অপ্রত্যাশিত ভাবে পুরুষদের বক্সিং বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ থেকে ভারতের দু’টি পদক নিশ্চিত করলেন অমিত পঙ্ঘাল (৫২ কেজি) ও মণীশ কৌশিক (৬১ কেজি)। বুধবার রাশিয়ার একাতেরিনবার্গে এই দু’জনই জিতলেন যথেষ্ট দাপট দেখিয়ে। এশিয়ান গেমস ও এশীয় চ্যাম্পিয়শিপে সোনাজয়ী অমিত হারালেন ফিলিপিনো কার্লো পালামকে ৪-১ ফলে। কমনওয়েলথ গেমসে রুপো পাওয়া কৌশিক তো তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিলের ওয়ান্ডারসন দে অলিভেইরাকে দাঁড়াতেই দিলেন না। তিনি জিতলেন ৫-০ ফলে।

ভারতের জন্য আরও ভাল খবর আছে। সেটা মেয়েদের কুস্তিতে। যাবতীয় উদ্বেগ কাটিয়ে বিনেশ ফোগত বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে ব্রোঞ্জ জিতলেন এবং টোকিয়ো অলিম্পিক্সে নামার যোগ্যতা অর্জন করলেন। কমনওয়েলথ গেমস ও এশিয়ান গেমসে সোনাজয়ী বিনেশ বুধবার ৫৩ কেজি বিভাগে কাজাখস্তানের মারিয়া প্রেভোলারাকিকে হারিয়ে দিলেন।  এ দিনই প্রথম ম্যাচে তিনি অসাধারণ রক্ষণ দেখিয়ে রুখে দেন বিশ্বের এক নম্বর সারা আন হিল্ডারব্র্যান্ডটকে।  চমকে দিয়ে ব্রোঞ্জ নিশ্চিত করেছেন পূজা ধন্ডও।  তিনি ৫৯ কেজি বিভাগে সেমিফাইনালে উঠেছেন জাপানের ইউজ়ুকা ইনাগাকিকে হারিয়ে। তবে এই ওজন বিভাগটি অলিম্পক্সে নেই।  

বক্সিংয়ে অমিতরা কেউই এর আগে কখনও বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে পদক জেতেননি। এখন যা অবস্থা, তাতে তাঁরা সেমিফাইনালে হেরে গেলেও ব্রোঞ্জ পাচ্ছেনই। তবে ৯১ কেজি বিভাগে সঞ্জিৎ কুমার ১-৪ ফলে হেরে গেলেন ইকুয়েডরের জুলিয়ো আস্টিলো টোরেসের কাছে।

কোনও বক্সিং বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে এর আগে কখনও ভারত একটির বেশি পদক জেতেনি। এখন দেখার অমিত বা মণীশদের কেউ সোনা বা রুপো পান কি না। অমিত ও মণীশ— দু’জনই সেনবাহিনীতে কাজ করেন। অমিত বলেছেন, ‘‘আজ খুব মন্থর ভাবে শুরু করে ফেলি। তবে দ্বিতীয় ও তৃতীয় রাউন্ডে নিজের স্বাভাবিক লড়াই লড়েছি। কোচেরা শুরু থেকে আক্রমণাত্মক হতে বলেছিলেন। চেষ্টাও করেছি।’’ সেমিফাইনালে তাঁকে লড়তে হবে কাজাখস্তানের সাকেন ববোসিনভের বিরুদ্ধে।  অমিত অবশ্য সাকেনকে ভয় পাচ্ছেন না। পাশাপাশি প্রাক্তন জাতীয় চ্যাম্পিয়ন মণীশ কৌশিক এ বারই প্রথম বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে নামলেন।