৈ মামলায় অভিযোগকারিণীর অনুপস্থিতিতে শুনানি নিয়ে প্রশ্ন বিচারপতিদের

ঘটনা জানার পর সঙ্গে সঙ্গে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ। অভিযুক্তের বিরুদ্ধে ধর্ষণ, অত্যাচার-সহ আরও বিভিন্ন অভিযোগ আনা হয়েছে।

 

আরও পড়ুন: ১১ কিশোরীকে খুন করে পুঁতে দেওয়ার অভিযোগ