Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৬ মে ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

এ বার আসরে ডি’ককের বোন

দক্ষিণ আফ্রিকার সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, এক ঘণ্টা ধরে মাঠে ডি’কক-কে লাগাতার স্লেজ করে গিয়েছেন ওয়ার্নার। তখন তিনি তাঁর পরিবারের সদস্যদের সম

নিজস্ব প্রতিবেদন
০৭ মার্চ ২০১৮ ০৫:৩০
Save
Something isn't right! Please refresh.
বিতর্ক: কুইন্টন ডি’ককের বোন হুমকি দিলেন ওয়ার্নারকে। ছবি:টুইটার

বিতর্ক: কুইন্টন ডি’ককের বোন হুমকি দিলেন ওয়ার্নারকে। ছবি:টুইটার

Popup Close

ডেভিড ওয়ার্নার বনাম কুইন্টন ডি’কক— স্লেজিং তিক্ততা কমার তো লক্ষণ নেই-ই, উল্টে তা বেড়ে চলেছে। নজিরবিহীন ভাবে এ বার ডি’ককের বোন এই ঘটনার সঙ্গে জড়িয়ে গিয়েছেন।

ডারবানে প্রথম টেস্টে জিতেছে অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু সেই ঘটনাকে ছাপিয়ে সারা বিশ্বের ক্রিকেট মহলে তোলপাড় ফেলে দিয়েছে ওয়ার্নার এবং ডি’ককের ঝামেলা। দু’জনের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় এমন পর্যায়ে পৌঁছয় যে, টানেলের মধ্যে প্রায় হাতাহাতি হতে যাচ্ছিল। ওয়ার্নার তেড়ে যান ডি’ককের দিকে। দু’দলের ক্রিকেটারেরা এসে তাঁদের ছাড়িয়ে নিয়ে যান।

এত দিন শোনা যাচ্ছিল, ওয়ার্নারের স্ত্রীর উদ্দেশে নাকি কটূ মন্তব্য করেছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার উইকেটরক্ষক ডি’কক। সেই কারণে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। এ বার প্রকাশ্যে এসেছে অন্য তথ্য যে, ওয়ার্নারও নাকি ডি’ককের পরিবারের সদস্যদের নাম করে অশালীন মন্তব্য করেন। সেই সম্ভাবনাকেই উস্কে দিয়েছেন ডি’ককের বোন ডালিন। টুইটারে ওয়ার্নারের উদ্দেশে উত্তেজিত ভাবে মন্তব্য করেছেন, ‘আমি তোমাকে আঘাত করব’।

Advertisement

দক্ষিণ আফ্রিকার সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, এক ঘণ্টা ধরে মাঠে ডি’কক-কে লাগাতার স্লেজ করে গিয়েছেন ওয়ার্নার। তখন তিনি তাঁর পরিবারের সদস্যদের সম্পর্কে গালিগালাজ করতেও ছাড়েননি। তাতেই নাকি ক্ষিপ্ত হয়ে ড্রেসিংরুমে ফেরার সময় পাল্টা অশ্রাব্য কথাবার্তা শুরু করেন ডি’কক। তার জেরেই টানেলে হাতাহাতির উপক্রম হয়।

টেস্ট ম্যাচের শেষে দু’দলের ক্রিকেটারেরা এসে নিজেদের পক্ষে কথা বলে যান। অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ বলে যান, ওয়ার্নারকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করেছিলেন ডি’কক। সেই কারণেই তিনি মেজাজ হারান। আবার দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক ফ্যাফ ডু’প্লেসির দাবি ছিল, ডি’কক কারও সঙ্গে বাগ্‌যুদ্ধে জড়ায় না। তাঁকে উত্যক্ত করা হয়েছে বলেই প্রতিক্রিয়া হয়েছে।

টানেলের মধ্যে সিসিটিভি ফুটেজ থেকে দেখা গিয়েছে, ডি’ককের দিকে উত্তেজিত ভাবে তেড়ে যাচ্ছেন ওয়ার্নার। তাঁকে শান্ত করতে ছুটে আসেন অস্ট্রেলিয়া দলের সতীর্থরা। সিসিটিভি-তে দেখা গিয়েছে, প্রথমে উসমান খাওয়াজা এসে ওয়ার্নার-কে টেনে নিয়ে যাচ্ছেন। এর পর অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ এসে তাঁর বাঁ হাতি ওপেনারকে ড্রেসিংরুমে টেনে নিয়ে যান। না হলে হাতাহাতিও হয়ে যেতে পারত। ম্যাচ রেফারিও এই ঘটনার তদন্ত করছেন।

অস্ট্রেলিয়ার একটি সংবাদপত্রের দাবি, ওয়ার্নার তাঁর দেশের বোর্ডকে জানিয়েছেন, পরিবারের সদস্যদের নিয়ে কটূ মন্তব্য করাতেই তিনি মেজাজ হারিয়েছিলেন। পাল্টা তথ্য প্রকাশ করেছে দক্ষিণ আফ্রিকান মিডিয়া যে, ডি’ককের পরিবারকে টেনে অশালীন মন্তব্য করেছিলেন ওয়ার্নার। সেটা জানার পরেই ডি’ককের বোনের
টুইটার বিস্ফোরণ।

দু’দলের ক্রিকেটারদের পরিবার যদি এ ভাবে জড়িয়ে পড়তে শুরু করে, তা হলে ‘ডারবানগেট’-এর আগুন কমার বদলে আরও দাউদাউ করে জ্বলে উঠতে পারে বলে আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। বিশ্ব জুড়েও তীব্র প্রতিক্রিয়া হয়েছে এই ঘটনার। এতটা তিক্ত হয়ে পড়বে কেন দু’দলের ক্রিকেটারদের মধ্যে সম্পর্ক, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন তারকা অ্যাডাম গিলক্রিস্ট আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন ওয়ার্নার-কে নিয়ে। অতীতে বাঁ হাতি ওপেনারের মেজাজ হারানোর বদনাম ছিল। ২০১৩ সালে পানশালায় ইংল্যান্ডের জো রুটের সঙ্গে মারামারি করেছিলেন ওয়ার্নার। কিন্তু সেই মানসিকতা অনেকটা কাটিয়ে উঠেছিলেন তিনি। গিলক্রিস্টের আশঙ্কা, ওয়ার্নারের সেই পুরনো বদমেজাজ না ফিরে আসে। ‘‘ওয়ার্নারের কৃতজ্ঞ থাকা উচিত উসমান বা স্মিথের মতো সতীর্থদের কাছে। না থামালে কী ঘটতে পারত, কে জানে,’’ বলেছেন গিলক্রিস্ট।

আবার দু’দেশের ক্রিকেটারদের মধ্যেও তর্কাতর্কি শুরু হয়েছে এই ঘটনা নিয়ে। গিলক্রিস্ট টুইটারে প্রথমে মন্তব্য করেছিলেন, সিসিটিভি ফুটেজে যা দেখা যাচ্ছে, সেটা মোটেও ক্রিকেটের জন্য ভাল ছবি নয়। তাতে দক্ষিণ আফ্রিকার প্রাক্তন অধিনায়ক গ্রেম স্মিথ আবার পাল্টা মন্তব্য করেন, ‘ওয়ার্নারের এমন অভ্যেস আছে। অন্যদের উত্যক্ত করার। তুমি যখন কিছু বলবে, তখন শোনার জন্যও তৈরি থাকতে হয়’।

অস্ট্রেলিয়া দলের পক্ষ থেকে কোচ ডারেন লেম্যান যদিও এ দিন বলে দিয়েছেন, তাঁরা পুরোপুরি ওয়ার্নারের পাশে রয়েছেন। ‘‘ডেভিড আমাদের দলের সহ-অধিনায়ক এবং ও সেটাই থাকছে। আমরা এখানে সিরিজ জিততে এসেছি,’’ বলেছেন লেম্যান।



Something isn't right! Please refresh.

Advertisement