চার্চিল ব্রাদার্স ৩   চেন্নাই সিটি ২ 
 
(প্লাজা ২, রেমি)  (স্যান্ড্রো, মানজি পেনাল্টি) 
 
 
 

ইস্টবেঙ্গলের স্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখল চার্চিল ব্রাদার্স। শুক্রবার বিকেলে গোয়ার তিলক ময়দানে চার্চিল ব্রাদার্স-চেন্নাই সিটি এফসি ম্যাচের বল গড়ানোর আগে থেকেই সোশ্যাল  মিডিয়া উত্তাল হয়ে উঠেছিল লাল-হলুদ-এর প্রাক্তন স্ট্রাইকার উইলিস প্লাজাকে নিয়ে।

পারলে তিনিই থামাতে পারবেন চেন্নাই এক্সপ্রেস। এই বিশ্বাস ছিল লাল-হলুদ সমর্থকদের।গোয়ায় রেফারির শেষ বাঁশির পরে দেখা গেল, উইলিস প্লাজাকে থামাতে না পেরে চেন্নাই সিটি থমকে গেল। আর তাতেই হাজার ওয়াটের আলো আলেয়ান্দ্রো মেনেনদেজের ছেলেদের মুখে।

আরও পড়ুন— 

ম্যাচ শুরুর আগে ইস্টবেঙ্গল ফুটবলাররাও মনে প্রাণে চেয়েছিলেন চার্চিল ম্যাচ জিতুক। তা হলে আরও একটা সুযোগ পাবে ইস্টবেঙ্গল। লাল-হলুদ-এর স্প্যানিশ ফুটবলার টনি ডোভালে বলছিলেন, ‘‘আমরা তাকিয়ে চার্চিল ব্রাদার্সের দিকে। ম্যাচটা চার্চিলকে জিততেই হবে।’’ সেটাই হল। চলতি মাসের ৩ তারিখ লাল-হলুদ-এর সামনে মিনার্ভা পঞ্জাব। 

এ দিন প্রথমে গোল করে এগিয়ে যায় চেন্নাই সিটি। ২৯ মিনিটে স্যান্ড্রোর ফ্রি কিক চার্চিলের জাল কাঁপায়। তার পরেই শুরু হয় প্লাজার দৌরাত্ম্য। ৩৮ মিনিটে সমতা ফেরান ত্রিনিদাদ-টোব্যাগোর স্ট্রাইকার। বিরতির পরে রেমি ২-১ এগিয়ে দেন চার্চিলকে। ৬৯ মিনিটে পেড্রো মানজি পেনাল্টি থেকে সমতা ফেরান চেন্নাইয়ের হয়ে। তার এক মিনিট বাদেই প্লাজা চেন্নাইয়ের কফিনে শেষ পেরেকটি পুঁতে দেন। সেই গোল আর শোধ করতে পারেনি চেন্নাই সিটি। গোয়ায় চার্চিলের জয় রাজধানীতে ইস্টবেঙ্গলের সাজঘরে স্বস্তির হাওয়া এনে দিল।