ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে বাংলাদেশের পরের লক্ষ্য অস্ট্রেলিয়া। সেই ম্যাচের আগে বাংলাদেশের অধিনায়ক জানালেন তাঁর দল নিজেদের সেরাটুকু দিয়েই আজ মাঠে নামবে।

এর আগে ২০০৫ সালে ইংল্যান্ডের কার্ডিফে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে ক্রিকেট ইতিহাসে অঘটন ঘটিয়েছিল বাংলাদেশ। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে মোট ২১ বার বাংলাদেশ মুখোমুখি হলেও ওই একবারই জয় পেয়েছিল তারা। নটিংহ্যামে সেই ম্যাচের পুনরাবৃত্তি হতে চলেছে বলে হুঙ্কার ছাড়লেন মোর্তাজা। চলতি বিশ্বকাপে টাইগারদের পারফরম্যান্স ক্রিকেটপ্রেমীদের নজর কেড়েছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে পাহাড় প্রমাণ রান তাড়া করে আট ওভার বাকি থাকতেই জয় ছিনিয়ে নেয় বাংলাদেশ। এই জয় তাঁর দলকে বাড়তি আত্মবিশ্বাস দেবে বলে জানান মাশরাফি।

২০০৫ সালের সেই ম্যাচও হয়েছিল ইংল্যান্ডে। এ বারের ম্যাচে তাই ১৪ বছর আগের জেতার মধুর স্মৃতি নিয়েই মাঠে নামতে চায় বাংলাদেশ। বাংলাদেশের অধিনায়ক জানান, “সেই ম্যাচের দিন থেকে রাত পর্যন্ত প্রতিটা মুহূর্ত আমার স্পষ্ট মনে আছে। ২০০৫ সালের অস্ট্রেলিয়া অপ্রতিদ্বন্দ্বী ছিল। তবুও আমরা তাদের হারিয়েছিলাম।”

মাশরাফি আরও জানান, “আগে যা ঘটেছে তা ভেবে এখন কোনও লাভ হবে না। তবে যদি আমরা অস্ট্রেলিয়াকে হারাতে চাই, তা হলে আমাদের নিজেদের সেরাটা আজ নিংড়ে দিতে হবে।”

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে শাকিবের অনবদ্য ইনিংস ক্রিকেট বিশ্বের নজর কেড়েছে। অস্ট্রেলিয়া ম্যাচেও টাইগার শিবির তাকিয়ে থাকবে এই মুহূর্তে বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডারের দিকেই।

আরও পড়ুন:  রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে সেঞ্চুরি করে জেতালেন ক্যাপ্টেন কেন

আরও পড়ুন:  বিশ্বকাপের জন্য হার্দিকের গলায় হিরের ব্যাট-বল

রাউন্ড রবিন বা গ্রুপ লিগ শেষে প্রথম চারটি দল সেমিফাইনালে যাওয়ার ছাড়পত্র পাবে। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে বাংলাদেশ তাঁদের সেমিফাইনালে যাওয়ার আশা এখনও জিইয়ে রেখেছে। এ বারে অস্ট্রেলিয়াকে হারাতে পারলে সেমিফাইনালে যাওয়ার রাস্তা আরও মসৃণ হবে। তাই অজিদের বিরুদ্ধে মাশরাফিরা এই ম্যাচে নিজেদের সবটুকু দিয়ে জিততে মরিয়া।