‘বিতর্কিত’ রাফালের সিটে প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংহ।  ফরাসি সংস্থা দাসো অ্যাভিয়েশনের তৈরি এই যুদ্ধবিমান এই প্রথম হাতে পেল ভারত। ২০১৬ সালে হওয়া ৫৯ হাজার কোটি টাকার চুক্তি অনুযায়ী প্রথম লপ্তে যে ৩৬টি রাফাল বিমান ভারতের পাওয়ার কথা, তার সব ক’টি এ দেশে পৌঁছবে ২০২২ সালের সেপ্টেম্বরের মধ্যে। কিন্তু তার আগে আজ ফ্রান্সের বোর্দোয় আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রথম রাফাল বিমানের চাবি পেলেন রাজনাথ। বিজয়াদশমী বা দশেরায় ‘রীতি মেনে’ করলেন অস্ত্র পুজো। তার পরে সওয়ার হলেন এই যুদ্ধবিমানে।

এমনিতে রাফালের পরিচিতি বিশ্বের প্রথম সারির যুদ্ধবিমান হিসেবে। যা বিমানঘাঁটি কিংবা সমুদ্রের বুকে ভাসতে থাকা বিমানবাহী জাহাজের রানওয়ে থেকে উড়ে গিয়ে শত্রুঘাঁটিতে হামলা চালাতে সক্ষম। কিন্তু মোদী সরকারের প্রথম দফায় রাফাল কেনা ঘিরে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় জলঘোলা হয়েছে বিস্তর।

বিরোধীদের অভিযোগ ছিল, মনমোহন সরকারের আমলে দাসোর সঙ্গে যে চুক্তি হয়েছিল, অনিল অম্বানীর বিমান যন্ত্রাংশ সংস্থাকে সুবিধা পাইয়ে দিতে তাতে বদল করেছে মোদী সরকার। আগের চুক্তিতে ঠিক হওয়া দরের তুলনায় অনেক বেশি দামে রাফাল বিমান কিনছে তারা। উল্টো দিকে কেন্দ্রের দাবি ছিল, এই অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। কারণ, উন্নততর যন্ত্রাংশ, অস্ত্র-সরঞ্জাম ইত্যাদি কেনার বিষয় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে নতুন চুক্তিতে। দেশের নিরাপত্তার স্বার্থেই যার বিশদ বিবরণ দেওয়া সরকারের পক্ষে অসম্ভব। কিন্তু তার পরেও ভোটের আগে এ নিয়ে বিতর্ক থামেনি। এই দুর্নীতির অভিযোগকে ভোট-প্রচারে অন্যতম অস্ত্র করেছিল কংগ্রেস-সহ বিরোধীরা। কিন্তু লোকসভা ভোটে বিপুল জয়ের পরে সেই রাফালকে আবারও নিজেদের অন্যতম সঠিক সিদ্ধান্ত হিসেবে তুলে ধরতেই চেষ্টা করেছে মোদী সরকার। এই বিমানের ছোট মডেল বসেছে কংগ্রেস সদর দফতরের ঠিক উল্টো দিকে। বায়ুসেনা প্রধানের সরকারি বাংলোর দরজার পাশেই।

এ দিন প্যারিসে পৌঁছেই রাজনাথ টুইট করেন, “ফ্রান্সে এসে খুশি।...দু’দেশের কৌশলগত বোঝাপড়াকে এগিয়ে নিয়ে যেতেই এখানে আসা।” বিজয়াদশমীর দিনেই রাফালে প্রথম বার চড়লেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী। দশেরার রীতি মেনে করলেন অস্ত্র পূজা। ফুল আর নারকেল উৎসর্গ করে রাফালের গায়ে এঁকে দিলেন ‘ওম’। ঘটনাচক্রে এ দিনই ছিল বায়ুসেনার প্রতিষ্ঠা দিবস। রাজনাথ বলেন, ‘‘শুনেছি ফরাসি ভাষায় রাফাল মানে ঝড়। আমি নিশ্চিত এই নামকরণ সার্থক হবে।’’

বিজয়াদশমী বা দশেরায় ‘রীতি মেনে’ অস্ত্র পুজো রাজনাথের। ছবি: এপি।

এই ফ্রান্স সফরে বোর্দোয় রাফাল-অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়া ছাড়াও আজ প্যারিসে ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল মাকরঁ-র সঙ্গে দেখা করেছেন রাজনাথ। বুধবার তিনি বক্তৃতা করবেন ফরাসি প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম নির্মাতাদের সামনে। আহ্বান জানাবেন ভারতে লগ্নি করার। আমন্ত্রণ জানাবেন আগামী বছর ৫ থেকে ৮ ফেব্রুয়ারি লখনউয়ে প্রতিরক্ষা প্রদর্শনীতে অংশ নেওয়ার জন্য। দু’দেশের বার্ষিক প্রতিরক্ষা বৈঠকে ফরাসি প্রতিরক্ষামন্ত্রীর সঙ্গেও আলোচনার টেবিলে বসার কথা রাজনাথের।