×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৬ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

বিপক্ষের আশঙ্কা বাড়িয়ে ফের আক্রমণাত্মক রাহানে

নিজস্ব প্রতিবেদন
১৫ অক্টোবর ২০১৬ ০৩:৪২
এ বার নতুন মিশন। ধর্মশালায় প্র্যাকটিসে টিম ইন্ডিয়ার হাডল। ছবি টুইটার।

এ বার নতুন মিশন। ধর্মশালায় প্র্যাকটিসে টিম ইন্ডিয়ার হাডল। ছবি টুইটার।

আক্রমণ!

বাইশ গজে পরিস্থিতি যা-ই হোক, প্রতিপক্ষকে যথাসম্ভব আক্রমণ।

নিউজিল্যান্ডকে ঘরের মাঠে সদ্য তিন টেস্টের সিরিজে চুনকাম করার পিছনে মূলত এটাই স্ট্র্যাটেজি ছিল টিম ইন্ডিয়ার।

Advertisement

এবং একই প্রতিদ্বন্দ্বীর বিরুদ্ধে আসন্ন পাঁচ ম্যাচের ওয়ান ডে সিরিজে ভারত সেই ছক পাল্টানোর কোনও কারণ দেখছে না। দুরন্ত ফর্মে থাকা ভারতীয় মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান অজিঙ্ক রাহানে তেমনই বলছেন।

রবিবার হিমাচল প্রদেশে ‘পিকচার পোস্ট কার্ড’-সম অপরূপ শৈলশহর ধর্মশালায় দিন-রাতের প্রথম ওয়ান ডে। যেখানকার মাঠে এ দিন নেট করে উঠে রাহানে মিডিয়াকে বলেছেন, টেস্ট সিরিজের মতোই কিউয়িদের বিরুদ্ধে ওয়ান ডে সিরিজ জুড়েও ভারতীয়দের ক্রিকেট-ব্র্যান্ড হবে আক্রমণাত্মক। ‘‘শৃঙ্খলাবদ্ধ ক্রিকেট খেলাটা সাফল্যের চাবিকাঠি। যে ভাবে আমরা টেস্ট সিরিজটা খেলেছি। সেখানে আমাদের মনোভাব ছিল সব সময় আক্রমণাত্মক খেলা। ওয়ান ডে সিরিজেও মানসিকতা সে রকমই থাকবে,’’ বলেছেন দিন কয়েক আগে ইনদওরে শেষ টেস্টের প্রথম ইনিংসে বড় সেঞ্চুরি করা রাহানে। সঙ্গে মুম্বই ব্যাটসম্যান যোগ করেন, ‘‘বিপক্ষের শক্তি-দুর্বলতা নিয়ে বেশি চিন্তা না করে আমরা নিজেদের শক্তি অনুযায়ী খেলব। যেমন টেস্ট সিরিজে খেলেছিলাম।’’

এক দিনের সিরিজ সহজে জেতার পথ রাহানের কাছে, সিরিজের গোড়াতেই ছন্দে চলে এসো। তার জোরে শুরুতেই ১-০ বা ২-০ লিড নিয়ে নাও। বলছেন, ‘‘একটা দারুণ টেস্ট সিরিজ জয়ের পরে ওয়ান ডে সিরিজটার দিকে আরও বেশি করে তাকিয়ে আছি। কিন্তু এই সিরিজেও আমাদের তাজা শরীর আর মনে নামা দরকার। গোড়াতেই ছন্দ পাওয়াটা গুরুত্বপূর্ণ। সে জন্য প্রথম দু’টো ম্যাচ জিতে এগিয়ে থাকা দরকার।’’

আবার দায়িত্ব কাঁধে। ছবি: পিটিআই।



রাহানে মুখিয়ে আছেন মহেন্দ্র সিংহ ধোনির ভারতীয় দলের তরুণ ও অপেক্ষাকৃত অনভিজ্ঞ প্লেয়ারদের সঙ্গে খেলতে। এই দলের জয়ন্ত যাদব, অক্ষর পটেল, মনদীপ সিংহ, ধবল কুলকার্নি, মণীশ পাণ্ডেদের প্রসঙ্গে রাহানের আশাবাদী মন্তব্য, ‘‘নতুন ছেলেদের ব্যাপারে আমি উত্তেজিত। ‘ইন্ডিয়া এ’ টিমে ওরা ভাল করেছে। গোটা ব্যাপারটা হবে আমাদের দিক থেকে ওদের আত্মবিশ্বাস জোগানো। আর সর্বোচ্চ পর্যায়ের ক্রিকেটে ওদের ভাল ভাবে সুযোগ করে দেওয়া।’’

Advertisement