Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

১৯ মে ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

Viswanathan Anand: বিশ্বনাথন আনন্দের কাছে তালিম নেবে কোচবিহারের পরিজ্ঞান

কয়েক মাসের মধ্যেই, ২০১৮ সালের অগস্টে একটি প্রতিযোগিতায় চতুর্থ স্থান পেয়ে নজর কাড়ে।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কোচবিহার ১৯ অগস্ট ২০২১ ০৮:০৯
Save
Something isn't right! Please refresh.
পরিজ্ঞান চক্রবর্তী। নিজস্ব চিত্র

পরিজ্ঞান চক্রবর্তী। নিজস্ব চিত্র

Popup Close

ভারতের প্রথম গ্র্যান্ডমাস্টার তথা প্রাক্তন বিশ্বচ্যাম্পিয়ন বিশ্বনাথন আনন্দের কাছে তালিম নেওয়ার সুযোগ পেল কোচবিহারের খুদে দাবাড়ু পরিজ্ঞান চক্রবর্তী। আগামী ২২ অগস্ট অনলাইনে ওই প্রশিক্ষণের সূচিও চূড়ান্ত। ‘চেসকিড’ ও বিশ্ব দাবা সংস্থা ‘ফিডে’ গত জুনে অনূর্ধ্ব ১২ বছর বয়সীদের জন্য আন্তর্জাতিক অনলাইন দাবা প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছিল। সেখানে দ্বিতীয় স্থান পায় কোচবিহারের একটি ইংরেজি মাধ্যম বেসরকারি স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণির পড়ুয়া পরিজ্ঞান। সেই সূত্রেই এই সুযোগ পাচ্ছে সে। আমেরিকার সংস্থা আয়োজিত প্রশিক্ষণে পরিজ্ঞানের সুযোগপ্রাপ্তিতে খুশির হাওয়া তার পরিবার ও জেলার দাবাপ্রেমীদের মধ্যে। আফশোস শুধু প্রশিক্ষণ সাক্ষাতে না হওয়ার।

পরিজ্ঞানের কথায়, “এক বার কলকাতায় আয়োজিত একটি প্রতিযোগিতায় বিশ্বনাথন আনন্দ স্যরকে একঝলক দেখার সুযোগ পেয়েছিলাম। অনলাইনে স্যরের থেকে শেখার সুযোগ পেয়ে খুব আনন্দ হচ্ছে। তবে অফলাইনে প্রশিক্ষণ পর্বটা হলে আরও ভাল লাগত।’’ পরিজ্ঞানের বাবা, কোচবিহার জেলা নিবন্ধক পার্থসারথি চক্রবর্তী বলেন, “আমেরিকার একটি সংস্থার উদ্যোগে তাদের প্রতিযোগিতায় বিজয়ী বাছাই করা খুদে দাবাড়ুদের ফি বছর বিশেষ শিবির করে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। সেই প্রশিক্ষণে বিশ্বের ২০ জনের তালিকায় ছেলে সুযোগ পেয়েছে। মেল পেয়েছি।” খুশি পরিজ্ঞানের মা, কোচবিহার সুনীতি অ্যাকাডেমির শিক্ষিকা পান্না চক্রবর্তীও।

পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, বছর তিনেক আগে দাবায় হাতেখড়ি পরিজ্ঞানের। কয়েক মাসের মধ্যেই, ২০১৮ সালের অগস্টে একটি প্রতিযোগিতায় চতুর্থ স্থান পেয়ে নজর কাড়ে। তার পর থেকে প্রায় নিয়মিত জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় যোগ দিচ্ছে পরিজ্ঞান। এবছর ‘এরিনা ক্যান্ডিডেট মাস্টার’ খেতাব জিতেছে সে। কোচবিহারে দাবায় পরিজ্ঞানের প্রথম প্রশিক্ষক ছিলেন অসিত মিত্র। বর্তমানে জলপাইগুড়ির সুলভ রাই ও আনন্দ রাইয়ের কাছে অনলাইনে প্রশিক্ষণ নিচ্ছে সে। অসিতবাবু বলেন, “আমার প্রশিক্ষণে প্রথম রেটিং পায়। অনুর্ধ্ব ১২ জেলা চ্যাম্পিয়ান হয়। খুব ভাল লাগছে।”

Advertisement


Something isn't right! Please refresh.

আরও পড়ুন

Advertisement