প্রায় ১০ লক্ষ টাকা হাতে এসে গিয়েছিল। কিন্তু তাও লোভের ফাঁদে পা দিলেন না কাশ্মীরি গাড়িচালক। ফিরিয়ে দিলেন ব্যাগ ভর্তি টাকা, গয়না।

দশ টাকার জন্য যখন বন্ধুকে খুন করছে, সামান্য টাকার জন্য যখন সবজিওয়ালা খরিদ্দারকে ছুরি মারছে সেই সময়ে দাঁড়িয়ে হাতে পেয়েও দশ লক্ষ টাকার সামগ্রী ফিরিয়ে দিলনে এক কাশ্মীরি যুবক।

কাশ্মীরের সোপিয়ানে বাড়ি তারিক আহমেদের। পেশায় গাড়িচালক। দিন চারেক আগে মধ্যপ্রদেশের ভোপাল থেকে একটি পরিবারের কয়েকজনকে  কাশ্মীরের বিখ্যাত আহারবল ঝর্ণা দেখাতে নিয়ে যান। এই ঝর্ণাকে ‘কাশ্মীরের নায়াগ্রা’ বলা হয়। এই ঝর্ণা দেখিয়ে ফিরে যাওয়ার সময় পর্যটকদের কেউ গাড়িতেই ফেলে যান একটি ব্যাগ।

তারিক বাড়ি ফিরে দেখেন, গাড়িতে একটি ব্যাগ রয়েছে। বুঝতে পারেন ব্যাগের মালিক কারা। কিন্তু তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করার কোনও পথ তাঁর কাছে ছিল না। ব্যাগ খুলে তিনি দেখেন, রয়েছে টাকা ও গয়না। সেই সঙ্গে একাধিক স্মার্টফোন। সব মিলিয়ে যেগুলির মোট মূল্য হবে প্রায় ১০ লক্ষ টাকা।

আরও পড়ুন : মন্দিরে এল কুমির, উদ্ধারে বাধা ভক্তদের

আরও পড়ুন : মন্দিরে হাতির নীচে আটকে গেলেন মহিলা

কাশ্মীরের পর্যটন বিভাগ মঙ্গলবার জানিয়েছে, তারিক অনেক চেষ্টা করে ওই পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। টাকা, গয়না, স্মার্ট ফোন-সহ ব্যাগ ফিরিয়ে দেন।

ব্যাগ ফিরে পেয়ে কী ভাবে তারিককে ধন্যবাদ জানাবেন ভাষা খুঁজে পাচ্ছিল না ওই পরিবার। তাই চাইছিলেন, এই উপকারের পরিবর্তে তারিককে কিছু দিতে। কিন্তু কোনও কিছুই নিতে রাজি হননি তারিক। সোশ্যাল মিডিয়ায় তারিকের সততার কাহিনী এখন দেওয়াল থেকে দেওয়ালে ঘুরছে।