বিশ্বকাপে ভারতীয় দলের নির্বাচন নিয়ে বিতর্ক চলছেই। এর মধ্যে দল থেকে বাদ পড়ে বিতর্কিত টুইটে কটাক্ষ করলেন ভারতীয় ক্রিকেটার অম্বাতি রায়ডু। ‘‘বিশ্বকাপ দেখার জন্য থ্রিডি চশমার অর্ডার দিয়েছি,’’ টুইট করেছেন রায়ডু। বিশ্বকাপের দলে বিজয় শঙ্করকে সুযোগ দেওয়ায় জায়গা হয়নি রায়ডুর। কেন বিজয়কে সুযোগ দেওয়া হল তা নিয়ে নির্বাচক প্রধান এম এস কে প্রসাদ বলেছিলেন, ‘‘আমরা রায়ডুকে কিছু সুযোগ দিয়েছিলাম কিন্তু বিজয় শঙ্কর আমাদের কাছে থ্রি ডায়মেনশনাল মনে হয়েছে। বিজয় ব্যাট করতে পারে। প্রয়োজন পড়লে বোলিং করতে পারে এবং ও ফিল্ডারও। আমরা বিজয়কে চার নম্বর জায়গার জন্য ভেবেছি।’’ প্রসাদের এই মন্তব্যকে কটাক্ষ করতেই রায়ডু এই টুইট করেছেন বলে মনে করা হচ্ছে। 

সীমিত ওভারের ক্রিকেটে আরও মনোযোগ দেওয়ার জন্য রায়ডু প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছেন। তবু ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারেননি। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ঘরের মাঠে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে তিন বার সুযোগ পেলেও আহামরি কিছু করে দেখাতে পারেননি তিনি। পাশাপাশি আইপিএলেও যে ভাবে চেয়েছিলেন সে ভাবে জ্বলে উঠতে পারেননি তিনি।  ৫৫টি ওয়ান ডে ম্যাচে রায়ডুর ৪৭.০৫ গড় থাকলেও অস্ট্রেলিয়া সিরিজে ব্যর্থতাই রায়ডুকে বিশ্বকাপের দল থেকে ছিটকে দিয়েছে বলে মনে করছেন অনেকে। 

দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯

গত বছর এশিয়া কাপ থেকে রায়ডু ভারতীয় দলের চার নম্বর জায়গায় খেলে আসছিলেন। তখন থেকে অস্ট্রেলিয়া সিরিজ পর্যন্ত রায়ডু একটি সেঞ্চুরি এবং চারটি হাফসেঞ্চুরি করেছেন। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে সিরিজে অবশ্য রায়ডু মাত্র দুটি ওয়ান ডে-তে সুযোগ পান। যদিও নিউজ়িল্যান্ড সিরিজে ভারতীয় দলের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে রায়ডুর রানই সবচেয়ে বেশি ছিল। পাঁচ ইনিংসে তিনি করেছিলেন ১৯০। গড়  ৬৩.৩৩। স্ট্রাইক রেট ৮২.২৫। 

তবে, এই পারফরম্যান্সও তাঁর ইংল্যান্ডের টিকিট নিশ্চিত হওয়ার জন্য যথেষ্ট ছিল না।

প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার গৌতম গম্ভীরও রায়ডুর বাদ পড়া নিয়ে মুখ খুলেছেন। তিনি বলেন, ‘‘খুবই দুর্ভাগ্যজনক যে ৩৩ বছর বয়সি এক জন ক্রিকেটার যাঁর সাদা বলের ক্রিকেটে ৪৮ গড়, তাঁকে বাদ পড়তে হচ্ছে। এটাই আমার কাছে বেশি ধাক্কা লাগার মতো। আমার রায়ডুর জন্য খারাপ লাগছে। একই রকম পরিস্থিতির মুখোমুখি পড়েছিলাম আমি ২০০৭ সালে। বিশ্বকাপের দল থেকে বাদ পড়ার ধাক্কাটা সামলানো কত কঠিন আমি জানি।’’ 

তবে বিশ্বকাপ দলে ঋষভ পন্থের জায়গা না পাওয়া নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন প্রাক্তন ক্রিকেটার কারসন ঘাউড়িও। তিনি বলেছেন, ‘‘এমনিতে এই ভারতীয় দল যথেষ্ট শক্তিশালী। খুব ভাল ভারসাম্য রয়েছে। তবে আমি মনে করি, দ্বিতীয় উইকেটকিপার হিসেবে ঋযভ পন্থের থাকা উচিত ছিল এই দলে।’’ ঘাউড়ি আরও বলেছেন, ‘‘বাঁ হাতি ব্যাটসম্যান হওয়ার সুবাদে ও অনেক কার্যকরী হত বলেই আমার মনে হয়েছে। তা ছাড়া ঋষভ ম্যাচউইনার। কঠিন পরিস্থিতিতে আগ্রাসী ব্যাটিং করে প্রতিপক্ষ বোলারদের চাপে রাখতে পারত।’’ ঘাউড়ি এ-ও মনে করেন, চার নম্বরে বিজয় শঙ্করের পরিবর্তে অম্বাতি রায়ডুকে রাখলে ভাল হত।