টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারতের বিদায়ের ২৪ ঘণ্টা পরেও মিতালি রাজকে নিয়ে বিতর্ক তুঙ্গে। এ বার মিতালি-বিতর্ক নিয়ে মুখ খুললেন ক্রিকেটারের ব্যক্তিগত কোচ আর এস আর মূর্তি। তিনি পরিষ্কার জানিয়ে দিলেন, সেমিফাইনালে খেলতে না পেরে মিতালি রীতিমতো হতাশ হয়ে পড়েছেন।

বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে মিতালিকে বাইরে রেখে নেমে ম্যাচ হেরে যায় ভারত। এর পরে সমালোচনার মুখে পড়ে ভারতীয় দল পরিচালন সমিতি। প্রশ্ন উঠতে থাকে, কী ভাবে মিতালির মতো একজন অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানকে বাইরে রেখে নামল ভারত। দলের অধিনায়ক হরমনপ্রীত কৌরকে ‘মিথ্যাবাদী’ বলে টুইট করেন মিতালির ম্যানেজার। এ বার মিতালির কোচ মূর্তি সংবাদ মাধ্যমকে বললেন, ‘‘মিতালিকে সেমিফাইনালের দিন ওয়ার্ম আপের পরে জানানো হয়, ও প্রথম একাদশে নেই। যার পরে রীতিমতো হতাশ হয়ে পড়েছিল মিতালি।’’ 

ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে মিতালিকে না খেলানো নিয়ে মুখ খুলেছেন প্রাক্তনরাও। সঞ্জয় মঞ্জরেকর যেমন টুইট করেছেন, ‘‘ভারত দুটো ভুলের খেসারত দিল। এক, এই রকম পিচে মিতালিকে না খেলিয়ে। দুই, অত্যন্ত মন্থর পিচে বেশি আগ্রাসী ব্যাটিং করতে গিয়ে।’’ মিতালির কোচ শনিবার বলেছেন, ‘‘ম্যাচের আগের রাতেও আমার সঙ্গে মিতালির কথা হয়েছিল। সেমিফাইনাল খেলার জন্য ও মুখিয়ে ছিল। এমনকি, এমনও ইঙ্গিত দিয়েছিল যে, ওপেন না করে হয়তো মিডল অর্ডারে খেলতে হতে পারে। আমি ওকে বলেছিলাম, ব্যাটিংটা 

উপভোগ করো।’’ 

মূর্তি মনে করেন, ভারতীয় দলের কোচ এবং অধিনায়কই সিদ্ধান্ত নেন মিতালিকে দলের বাইরে রাখার। তিনি পরিষ্কার বলছেন, ‘‘এই বিশ্বকাপে দু’বার ম্যাচের সেরা ক্রিকেটার হয়েছে মিতালি। ওকে কোনও সময়ই সেমিফাইনালে বসানো উচিত হয়নি। আমার আরও একটা ব্যাপার খারাপ লেগেছে। ম্যাচের পরে হরমনপ্রীত সাংবাদিক বৈঠকে বলল, মিতালিকে বসানো নিয়ে ওর কোনও আক্ষেপ নেই। যে মেয়েটা খেলাটাকে সব কিছু দিয়েছে, তার এই ব্যবহার প্রাপ্য নয়।’’