• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

ঘুমন্ত দম্পতি ও শিশুপুত্রকে থেঁতলে খুন, মৃতদেহের সঙ্গে যৌনসঙ্গম, ধৃত বিকৃতমনস্ক

Arrest
গ্রাফিক: তিয়াসা দাস

Advertisement

হায়দরাবাদের গণধর্ষণ এবং খুনের ঘটনা সামনে আসার পর থেকেই ক্ষোভে ফুঁসছে গোটা দেশ। এর মাঝেই প্রকাশ্যে এল আরও একটি নৃশংস ঘটনা। শুধু তিন-তিনটি খুন নয়,  এর পর মৃতদেহের সঙ্গে যৌনসঙ্গমের অভিযোগে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ওই ব্যক্তি বিকৃতমনস্ক বলে দাবি পুলিশের। উত্তরপ্রদেশের আজমগড়ের এই ঘটনায় শিউরে উঠছে পুলিশমহলও।

চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে সপ্তাহখানেক আগে। আজমগড়ের মোবারকপুর এলাকার ওই বাড়ি থেকে বাবা, মা এবং তাঁদের শিশুপুত্র-সহ মোট তিন জনের ক্ষতবিক্ষত ও থেঁতলানো দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। সেই সঙ্গে, ওই একই পরিবারের অন্য দুই শিশুকেও গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। এর পরই তাদের দেওয়া বয়ানেই সামনে আসে হাড় হিম করা ঘটনা।

অভিযোগ, বাড়িতে ঢুকে ঘুমন্ত দম্পতি এবং তাঁদের শিশুপুত্রকে ধারাল অস্ত্র ও পাথরের আঘাতে খুন করেন ওই ব্যক্তি। এর পর মহিলার মৃতদেহের সঙ্গে যৌনসঙ্গমও করেন তিনি। চলে যাওয়ার আগে ওই পরিবারের ১০ বছরের এক নাবালিকাকেও ধর্ষণ করেন ওই ব্যক্তি। এমনকি তার চার বছরের ভাইকেও গুরুতর ভাবে আঘাতও করা হয়। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বাড়ি থেকে তিনটি দেহ নগ্ন অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। এর পর ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হওয়া তথ্যপ্রমাণের ভিত্তিতে, গত সোমবার নাসিরুদ্দিন নামে ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়। নাসিরুদ্দিন জেরায় অপরাধ স্বীকার করে নিয়েছেন বলে দাবি পুলিশের।

আরও পড়ুন: মাওবাদী নয়, বিজাপুরে ১৭ জন নিরীহ গ্রামবাসীকে খুন করেছিল পুলিশ, জানাল তদন্ত রিপোর্ট​

আজমগড়ের পুলিশ সুপার ত্রিবেণী সিংহ জানিয়েছেন, ‘‘অভিযুক্ত মহিলার মৃতদেহের সঙ্গে প্রায় তিন ঘণ্টা ধরে যৌনসঙ্গম চালিয়েছিলেন এবং সেই ঘটনা ক্যামেরাবন্দিও করেন তিনি। পরে ওই ভিডিয়ো তাঁর এক আত্মীয়কেও দেখান। জেরায় অভিযুক্ত স্বীকার করে নিয়েছেন যে তিনি যৌন উত্তেজক ওষুধ এবং কন্ডোমও সংগ্রহ করে রেখেছিলেন। এতে প্রমাণিত হয় অনেক আগে থেকেই তিনি ওই অপরাধ ঘটানোর প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। ছুরি এবং ভারী পাথর ব্যবহার করেই খুন করা হয়েছিল।’’

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, নাসিরুদ্দিন এক জন বিকৃতমনস্ক ব্যক্তি। তদন্তকারীদের দাবি, এই প্রথম নয়, এর আগেও একাধিক বার এমন অপরাধ ঘটিয়েছেন নাসিরুদ্দিন। জেরায় সেই সব ঘটনার ভয়াবহ বর্ণনাও তিনি তুলে ধরেছেন বলে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে। তবে, এত দিন তাঁর সম্পর্কে পুলিশের কাছে উপযুক্ত তথ্য ছিল না। আর তার সুযোগ নিয়েই বার বার পুলিশের চোখে ধুলো দিচ্ছিলেন  নাসিরুদ্দিন। কিন্তু, এ বার তাঁকে ধরা পড়ে যেতে হল।

আরও পড়ুন: ভারত মহাসাগরে সন্দেহজনক চিনা জাহাজকে এলাকাছাড়া করল নৌসেনা​

খুন করে মৃতদেহের সঙ্গে যৌনতা! এমন অপরাধের কথা উঠে এসেছে আগেও। সম্প্রতি পূর্ব বর্ধমান জেলার কালনায় গ্রেফতার করা হয় এক সিরিয়াল কিলারকে। কামরুজ্জামান সরকার নামে ওই ব্যক্তি সফট টার্গেট হিসাবে বেছে নিয়েছিলেন মহিলাদেরই। এ ক্ষেত্রেও পুলিশ দাবি করে, খুনের আগে যৌন নির্যাতন এবং খুনের পর মৃতার সঙ্গে সহবাস করা কামরুজ্জামানের অভ্যাসে পরিণত হয়েছিল।

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন
বাছাই খবর

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন