• নিজস্ব প্রতিবেদন 
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

দলের স্বার্থেই বাদ মিতালি, আফসোস নেই অধিনায়কের

Kaur
বিতর্ক: ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রথম একাদশে পরিবর্তন চাননি হরমনপ্রীত।—ছবি এএফপি।

Advertisement

মিতালি রাজকে বাদ দিয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ সেমিফাইনাল খেলতে নামায় এতটুকু অনুতপ্ত নন ভারতের মহিলা দলের অধিনায়ক হরমনপ্রীত কৌর। বরং বলছেন, ‘‘এই সিদ্ধান্তের জন্য কোনও আফসোস নেই আমাদের।’’ 

শুক্রবার টস জেতার পরে যখন হরমনপ্রীত জানান, মিতালি খেলছেন না, তখন টিভি ধারাভাষ্য বক্সে থাকা দুই প্রাক্তন ক্রিকেটার নাসের হুসেন ও সঞ্জয় মঞ্জরেকর বিস্ময় প্রকাশ করেন। ভারত শুক্রবার ৮৯-২ থেকে ১১২ রানে অল আউট হয়ে যায়। ইংল্যান্ডের কাছে আট উইকেটে হেরে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে যায়। এর পরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় মিতালিকে বাদ দেওয়া নিয়ে ঝড় ওঠে। বিরাট কোহালিরা বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে মহেন্দ্র সিংহ ধোনিকে বাদ দিয়ে নামলে যা হতে পারে, তার সঙ্গে মিতালির বাদ পড়ার তুলনাও শুরু হয়ে যায় টুইটার, ফেসবুকে।

কিন্তু ভারত অধিনায়ক হরমনপ্রীত ম্যাচের পরে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বলেন, ‘‘যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, দলের কথা ভেবেই নেওয়া হয়েছে। কখনও এ রকম সিদ্ধান্ত কাজে লাগে, কখনও কাজে লাগে না। এ জন্য কোনও আফসোস নেই আমাদের। বিশ্বকাপে দল যা খেলেছে, সে জন্য আমি গর্বিত।’’ 

অস্ট্রেলিয়াকে যে দল নিয়ে হারিয়েছিলেন, সেই দলে কোনও পরিবর্তন চাননি বলেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে ব্যাখ্যা দেন হরমন। বলেন, ‘‘অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে আমরা সত্যিই ভাল খেলেছিলাম। সেমিফাইনালে সেই দলটাকেই ধরে রাখতে চেয়েছিলাম।’’ 

মিতালির স্ট্রাইক রেট তেমন ভাল না থাকলেও (১০৩) এ দিন যাঁদের ওপর ভরসা করেছিলেন হরমনরা, সেই তানিয়া ভাটিয়া ও বেদা কৃষ্ণমূর্তি ভাল খেলতে পারেননি। সেই জন্যই আরও মিতালির অভাব বোঝা যায়। ভারতের ব্যাটিংয়ের বেহাল দশা দেখে হতাশায় ভেঙে পড়েন ডাগ আউটে বসা মিতালি। এই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ যে এ ভাবে শেষ করতে হবে তাঁকে, তা বোধহয় কখনও ভাবতেই পারেননি। 

মিতালিকে প্রথম এগারোয় না রাখার আরও ব্যাখ্যা দিয়ে হরমনপ্রীত বলেন, ‘‘মিতালি ওপেনার। কিন্তু আমার আর স্মৃতির (মন্ধানা) পরে কেউ ভাল ব্যাট করতে পারে, এমন একজন দরকার ছিল। কিন্তু সব সময় তো কৌশল অনুযায়ী কাজ হয় না।’’ ১৪ নম্বর ওভারে জেমাইমা রদ্রিগেজ আউট হওয়ার পরেই তাঁকে অনুসরণ করেন তাঁর সতীর্থ ব্যাটসম্যানেরা। 

হরমনপ্রীত স্বীকার করে নেন এ দিন আরও ৩০-৪০ রান তুলতে পারলে হয়তো লড়াই করা যেত। বলেন, ‘‘১৪০-৫০ তুললে নিশ্চয়ই ম্যাচটা জিততাম আমরা।’’ তবে তাঁর দলের বোলারদের প্রশংসা করে অধিনায়ক বলেন, ‘‘ওদের রানটা তুলতে ১৮ ওভার লেগে যায়। কারণ, আমাদের মেয়েরা ভাল বল করেছে।’’ এ ছাড়াও তাঁর মতে, ‘‘এই ভুল থেকে শিক্ষা নিতে হবে আমাদের। চাপের মুখে আরও ভাল খেলা শিখতে হবে আমাদের।’’ কিন্তু মিতালিকে আর নাও পেতে পারেন তাঁরা। এই বিশ্বকাপের আগেই যে তিনি বলে দিয়েছিলেন, এটাই সম্ভবত তাঁর শেষ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ।

ভারতকে হারিয়ে ফাইনালে ওঠা ইংল্যান্ড রবিবার মুখোমুখি অস্ট্রেলিয়ার।  

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন