উত্তরপ্রদেশেউন্নাওয়ে ফের ধর্ষণের পর খুন করার অভিযোগ উঠল। এ বার সেখানে লালসার শিকার হল ১১ বছরের একটি মেয়ে। ধর্ষণের পর পাথর দিয়ে মাথা থেঁতলে তাকে খুন করা হয়েছে বলে অভিযোগ। তবে এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কেউ গ্রেফতার হয়নি।

উত্তরপ্রদেশের উন্নাও জেলার সফিপুর থানা এলাকায় এই নৃশংস ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, শুক্রবার রাতে বাবার সঙ্গে বাড়ির বাইরের খোলা অংশে ঘুমিয়েছিল মেয়েটি। মাঝরাতে ঘুম ভাঙলে মেয়েকে পাশে দেখতে পাননি তিনি। খোঁজাখুঁজি শুরু হলে বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে একটি বাগানে নগ্ন অবস্থায় মেয়েটির রক্তাক্ত দেহ খুঁজে পান।

পাথর দিয়ে মাথা থেঁতলে মেয়েটিকে খুন করা হয় বলে অভিযোগ। এ ছাড়াও তার ঘাড়ে এবং গোপনাঙ্গে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গিয়েছে। সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে মেয়েটির বাবা জানান, ‘‘ঘুম ভেঙে মেয়েকে পাশে দেখতে না পেয়ে ভেবেছিলাম, শৌচকর্ম সারতে সামনের মাঠে গিয়েছে হয়তো। কিন্তু অনেক ক্ষণ অপেক্ষার পরেও ফিরে না আসায়, পরিবার এবং আশেপাশের লোকজনদের নিয়ে ওকে খুঁজতে বেরোই। বাড়ির কাছে একটি বাগানে ওর রক্তাক্ত দেহ পড়ে থাকতে দেখি। পাথর দিয়ে ওর মাথা থেঁতলে দেওয়া হয়েছিল।’’

আরও পড়ুন: নিখোঁজ লালুপুত্রকে খুঁজে দিলে ৫১০০ টাকা পুরস্কার!​

কে বা কারা এই নৃশংস ঘটনা ঘটিয়েছে এখনও পর্যন্ত তা জানা যায়নি। তবে প্রোটেকশন অব চিলড্রেন ফ্রম সেক্সুয়াল অফেসেন্স (পকসো) আইনে ধর্ষণ এবং খুনের মামলা দায়ের হয়েছে বলে জানিয়েছেন উন্নাওয়ের পুলিশ সুপার এমপি বর্মা। ইতিমধ্যেই মেয়েটির দেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে বলে জানান তিনি। অপরাধীকে খুঁজে বার করতে বিশেষ বাহিনীও গঠন করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: সারা রাত মর্গে কাটিয়ে সকালে বেঁচে ফিরলেন ‘মৃত’ কাশীরাম!​

এর আগে, ২০১৭-য় এই উন্নাওতেই এক কিশোরীর ধর্ষণের অভিযোগ ঘিরে উত্তাল হয়ে উঠেছিল গোটা দেশ। বিজেপি বিধায়ক কুলদীপ সিংহ সেঙ্গার তাকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ করে ওই কিশোরী। কিন্তু সম্প্রতি সেই ঘটনা অন্য দিকে মোড় নিয়েছে।  ভুয়ো নথিপত্র জমা দিয়ে মেয়েটিকে নাবালিকা বলে চালানোর অভিযোগে, ওই কিশোরী এবং তাঁর পরিবারের বিরুদ্ধেই প্রতারণার মামলা দায়ের হয়েছে।

এবার শুধু খবর পড়া নয়, খবর দেখাও। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের YouTube Channel - এ।