রাজস্থানে তাঁর বাড়ি। সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশের শাজাহানপুরের এক ছেলের সঙ্গে বিয়ে দিয়েছিলেন তাঁর বাবা-মা। সেই বিয়ের কিছুদিন পরই, গত ১লা জুন শ্বশুরবাড়ি থেকে পালিয়ে গিয়েছিল সে। নতুন বিয়ে হওয়া কনে পালিয়ে যাওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই খোঁজাখুঁজি চলছিল জোরকদমে। পালিয়ে যাওয়ার ২৩ দিন পর খোঁজ মিলল রাজস্থানের ওই মহিলার। তবে তাঁকে খুঁজে পাওয়া গেল হরিয়ানায়। জানা গেল, বাড়ির চাপে বিয়ে করার পর সে পালিয়ে গিয়ে থাকছিল তাঁর লেসবিয়ান পার্টনারের সঙ্গে।

বিয়ের পর ওই মহিলার স্বামীর অভিযোগের ভিত্তিতে মহিলার খোঁজ শুরু করে পুলিশ। শেষমেশ তাঁর দেখা মেলে হরিয়ানার মানেসরে। বাড়ি থেকে পালিয়ে নিজের সমকামী সঙ্গিনীর সঙ্গে থাকতে শুরু করেছিল সে। সেই সমকামী সঙ্গিনীর সঙ্গে তাঁর গত চার বছর ধরে সম্পর্ক ছিল বলে পুলিশকে জানিয়েছে সে। অমত থাকা সত্ত্বেও বাড়ির লোক জোর করে তাঁর বিয়ে দিয়েছিল বলে পুলিশকে জানিয়েছে ওই মহিলা।

বর্তমানে ওই মহিলা ও তাঁর সঙ্গিনীকে আটক করে আদালতে পেশ করে পুলিশ। আদালতে তাঁদের দাবি, তাঁরা পরিণত। তাই নিজের ইচ্ছায় সঙ্গী নির্বাচনের করার অধিকার রয়েছে তাঁদের। এর পরই তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়। তাঁরা যেখানে খুশি থাকতে পারেন বলে এক সংবাদ সংস্থাকে জানিয়েছে পুলিশ। 

আরও পড়ুন: বন্ধুর বউকে বিয়ে করতে বন্ধুকেই খুন, গ্রেফতার এক

আরও পড়ুন: প্রথম বক্তৃতাতেই বাজিমাত মহুয়ার