কী হতে চলেছে কাশ্মীরে, গোটা দেশ জুড়ে এখন এই প্রশ্নটাই ঘুরপাক খাচ্ছে। নজিরবিহীন পদক্ষেপ নিয়ে কেন্দ্র যখন টুঁ শব্দটিও করছে না, ঠিক তখনই বোমা ফাটালেন অভিনেতা অনুপম খের। সোমবার টুইট করে বললেন, ‘কাশ্মীর নিয়ে সমাধানের কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে।’ এই কথার মাধ্যমে কী ইঙ্গিত দিতে চাইলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর একনিষ্ঠ সমর্থক হিসেবে পরিচিত অনুপম, জল্পনা শুরু হয়েছে তা নিয়ে।

কেন্দ্রের বিজেপি সরকার এবং সরকারের বিভিন্ন নীতির সমর্থনে আগেও বার বার সরব হয়েছেন অনুপম। কাশ্মীর নিয়ে যখন একটা চাপা আবহ তৈরি হচ্ছে, সেই সময়ও চুপ থাকলেন না তিনি। এর আগে অনুপম বলেছিলেন, সারা দেশের সমর্থন রয়েছে মোদীর সরকারের সঙ্গে। অল্প সংখ্যক নয়, বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে বিজেপি এসেছে এ বার। বিরোধীদের উচিত চুপ থেকে সরকারকে কাজ করতে দেওয়া। শুধু তাই নয়, তিনি এটাও বলেছিলেন, কাশ্মীর সমস্যার সমাধান মিলবে তখনই, যখন ৩৭০ ধারাকে সে রাজ্য থেকে তুলে নেওয়া হবে।

প্রথমে ৩৫ হাজার আধাসেনা মোতায়েন, তার পর অ্যাডভাইজরি জারি করে পর্যটকদের কাশ্মীর ছাড়ার কথা বলা, স্কুল-কলেজ বন্ধ করে দেওয়া— পর পর ঘটনায় কাশ্মীরিদের মধ্যে এই আশঙ্কাটাই ক্রমশ চেপে বসেছে, তা হলে কি সত্যিই ৩৭০ এবং ৩৫এ ধারা নিয়ে কেন্দ্র বড়সড় কোনও পদক্ষেপ করতে চলেছে কেন্দ্র। যদিও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক সূত্রে তেমন সম্ভাবনার কথা উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। জম্মু-কাশ্মীরের রাজ্যপাল সত্যপাল মালিক রাজ্যবাসীর উদ্দেশে বলেন, “অহেতুক গুজবে কান না দিয়ে শান্তি বজায় রাখুন।”

আরও পড়ুন: কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষ, কী হতে যাচ্ছে কাশ্মীরে? ১১টায় অমিতের বিবৃতি সংসদে

আরও পড়ুন: মধ্যরাতে গৃহবন্দি মেহবুবা-ওমরেরা, কাশ্মীর জুড়ে অনির্দিষ্ট কালের কার্ফু, উদ্বেগে থমথমে 

কেন্দ্র ও রাজ্য প্রশাসনের আশ্বাস সত্ত্বেও যেন আশঙ্কাটা কমছে না কাশ্মীরিদের। বরং উদ্বেগ আরও বাড়িয়েছে রবিবার ওমর আবদুল্লা, মেহবুবা মুফতিদের গৃহবন্দি করে রাখা, ১৪৪ ধারা জারি করার মতো ঘটনা। ওই দিনই জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল, দুই গোয়েন্দা প্রধান, স্বরাষ্ট্রসচিবকে নিয়ে বৈঠকে বসেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। বৈঠকে কী আলোচনা হয়েছে সে বিষয়ে কেউ একটা কথাও বলেননি। সোমবার সকালে প্রধামন্ত্রীর বাসভবনে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার বৈঠক হয়। সেই বৈঠকে কী আলোচনা হয়েছে, সে বিষয়েই এ দিন সংসদে জানাবেন অমিত শাহ।