Dubai
Dubai
আইপিএলের আগে মায়াবী আলোয় সেজে উঠেছে দুবাই স্পোর্ট সিটির মাঠ। ছবি সৌজন্য টুইটার।
আইপিএলের আগে মায়াবী আলোয় সেজে উঠেছে দুবাই স্পোর্ট সিটির মাঠ। ছবি সৌজন্য টুইটার।
এ বার কি আইপিএলে চার-ছয় কমবে? তেমনই প্রশ্ন উঠছে তিন স্টেডিয়াম দেখে
  • সংবাদ সংস্থা 
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

এ বারের আইপিএল মহাযজ্ঞের বল গড়াচ্ছে আজ, শনিবার থেকে। করোনাভাইরাসের জন্য উদ্ভুত পরিস্থিতিতে এ বারের টুর্নামেন্ট হচ্ছে সংযুক্ত আরব আমিরশাহিতে। আবু ধাবি, দুবাই ও শারজার তিনটি স্টেডিয়ামে হবে ম্যাচগুলো।  আইপিএল মানে চার-ছক্কার বন্যা, বোলারের বিরুদ্ধে দাপট দেখিয়ে বিধ্বংসী ব্যাটিং এবং স্কোর বোর্ডে হৃষ্টপুষ্ট স্কোর। কিন্তু আমিরশাহিতে এ বার সেই ছবি দেখার সম্ভাবনা হয়তো কম। কারণ মাঠগুলোর আয়তন বেশ বড়। তার উপর পিচ ক্রমশ মন্থর হবে বলে মনে করছে ক্রিকেটমহল। সেই কারণে এ বারের আইপিএলে বাউন্ডারি-ওভার বাউন্ডারির সংখ্যা কমতে পারে বলেই মনে করা হচ্ছে। এক নজরে দেখে নেওয়া যাক এই তিনটি স্টেডিয়ামের খুঁটিনাটি। 

শেখ জায়েদ স্টেডিয়াম (আবু ধাবি)

২০ হাজার দর্শকাসন বিশিষ্ট এই স্টেডিয়ামে এ বারের আইপিএলে্র উদ্বোধনী ম্যাচের বল গড়াচ্ছে। প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হচ্ছে মুম্বই ইন্ডিয়ান্স ও চেন্নাই সুপার কিংস। তবে এ বার রুদ্ধদ্বার স্টেডিয়ামেই হবে খেলা। ২০০৪ সালে এই স্টেডিয়ামটি তৈরি হয়।  প্রথম ম্যাচটাই ছিল স্কটল্যান্ড-কিনিয়ার। সেটি ছিল ইন্টার কন্টিনেন্টাল কাপের খেলা। ২০০৯ সালে লাহোরে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলের উপরে সন্ত্রাসবাদী হামলার পরে ঘরের মাঠে হোম ম্যাচ আয়োজন করতে পারত না পাকিস্তান। ফলে অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, নিউজিল্যান্ড ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে সিরিজ এই স্টেডিয়ামে আয়োজন করেছিল পাক জাতীয় দল। 

২০০৬ সালে এই স্টেডিযামে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে ফ্রেন্ডশিপ ওয়ানডে সিরিজ হয়েছিল। সেটাই ছিল এই স্টেডিয়ামের প্রথম সিরিজ।  ভারতে লোকসভা নির্বাচনের জন্য ২০১৪ সালের আইপিএলের প্রথমার্ধ অনুষ্ঠিত হয়েছিল আমিরশাহিতে। এই স্টেডিয়ামেই সে বারের উদ্বোধনী ম্যাচ হয়েছিল কেকেআর ও মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের মধ্যে। আইপিএলের দলগুলোর মধ্যে রাজস্থান রয়্যালস  সব চেয়ে সফল শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে। চেন্নাই সুপার কিংস এখানে দুটো ম্যাচ খেলেছে। তার মধ্যে একটিতে জিতেছে এবং একটিতে হেরেছে। মুম্বই ইন্ডিয়ান্স এই স্টেডিয়ামে মাত্র একবারই খেলেছে। আর সেটিতেই হারতে হয়েছে তাদের। এ বারের আইপিএলের লিগ পর্বের ১৯টি ম্যাচ হবে শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে।

দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম
 দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের আসন সংখ্যা ২৫,০০০ হলেও ৩০ হাজার পর্যন্ত দর্শক বসার ব্যবস্থা রয়েছে। ২০০৯ সালে তৈরি হয় এই স্টেডিয়াম। প্রথম ওয়ানডে ম্যাচটি হয়েছিল অস্ট্রেলিয়া ও পাকিস্তান-এর মধ্যে। দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে প্রথম বোলার হিসেবে শাহিদ আফ্রিদি পাঁচটি উইকেট নিয়েছিলেন।

ম্যাচটি জিতেছিল পাকিস্তান। ২০১৬ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে টেস্টে পাকিস্তানের ব্যাটসম্যান আজহার আলি এই স্টেডিয়ামে অপরাজিত ৩০২ রানের ইনিংস খেলেছিলেন। এটাই এই স্টেডিয়ামে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ স্কোর। এ বারের আইপিএলের ২৪টি ম্যাচ হবে দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে।

২০১৪ সালের আইপিএলে কিংস ইলেভেন পঞ্জাব এই স্টেডিয়ামেই পাঁচ উইকেটে হারিয়েছিল রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরকে। এখানে দুটো ম্যাচের মধ্যে দিল্লি জিতেছিল একটিতে। হার মেনেছিল একটি ম্যাচে। এই স্টেডিয়ামের উইকেট স্পিনার ও ব্যাটসম্যান সহায়ক।
 
শারজা ক্রিকেট স্টেডিয়াম
১৯৮২ সালে এই স্টেডিয়ামটি তৈরি হয়। এর আসন সংখ্যা ১৭ হাজার। ভারত-পাকিস্তানের একাধিক ওয়ানডে ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে এই স্টেডিয়ামে। এখানেই চেতন শর্মার শেষ বলে ছক্কা মেরে পাকিস্তানকে ম্যাচ জিতিয়েছিলেন জাভেদ মিয়াঁদাদ।

এই স্টেডিয়ামে ১৯৯৮ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে মরু ঝড় তুলেছিলেন সচিন তেন্ডুলকর। সে বার ত্রিদেশীয় সিরিজ জিতেছিল ভারত। এ বারের আইপিএলের ১২টি ম্যাচ হবে শারজা স্টেডিয়ামে। ২০১৪ সালের আইপিএলে ছ'টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছিল এখানে। 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন