বিমানবন্দর থেকে সমুদ্র, মন্দির থেকে রাস্তা— মমল্লপুরমের সর্বত্র এখন সৌন্দর্যায়ন আর সবুজের ছোঁয়া। সঙ্গে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা। এমন আবহের মধ্যেই চেন্নাই পৌছলেন চিনের প্রেসিডেন্ট। শি চিনফিং। বিমানবন্দরেই তাঁকে স্বাগত জানান তামিলনাড়ুর রাজ্যপাল ও মুখ্যমন্ত্রী। 

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আগেই পৌঁছে গিয়েছিলেন। কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই বিশেষ বিমানে চেন্নাইয়ে নামলেন চিনের প্রেসিডেন্ট শি চিনফিং। চিনফিংয়ের সম্মানে আজ নৈশভোজের আয়োজন করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। 

মমল্লপুরম যেন দুর্গ। সমস্ত এনট্রি-এগজিট পয়েন্টে দু’দিন আগে থেকেই শুরু হয়েছিল তল্লাশি, নজরদারি। শুক্রবার সকাল থেকে তা তুঙ্গে উঠেছে। মোড়ে মোড়ে পুলিশ পিকেট। গাড়ি থেকে আম জনতা— সব কিছুর উপর বাজ পাখির মতো নজর রেখেছেন সাদা পোশাকের গোয়েন্দা থেকে ইউনিফর্ম পরা পুলিশকর্মীরা। শুধু তাই নয়, উপকূল শহরে জলপথের বিপদ থেকেও চিনা প্রধানমন্ত্রীর সফরকে মসৃণ করতেও সমুদ্রে আলাদা বন্দোবস্ত হয়েছে। সেখানে নৌবাহিনী এবং উপকূলরক্ষী বাহিনীর অতিরিক্ত নজরদারি ও যুদ্ধজাহাজ মোতায়েন করা হয়েছে। কড়া নজর রেখেছে উপকূলরক্ষী বাহিনীও।

আরও পডু়ন: আজ আসছেন চিনফিং, ঘরোয়া আলোচনায় কাশ্মীর-অস্বস্তি কাটানোই লক্ষ্য নয়াদিল্লির

আরও পডু়ন: মার্কিন প্রেসিডেন্টের বিমানের ধাঁচেই তৈরি হচ্ছে নরেন্দ্র মোদীর বিমান, বিপুল খরচে উঠছে প্রশ্ন

কিন্তু নিরাপত্তার পাশাপাশি পড়ছে মমল্লপুরমের সাজসজ্জা। নজর কেড়েছে ‘পাঁচ রথ’ এলাকায় একটি গেট। এটি তৈরি হয়েছে শুধুমাত্র ফুল ও ফল দিয়ে। তামিলনাড়ু হর্টিকালচার বিভাগ এই গেটটি তৈরি করতে ব্যবহার করেছে ১৮ রকমের ফুল ও ফল। সেগুলি আবার এসেছে রাজ্যের প্রায় সব জেলা থেকে সেরাগুলি বাছাই করে। এ ছাড়া এখানে ফুল-ফলের গাছ দিয়ে সাজানো হয়েছে রাস্তার দু’পাশের বেশ কিছুটা এলাকা। মোদী-চিনফিং-এর যেখানে যেখানে যাওয়ার কথা, সব জায়গাই সেজে উঠে অভিনব সাজে।

মমল্লপুরম এমনিতেই পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন শহর। চিনফিংয়ের সফরের জন্য তা আরও সুন্দর করে তুলতে প্রায় সব মূল রাস্তা পরিষ্কার দেওয়া হয়েছে। তার পর পুরসভার তরফে জল ছেটানো হয়েছে।