• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

ফ্রান্স থেকে উড়ল প্রথম দফার ৫টি রাফাল, ভারতে পৌঁছবে বুধবার

Rafale
ফ্রান্স থেকে ওড়ার আগে। ছবি: ফ্রান্সে ভারতীয় দূতাবাসের টুইটার থেকে নেওয়া

বহু বিতর্ক ছিল। দুর্নীতির অভিযোগে দীর্ঘদিন সরকারকে তীব্র আক্রমণ করে গিয়েছে। এমনকি, সুপ্রিম কোর্টে পর্যন্ত লড়াই চলেছে। কিন্তু সব বিতর্কের অবসান ঘটিয়ে ফ্রান্স থেকে ভারতের উদ্দেশে রওনা দিল প্রথম পর্বের পাঁচটি রাফাল যুদ্ধবিমান। আগামী ২৯ জুলাই বুধবার সেগুলি হরিয়ানার অম্বালায় পৌঁছে যোগ দেবে ভারতীয় বায়ুসেনায়। মোট ৩৬টির মধ্যে বাকিগুলি ধাপে ধাপে পৌঁছবে ভারতে। আর দ্বিতীয় ধাপেই আসবে এ রাজ্যের হাসিমারা বায়ুসেনা ঘাঁটিতে।

২০১৬ সালে ফ্রান্স সফরে গিয়ে প্রথম রাফাল চুক্তির ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ৫৯ হাজার কোটি টাকায় ফ্রান্সের যুদ্ধবিমান প্রস্তুতকারী সংস্থা দাসো এভিয়েশনের কাছ ৩৬টি রাফাল যুদ্ধবিমান কেনার চুক্তি হয়। সেই চুক্তি নিয়েই প্রশ্ন তোলে কংগ্রেস-সহ বিরোধীরা। তাঁদের অভিযোগ ছিল, অনেক বেশি দামে এই চুক্তি করেছে মোদী সরকার। এ নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে মামলা দায়ের করেছিল কংগ্রেস। কিন্তু দীর্ঘ শুনানির পর সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দেয়, রাফাল চুক্তিতে কোনও অসঙ্গতি নেই।

সেই সমস্ত বিতর্ক কাটিয়ে শেষ পর্যন্ত সোমবার ভারতের উদ্দেশে উড়ান শুরু করল প্রথম ধাপের পাঁচটি রাফাল যুদ্ধবিমান। আগেই ফ্রান্সে গিয়ে এই বিমান ওড়ানোর প্রশিক্ষণ নিয়ে এসেছিলেন ভারতীয় বায়ুসেনার ১২ জন পাইলট এবং ইঞ্জিনিয়াররা। তাঁরাই ওই বিমানগুলি ভারতে উড়িয়ে আনছেন। তবে মাঝপথে জ্বালানি ভরার জন্য সংযুক্ত আরব আমিরশাহিতে ফরাসি বায়ুসেনার ঘাঁটিতে নামবে মঙ্গলবার। তার পর ফের অম্বালার উদ্দেশে উড়বে। বুধবারই পৌঁছবে অম্বালায়। বিমানগুলি নামার পর স্বাগত জানাতে বায়ুসেনার তরফে বিশেষ প্রস্তুতি নেওয়ার কাজও প্রায় সারা হয়ে গিয়েছে। ইতিমধ্যেই পরিকাঠামো ও প্রযুক্তিগত বেশ কিছু পরিবর্তনও করা হয়েছে।

ফ্রান্স থেকে ওড়ার সময় সেখানে ছিলেন ফ্রান্সে ভারতের রাষ্ট্রদূত। ভারতীয় পাইলটদের অভিনন্দন জানিয়ে নিরাপদে ভারতে পৌঁছনোর শুভেচ্ছাবার্তাও জানান তিনি। অন্য দিকে ভারতীয় বায়ুসেনার তরফেও টুইট করে এই খবর জানানোর পাশাপাশি বলা হয়েছে, ‘‘অত্যাধুনিক প্রযুক্তির এই যুদ্ধবিমান ওড়ানোর জন্য পাইলট এবং গ্রাউন্ড ক্রু-রা প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। পৌঁছনোর পর দ্রুততার সঙ্গে সেগুলি অপারেশনের উপযোগী করে তোলাই হবে মূল লক্ষ্য।’’

আরও পড়ুন: রাজস্থানের সঙ্কট চরমে, আরও ব্যাখ্যা চেয়ে গহলৌতের প্রস্তাব ফেরালেন রাজ্যপাল

প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের একটি সূত্রে জানা গিয়েছে, এই রাফাল যুদ্ধবিমানগুলি মোতায়েন করা হবে লাদাখে। চিনের সঙ্গে প্যাংগং লেক ও গালওয়ান উপত্যকার প্রকৄত নিয়ন্ত্রণরেখা নিয়ে বিবাদ এখনও মেটেনি। প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞদের মতে, রাফাল আসার পর বায়ুসেনার মনোবলও অনেকটাই বেড়ে যাবে।

অন্য দিকে প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের একটি সূত্রে জানা গিয়েছে, দ্বিতীয় ধাপে যে রাফাল যুদ্ধবিমানগুলি আসবে, সেগুলি যোগ দেবে বায়ুসেনার হাসিমারা সেনা ঘাঁটিতে। অম্বালা ও হাসিমারায় রাফালের জন্য পরিকাঠামো ও প্রযুক্তিগত উন্নতিতে প্রায় ৪০০ কোটি টাকা খরচ করা হয়েছে। 

আরও পড়ুন: ফের চিনের বিরুদ্ধে ‘ডিজিটাল স্ট্রাইক’! এ বার নিষিদ্ধ হতে পারে পাবজিও

কী কী ক্ষমতা বা প্রযুক্তি রয়েছে রাফালে? অত্যাধুনিক প্রয়ুক্তির এই মিডিয়াম মাল্টি রোল কমব্যাট এয়ারক্র্যাফটে রয়েছে ইউরোপের মিসাইল প্রস্তুতকারী সংস্থা এমবিডিএ-র মিটিওর বিয়ন্ড ভিসুয়াল রেঞ্জ এয়ার-টু-এয়ার মিসাইল, স্কাল্প ক্রুজ মিসাইল অ্যান্ড হ্যামার।

 

 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন