• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

মোদীর সেরা বিকল্প কে? সমীক্ষা বলল, একে রাহুল, দুইয়ে মমতা

rahul gandhi
কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গাঁধী। -ফাইল চিত্র।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে অনেকটাই পিছনে ফেলে দিলেন রাহুল গাঁধী। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর পর দেশের মন কার দিকে, সেই লড়াইয়ে।

তৃণমূল নেত্রীকে রাহুল বোধহয় এটাও বোঝাতে পারলেন, দিল্লি দূর অস্তই! কারণ, পশ্চিমবঙ্গ-সহ গোটা পূর্ব ভারতেও রাহুলের অনেক পিছনে পড়ে রইলেন মমতা।

২০১৯-এর লোকসভা ভোটে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সেরা বিকল্প কে, এই প্রশ্নে ৪৬ শতাংশ ভোটার রায় দিয়েছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গাঁধীর পক্ষে। রাহুলের অনেক পিছনে থেকে ওই ভোটাভুটিতে দ্বিতীয় স্থানটি পেয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর ঝুলিতে মাত্র ৮ শতাংশ ভোট।

পূর্ব ভারতেও রাহুলের পিছনে পড়ে গেলেন মমতা!

পূর্ব ভারতেও রাহুলের বাক্সে ভোট পড়ল ৪২ শতাংশ। আর মমতার ঝুলিতে মাত্র ১৯ শতাংশের ভোট।

মতামত সমীক্ষায় জাতীয় স্তরে ৬ শতাংশ ভোট পেয়ে মমতার পরেই থাকলেন কংগ্রেস নেতা পি চিদম্বরম।

এটাই ফলাফল সর্বভারতীয় ম্যাগাজিন ‘ইন্ডিয়া টুডে’র সাম্প্রতিক মতামত সমীক্ষার। ১২ হাজার ১০০ ভোটারকে নিয়ে ওই সমীক্ষা চালানো হয়েছিল। যার নাম- ‘ইন্ডিয়া টুডে মুড অফ দ্য নেশন পোল (এমওটিএন)’। দু’বছর আগে এই সমীক্ষাতেই রাহুল পেয়েছিলেন ৩২ শতাংশ ভোট। যার মানে, মোদীর সেরা বিকল্প হিসেবে রাহুলের ‘ইমেজ’ বেড়েছে ১৪ শতাংশ।

আরও পড়ুন- রাজীব-স্মরণেও মোদীর সমালোচনা কংগ্রেসের

আরও পড়ুন- জমির প্রশ্ন ছোট শিল্পের মুখেও​

ওই মতামত সমীক্ষায় ৬ শতাংশের ভোট পেয়েছেন রাহুলের বোন প্রিয়ঙ্কা গাঁধী বঢ়রা। কট্টর বিজেপি-বিরোধী দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরীবাল পেয়েছেন ৪ শতাংশ ভোট। আর হালে কেন্দ্রের শাসকজোট এনডিএ ছেড়ে বেরিয়ে আসা ‘বিদ্রোহী’ নেতা, তেলুগু দেশম পার্টির প্রধান এন চন্দ্রবাবু পেলেন সাকুল্যে এক শতাংশ ভোট। ২ শতাংশের বেশি ভোট পাননি দলিত নেত্রী মায়াবতীও। ওপরের কারও পক্ষেই মতামত দেননি ৫ শতাংশ আর বলতে চাননি বা জানেন না বলে এড়িয়ে গিয়েছেন ১২ শতাংশ ভোটার।

মুসলিমদের মন রাহুলের দিকে, হিন্দুরাও পিছিয়ে নেই

ভারতে ভোট হয় এখনও ধর্ম আর জাতপাতের ভিত্তিতে। তাই কোন সম্প্রদায়ের মন কোন দিকে ঝুঁকে রয়েছে, সেটা খতিয়ে দেখাটাও খুব জরুরি হয়ে পড়ে।

ইন্ডিয়া টুডে’র এই মতামত সমীক্ষা জানাচ্ছে, মোদীর সেরা বিকল্প হিসেবে রাহুলকে বেছে নেওয়ার ক্ষেত্রে হিন্দুদের চেয়ে এগিয়ে রয়েছেন মুসলিমরাই। ৪৭ শতাংশ মুসলিম ভোটার মোদীর সেরা বিকল্প হিসেবে রাহুলের পক্ষে রায় দিয়েছেন। আর কংগ্রেস সভাপতিকে ‘মোদীর সেরা বিকল্প’ বেছে নিয়েছেন ৪৫ শতাংশ হিন্দু ভোটার।

এ দেশের সংসদীয় নির্বাচনের ফলাফলে বহু ক্ষেত্রেই যেটা দেখা গিয়েছে, তার আভাস মিলেছে ইন্ডিয়া টু’ডের এই মতামত সমীক্ষাতেও।

দক্ষিণ ও পশ্চিম ভারতের বেশি পছন্দ রাহুলকে

উত্তর ভারত যা চায়, দাক্ষিণাত্য তা চায় না। হালের সমীক্ষাও জানিয়েছে, মোদীর সেরা বিকল্প হিসেবে রাহুলকে বেশি পছন্দ দক্ষিণ ভারতের রাজ্যগুলির ভোটারদের। মতামত সমীক্ষায় কংগ্রেস সভাপতির বাক্সে যত ভোট পড়েছে, তার ৫৬ শতাংশই দক্ষিণ ভারতীয়দের। পশ্চিম ভারতও ঝুঁকে রয়েছে রাহুলের দিকেই। সেই মুলুক থেকে রাহুলের পক্ষে ভোট পড়েছে ৫২ শতাংশ।

আর রাহুলের জন্ম ও সংসদীয় নির্বাচনী আসন যেখানে, সেই উত্তরপ্রদেশ-সহ গোটা উত্তর ভারতে কংগ্রেস সভাপতিকে প্রধানমন্ত্রী মোদীর বিকল্প হিসেবে বেছে নিয়েছেন মাত্র ৩৬ শতাংশ ভোটার।

মমতার যেটুকু ভোট, পূর্ব ভারতেই

রাহুলের জনপ্রিয়তা বরং তার চেয়ে বেশি পূর্ব ভারতে। যেখান থেকে কংগ্রেস সভাপতির বাক্সে পড়েছে ৪২ শতাংশ ভোট। জাতীয় স্তরের চেয়ে পূর্ব ভারতে অনেক বেশি ভোট পেলেও রাহুলের চেয়ে তাঁর ‘নিজের ভূমি’তে ২৩ শতাংশ ভোটে পিছিয়ে থাকলেন তৃণমূল সুপ্রিমো।

তবে মমতার পক্ষে আশার কথা এইটুকুই, তাঁর ঝুলিতে পড়া ভোটের বেশির ভাগটাই এসেছে পূর্ব ভারত থেকে।

 

কী বললেন প্রধানমন্ত্রী, কী বলছে সংসদ- দেশের রাজধানীর খবর, রাজনীতির খবর জানতে আমাদের দেশ বিভাগে ক্লিক করুন।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন