Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৩ অক্টোবর ২০২১ ই-পেপার

সেই তুরিনেই রোনাল্ডোর দেশের পরীক্ষা

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা ২৪ মার্চ ২০২১ ০৬:৫৩
ভরসা: গোলমেশিন রোনাল্ডোর দিকেই তাকিয়ে দল।

ভরসা: গোলমেশিন রোনাল্ডোর দিকেই তাকিয়ে দল।
টুইটার

জুভেন্টাসের সাম্প্রতিক ব্যর্থতার পরেও ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো ভাল মেজাজেই আছেন বলে জানালেন পর্তুগালের কোচ ফের্নান্দো স্যান্টোস। ঘটনাচক্রে তুরিনে জুভেন্টাস স্টেডিয়ামেই বুধবার পর্তুগাল ২০২২ বিশ্বকাপ যোগ্যতা অর্জন পর্বের ম্যাচ খেলবে আজ়েরবাইজানের বিরুদ্ধে, যে মাঠে পোর্তোর বিরুদ্ধে জিতেও বিদায় নিতে হয়েছিল তাঁদের।
চ্যাম্পিয়ন্স লিগ থেকে তুরিনের ক্লাব বিদায় নেওয়ায় রোনাল্ডোর সমালোচনা হয়েছে ইটালিতে। কিন্তু স্যান্টোসের দাবি, পর্তুগালের মহাতারকা একেবারেই হতাশায় ভুগছেন না। সাংবাদিক সম্মেলনে এসে বলেছেন, ‘‘আমরা দু’জন চিরকালই খুব কাছের মানুষ। ক্রিশ্চিয়ানো আমার খুব ভাল বন্ধুও। আমাদের সম্পর্ক একেবারেই একজন কোচ ও ফুটবলারের মতো নয়।’’ যোগ করেছেন, ‘‘সবাই জানে ও একজন অসাধারণ ফুটবলার। জাতীয় দলের সঙ্গে থাকতে পারলে সবসময়ই দারুণ আনন্দে থাকে। ক্রিশ্চিয়ানোই সম্ভবত বিশ্বসেরা। আমার তো মনে হয়নি যে এই মুহূর্তে ও মানসিক ভাবে কোনও সমস্যায় আছে।’’


জাতীয় দলের হয়ে সব চেয়ে বেশি গোলের রেকর্ড এই মুহূর্তে ইরানের আলি দাইয়ের। তিনি করেছেন ১০৯ গোল। রোনাল্ডো কিন্তু খুব দূরে নেই। তাঁর গোল আলির থেকে মাত্র সাতটি কম। বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জনের ম্যাচেও যে পর্তুগাল তাঁর উপরই ভরসা করছে, তা স্যান্টোসের কথাতেই পরিষ্কার। বলেছেন, ‘‘রোনাল্ডোকে খুব ভাল করে চিনি। নতুন নতুন ট্রফি জেতার জন্য চিরকালই ও মরিয়া হয়ে থাকে। তবে আমার দলের সবাই চায় একবার অন্তত বিশ্বকাপটা জিততে। আমরা কিন্তু ঠিকমতো লড়াই করতে পারলে অবশ্যই
বিশ্বসেরা হতে পারি।’’


আজ়েরবাইজান ফিফার ক্রমতালিকায় রয়েছে ১০৮ নম্বরে। তাই ফুটবল বিশ্লেষকরা মনে করছেন, বিশ্বের পঞ্চম পর্তুগাল সবসময়ই এগিয়ে থাকবে তাদের বিরুদ্ধে। স্যান্টোস যদিও বলছেন, ‘‘কোনও দলকেই আমাদের ছোট করে দেখাটা উচিত নয়। আমরা জানি আজ়েরবাইজানের প্রতিআক্রমণ খুবই ভয়ঙ্কর। তাই প্রথম থেকেই আমাদের সাবধানে পা ফেলতে হবে।’’ পর্তুগালের সমস্যা যোগ্যতা অর্জনের এই পর্বে তারা সম্ভবত দলের সেরা ডিফেন্ডার পেপেকে পাবে না। তাঁর চোট আছে। তবে দলের অন্য ডিফেন্ডার রুবেন ডায়াস বলেছেন, ‘‘পেপে না থাকলেও মনে হয় না আমাদের কোনও সমস্যা হবে। অন্যরাও যথেষ্ট যোগ্য। বিশ্বকাপ জেতাটাই আমাদের আসল লক্ষ্য। এই দলটার সব চেয়ে বড় সুবিধে ক্রিশ্চিয়ানোর মতো ফুটবলার আছে। নতুনরা যাতে ওর সঙ্গে মিলে দারুণ কিছু করতে পারে সেই চেষ্টাই করা হচ্ছে।’’

Advertisement


বেলের ইচ্ছা: গ্যারেথ বেল চান রিয়াল মাদ্রিদেই তাঁর চুক্তির শেষ ১২ মাস খেলতে। এই মরসুমে তিনি টটেনহ্যামে লোন-এ খেলছেন। সেখানে শুরুতে সমস্যা থাকলেও সাম্প্রতিক কিছু ম্যাচে প্রায় নিয়মিতই খেলছেন। এই মুহূর্তে বেল ব্যস্ত ওয়েলসের বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জনের ম্যাচ নিয়ে। বলেছেন, ‘‘নিয়মিত খেলার সুযোগ পাওয়ার আশাতেই আমি এই মরসুমে টটেনহ্যামে খেলছি। নিজের ফুটবলটা উপভোগ করা ছাড়া অন্য কিছুই আমি ভাবি না।’’ যোগ করেছেন, ‘‘স্পার্সে একটা মরসুম কাটিয়ে রিয়ালে ফিরে যেতে চাই। ইউরোর পরেও আমার সঙ্গে চুক্তি শেষ হতে এক বছর সময় থাকবে। এই সময়টা স্পেনের ক্লাবেই খেলতে চাই।’’


বেলের বয়স এখন ৩১। এই মরসুমে তিনি ১০টি গোল করেছেন। প্রিমিয়ার লিগ টেবলে টটেনহ্যাম রয়েছে ষষ্ঠ স্থানে। ইউরোপা লিগ থেকে ছিটকে যাওয়ায় ক্লাবে ম্যানেজার জোসে মোরিনহোর ভবিষ্যৎ নিয়ে সংশয় তৈরি হয়েছে। এ রকম একটা অবস্থায় জাতীয় দলকে নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ে তিনি খুশিই হয়েছেন। তাঁর কথায়, ‘‘সব ক্লাবেই এ রকম অবস্থা হতে পারে। তবে আমি ব্যক্তিগত ভাবে এই ধরনের পরিস্থিতিতে দূরে চলে যাওয়ার পক্ষপাতী। এখন যেমন অনেক নিশ্চিন্তে আছি ওয়েলসের হয়ে খেলতে পারছি বলে। আমার তো মনে হয়, এ রকম হলে একজন ফুটবলার মানসিক ভাবে অনেক ভাল জায়গায় নিজেকে নিয়ে এসে আবার ক্লাবে নিজের দায়িত্বে ফিরতে পারে।’’ বুধবারই বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জনের ম্যাচে ওয়েলস খেলবে বেলজিয়ামের বিরুদ্ধে।

আরও পড়ুন

Advertisement