ধ্বংস করার চক্রান্ত চলছে তাঁর বিরুদ্ধে। আর এই চক্রান্তে জড়িয়ে আছেন ক্ষমতাসীনরাই! বিস্ফোরক অভিযোগ করলেন মিতালি রাজ। ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডকে পাঠানো তাঁর চিঠি বিতর্কের আগুন উসকে দিল আরও।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে মিতালির বাদ পড়া নিয়ে ক্রিকেটমহল এখনও উত্তাল। বিশ্বকাপে যে দুই ম্যাচে তিনি ব্যাট করেছিলেন, তাতে দু’বারই পঞ্চাশের বেশি রান করেছিলেন। চোটের জন্য খেলতে পারেননি গ্রুপের শেষ ম্যাচ। তবে সেমিফাইনালের আগে ফিট হয়ে উঠেছিলেন। কিন্তু ‘উইনিং কম্বিনেশন’ ভাঙতে চায়নি টিম ম্যানেজমেন্ট। ফলে সেমিফাইনালে বাদ পড়েন তিনি। ভারত হেরে যাওয়ায় এই সিদ্ধান্ত নিয়েই তোলপাড় হয় ক্রিকেটমহল। অধিনায়ক হরমনপ্রীত কৌর অবশ্য সাফ জানিয়ে দেন যে বিশ্বকাপ থেকে ভারতীয় মহিলা দল ছিটকে গেলেও মিতালিকে বাদ দেওয়া নিয়ে তাঁর কোনও আফশোস নেই।

এতদিন চুপচাপ ছিলেন মিতালি। কোথাও মন্তব্য করেননি। তবে সোমবার দেখা করেন বোর্ডের সিইও রাহুল জোহরি ও ক্রিকেট অপারেশনস জিএম সাবা করিমের সঙ্গে। তাঁদের উদ্দেশে লেখা চিঠিতে মিতালি বলেছেন, “দুই দশকের কেরিয়ারে প্রথমবার এত হতাশ, অপমানিত হলাম। দেশের হয়ে আমার এতদিন ধরে খেলার কোনও গুরুত্ব ক্ষমতাসীনদের কাছে সত্যিই আছে কিনা, এটাও ভাবতে বাধ্য হলাম। কারণ, ক্ষমতায় থাকা কয়েকজন আমাকে ধ্বংস করার চেষ্টা করছে। চেষ্টা করছে আমার আত্মবিশ্বাস চুরমার করতে।”

আরও পড়ুন: অস্ট্রেলিয়ার নেটে পুল মারতে গিয়ে পড়ে গেলেন স্টিভ স্মিথ, দেখুন ভিডিয়ো​

আরও পড়ুন: সেমিফাইনালে মিতালির বাদ পড়াকে সমর্থন ডায়না এডুলজির 

টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক হরমনপ্রীতের উপর অবশ্য কোনও রাগ নেই বলে তাঁর। মিতালি লিখেছেন, “হরমনপ্রীতের বিরুদ্ধে আমার বলার কিছু নেই। তবে কোচ যখন আমাকে বাদ দেওয়ার কথা বলল, তখন ও সেটা মেনে নিয়েছিল। এটা আমাকে আহত করেছে। হরমনপ্রীত কেন এটা মেনে নিল, এটাও আমার কাছে দুর্বোধ্য ঠেকেছে। দেশের হয়ে বিশ্বকাপ জেতা আমার লক্ষ্য ছিল। এ বার সোনার সুযোগ হারালাম বলেই বেশি কষ্ট পেয়েছি।” 

সোমবারই প্রাক্তন জাতীয় অধিনায়ক এবং সিওএ-র সদস্য ডায়না এডুলজি সেমিফাইনালে মিতালির বাদ যাওয়াকে সমর্থন করে বিবৃতি দিয়েছিলেন। এটা মানতে পারছেন না তিনি। ডায়নার বক্তব্যকে ‘পক্ষপাতদুষ্ট’ হিসেবে চিহ্নিত করে চিঠিতে মিতালি লিখেছেন, “বরাবর সম্মান জানিয়ে এসেছি ডায়না এডুলজিকে। ওর প্রতি আস্থা রেখেছি। সিওএ-তে ওর পদকে সম্মান জানিয়েছি। কিন্তু, কখনই ভাবতে পারিনি যে নিজের ক্ষমতাকে উনি আমার বিরুদ্ধে ব্যবহার করবেন। বিশেষ করে ক্যারিবিয়ানে কী অবস্থার মধ্যে দিয়ে আমাকে যেতে হয়েছে, তার সবকিছু জানিয়েছিলাম ওকে। তার পরও এই মন্তব্য মানতে পারছি না। আমার বাদ পড়াকে যে নির্লজ্জ ভাবে উনি সমর্থন করেছেন, তাতে আমি আহত। কারণ, উনি আমার সঙ্গে কথা বলে সত্যিকার তথ্যগুলো জেনেছিলেন।”

জাতীয় দলের কোচ রমেশ পওয়ার সম্পর্কেও একগুচ্ছ অভিযোগ রয়েছে মিতালির। বেশ কিছু ঘটনার কথা তিনি লিখেছেন। জানিয়েছেন, “আমি যখনই ব্যাট করতে যেতাম, উনি অন্যদিকে চলে যেতেন। কিন্তু, অন্যরা ব্যাট করলে তা দেখতেন। আবার আমি ধারেকাছে বসে থাকলে উনি অন্যদিকে চলে যেতেন। আমি যদি কথা বলার চেষ্টা করতাম এগিয়ে গিয়ে, উনি ফোনের দিকে তাকিয়ে থাকতেন। ওই ভাবেই কথা বলতেন। এটা খুব অস্বস্তিকর। আমাকে যে অপমান করা হচ্ছে, তা সবার কাছেই স্পষ্ট হয়ে উঠত। তা সত্ত্বেও আমি অবশ্য মাথা গরম করিনি।”

(আইসিসি বিশ্বকাপ হোক বা আইপিএল, টেস্ট ক্রিকেট, ওয়ান ডে কিংবা টি-টোয়েন্টি। ক্রিকেট খেলার সব আপডেট আমাদের খেলা বিভাগে।)