চিংড়ির দক্ষিণী ফ্রাইয়ে মন মজবে ইস্ট-মোহন দুই সমর্থকদেরই

নিজস্ব প্রতিবেদন
চিংড়ির দক্ষিণী ফ্রাইয়ে মন মজবে ইস্ট-মোহন দুই সমর্থকদেরই

ভাতের পাতে হোক বা সন্ধেবেলায় চায়ের সঙ্গে, কুড়মুড়ে মুচমুচে ভাজাভুজি থাকলে আর কিছু লাগে না। ভাজা বলতে প্রথমেই মনে হয় আলুর চপ বা বেগুনি। কিন্তু এ বার দক্ষিণী ফ্রাই হবে তবে চিংড়ি দিয়ে। বাড়িতে ঠিক রেস্তরাঁর মতো কুড়মুড়ে দক্ষিণী প্রন ফ্রাই বানাবেন কী করে, সেটাই এ বার জানার পালা। চিংড়ি মানেই মোহনবাগান সমর্থকদের প্রিয় আর ইলিশ মানেই ইস্টবেঙ্গলের প্রিয় মাছ, এ নিয়ে দুই দলের সমর্থকদের মজার ঝগড়া চলতে থাকুক। কিন্তু এই স্ন্যাক্স কিন্তু মন জয় করবে প্রত্যেকেরই।

উপকরণ

খোসা ও মাথা ছাড়িয়ে নেওয়া চিংড়ি ইচ্ছে মতো

কর্নফ্লাওয়ার এক থেকে দেড় কাপ

পাতিলেবু

নুন

কারিপাতা ও হাফ চা চামচ গোটা সর্ষে 

 প্রণালী: চিংড়ি পরিষ্কার করে নিতে হবে। খোসা ভাল করে ছাড়িয়ে নিন। চিংড়ির মাথাটিও ছাড়িয়ে রেখে দিন আলাদা করে। সেটি দিয়ে না হয়, অন্য রান্না করা যাবে।

  • এ বার গুটিয়ে আসা চিংড়িগুলো কলের তলায় ধরে ভাল করে ধুয়ে নিন। যাতে শিরাটি না থাকে সেদিকে খেয়াল রাখবেন। পাত্রের গায়ে বা চিংড়ির মধ্যে কোনও ময়লা ভাব না থাকে। 
  • একটি পাত্রে জলের মধ্যে কিছু বরফ দিন। এক টেবিল চামচ পাতিলেবুর রস দিন তার মধ্যে। এ বার চিংড়িগুলো সেই পাত্রের জলে ডুবিয়ে ফ্রিজে রাখুন।
  • আধ ঘণ্টা পরে তা বার করে জল থেকে ছেঁকে তুলে নিতে হবে। অন্য একটি পাত্রে জল ঝরিয়ে নিন ভাল করে।
  • চিংড়ির টুকরোগুলো ভাজার আগে একটি পাত্রে অল্প কর্নফ্লাওয়ার ও স্বাদ মতো নুন মিশিয়ে রাখুন। ভাজার আগে চিংড়িগুলো এই মিশ্রণে দিয়ে ভাল করে মিশিয়ে নিন। 
  •  এ বার কড়াইয়ে তেল দিয়ে তা ফুটন্ত তাপমাত্রায় পৌঁছনো পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। চিংড়ি ছেড়ে আঁচ মাঝারি করে নিন।
  • একে একে চিংড়ির টুকরোগুলো দিয়ে নাড়তে থাকুন। মনে রাখবেন, একটু ডুবো তেলে ভাজতে হবে। 
  • খেয়াল রাখবেন, চিংড়িগুলো কড়াইয়ের নীচে যেন আটকে না যায়। যাতে ভেঙে না যায় খেয়াল রাখতে হবে সে দিকেও।
  • ভাজা চিংড়ি তুলে টিসু পেপারে রেখে বেশ কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন। অতিরিক্ত তেল শুষে নেবে পেপার। তার পরে আবার আঁচ বাড়িয়ে তেলে সামান্য কারিপাতা ও সর্ষে ফোড়ন দিন। 
  • সার্ভিং প্লেটে ভাজা চিংড়ির উপরে কারিপাতা ও সর্ষে ছড়িয়ে দইয়ের রায়তার সঙ্গে পরিবেশন করুন।