×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১১ মে ২০২১ ই-পেপার

মুম্বই-ফাঁড়া কাটল না, রোহিতদের কাছে ১০ রানে ম্যাচ খুইয়ে হারের হ্যাটট্রিক করল কলকাতা

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ১৩ এপ্রিল ২০২১ ১৮:৫২
চার উইকেট নিয়ে মুম্বইকে ম্যাচে ফেরালেন রাহুল চাহার।

চার উইকেট নিয়ে মুম্বইকে ম্যাচে ফেরালেন রাহুল চাহার।
ছবি - টুইটার

ক্রিজে রাসেল ও দীনেশ কার্তিক। তবুও ট্রেন্ট বোল্ট প্রথম বলে এক রান দিলেন। দ্বিতীয় বলেও দিলেন মাত্র এক রান। এর মধ্যে তৃতীয় বলে তাঁকে ক্যাচ দিয়ে বসলেন রাসেল। ১৪০ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে নাইটদের ডাগ আউট তখন রীতিমতো কাঁপছে। চতুর্থ বলে আবার আউট। এ বার বোল্ড হলেন প্যাট কামিন্স। পঞ্চম বলে এল দুই রান। ফলে শেষ বলে জিততে হলে দরকার ছিল ১১ রান। স্বাভাবিক ভাবেই সেই রান তুলেতে না পারার জন্য ১০ রানে হেরে গেল অইন মর্গ্যানের দল। একই সঙ্গে নাইটদের বিরুদ্ধে বরাবরের আধিপত্য বজায় রেখে জয়ের হ্যাটট্রিক করল পাঁচ বারের আইপিএল জয়ী মুম্বই ইন্ডিয়ান্স।

Advertisement

১৯তম ওভারে মাত্র চার রান দিয়ে ম্যাচ জয়িয়ে দিলেন যশপ্রীত বুমরা। এখন নাইটদের জিততে হলে ৬ বলে ১৫ রান করতে হবে।

১৮তম ওভারের তৃতীয় বলে আবার জীবন পেলেন আন্দ্রে রাসেল। এ বারও বোলার সেই ক্রুণাল পাণ্ড্য। ১৮ ওভারে ৫ উইকেটে ১৩৪ রান তুলল কেকেআর। নাইটদের জিততে হলে ১২ বলে ১৯ রান করতে হবে।

১৭ ওভারে ৫ উইকেটে ১৩১ রান তুলল কেকেআর। নাইটদের জিততে হলে ১৮ বলে ২২ রান করতে হবে।

১৬তম ওভারের দ্বিতীয় বলে শাকিবকে আউট করলেও পঞ্চম বলে রাসেলের সহজ ক্যাচ ফেলে দিলেন ক্রুণাল পাণ্ড্য। ১৬ ওভারে ৫ উইকেটে ১২৩ রান তুলল কেকেআর। নাইটদের জিততে হলে ২৪ বলে ৩০ রান করতে হবে।


নীতীশ রানাকে আউট করে নাইটদের বড় ধাক্কা দিলেন রাহুল চাহার। ১২২ রানে ৪ উইকেট হারাল কেকেআর। নীতীশ ফিরলেন ৫৭ রানে।

১৪ ওভারে ৩ উইকেটে ১১৩ রান তুলল কেকেআর। নাইটদের জিততে হলে ৩৬ বলে ৪০ রান করতে হবে। নীতীশ রানা ৪৪ বলে ৫৪ রানে ক্রিজে আছেন।

খারাপ শট মেরে আউট হলেন নাইট অধিনায়ক। ৩ উইকেট নিয়ে নাইটদের ব্যাটিংয়ের ভিত কাঁপাচ্ছেন রাহুল চাহার। ১৩ ওভারে ৩ উইকেটে ১০৪ রান তুলল কেকেআর। নাইটদের জিততে হলে ৪২ বলে ৪৯ রান করতে হবে। নীতীশ রানা ৪২ বলে ৫২ রানে ক্রিজে আছেন।


পরপর অর্ধ শতরান। চাপের মুখে কলকাতাকে একাই টানছেন নীতীশ রানা।


১২ ওভারে ২ উইকেটে ৯৭ রান তুলল কেকেআর। নাইটদের জিততে হলে ৪৮ বলে ৪৬ রান করতে হবে। নীতীশ রানা ৩৭ বলে ৪৫ ও অইন মর্গ্যান ৬ বলে ৭ রানে ক্রিজে আছেন।

শুভমনের পর ত্রিপাঠি আউট, নাইটদের জোড়া ধাক্কা দিয়ে ম্যাচ জমিয়ে দিলেন রাহুল চাহার। ১১ ওভারে ২ উইকেটে ৮৫ রান তুলল কেকেআর। নাইটদের জিততে হলে ৫৪ বলে ৬৮ রান করতে হবে। নীতীশ রানা ৩৪ বলে ৪৪ রানে ক্রিজে আছেন।

১০ ওভারে ১ উইকেটে ৮১ রান তুলল কেকেআর। নীতীশ রানা ৩৩ বলে ৪৩ ও রাহুল ত্রিপাঠি ৩ বলে ৩ রানে ক্রিজে আছেন। নাইটদের জিততে হলে ৬০ বলে ৭২ রান করতে হবে।

নাইটদের প্রথম উইকেটের পতন, সাজঘরে ফিরলেন শুভমন গিল। ৯ ওভারে ১ উইকেটে ৭৩ রান তুলল কেকেআর।

চিপকের মাঠে বেগুনী বাহিনীর হুঙ্কার। বাইশ গজের যুদ্ধে চার-ছয়ের বর্ষণ। ৮ ওভারে ৬২ রান করল কেকেআর। নীতীশ রানা ২৯ বলে ৩৭

ও শুভমন গিল ১৯ বলে ২৩ রানে ক্রিজে আছেন। নাইটদের জিততে হলে ৭২ বলে ৯১ রান করতে হবে।

৭ ওভারে ৫০ রান করল কেকেআর। নীতীশ রানা ২৪ বলে ২৬ ও শুভমন গিল ১৮ বলে ২২ রানে ক্রিজে আছেন। নাইটদের জিততে হলে ৭৮ বলে ১০৩ রান করতে হবে।

১৫৩ রান তাড়া করতে নেমে পাওয়ার প্লে-তে ৪৫ রান তুলল কলকাতা নাইট রাইডার্স। নীতীশ রানা ২০ বলে ২৩ ও শুভমন গিল ১৬ বলে ২০ রানে ক্রিজে আছেন।


৪ ওভারে ২৮ করল কেকেআর। নীতীশ রানা ১৮ বলে ২১ ও শুভমন গিল ৭ বলে ৬ রানে ক্রিজে আছেন।

দেখেশুনে খেলছেন দুই নাইট ওপেনার নীতীশ রানা ও শুভমন গিল। ২ ওভারে ৮ রান করল কেকেআর।

গত ম্যাচের মতো এ বারও চার মেরে ইনিংস শুরু করলেন নীতীশ রানা। ১ ওভারে ৪ করল কেকেআর।

৪,৪, আউট, আউট,২, আউট। রাসেলকে পরপর দুটো চার মারলেও শেষ ওভারের তৃতীয় বলে প্রসিদ্ধকে ক্যাচ দিয়ে আউট হলেন ক্রুণাল। পরের বলেই যশপ্রীত বুমরাকে ফেরালেন 'দ্রে রাস'। পঞ্চম বলে রাহুল চাহার ২ রান নিলেও শেষ বলে তাঁকে আউট করলেন ক্যারিবিয়ান অলরাউন্ডার। ২ ওভারে ১৫ রানে ৫ উইকেট নিয়ে বল হাতে দাপট দেখালেন রাসেল। প্যাট কামিন্স নিলেন ২৪ রানে ২ উইকেট। ফলে নির্ধারিত ২০ ওভারে ১৫২ রানে গুটিয়ে গেল মুম্বই। সর্বাধিক ৫৩ রান করেছেন সূর্য। রোহিত করলেন ৪২ রান। কলকাতাকে মরসুমের দ্বিতীয় ম্যাচ জিততে হলে ১৫৩ রান করতে হবে।


১৯ ওভারে ৭ উইকেটে ১৪২ রান তুলল মুম্বই ইন্ডিয়ান্স।

১৮তম ওভারের দ্বিতীয় ও চতুর্থ বলে পোলার্ড ও মার্কো জ্যানসেনকে আউট করে মুম্বই ব্যাটিংকে কাঁপিয়ে দিলেন আন্দ্রে রাসেল। ১২৬ রানে ৭ উইকেট হারাল মুম্বই। ১৮ ওভারে উঠল ১৩০ রান।


১৭তম ওভারের দ্বিতীয় বলে হার্দিক পাণ্ড্যকে আউট করলেন প্রসিদ্ধ। ১২৩ রানে ৫ উইকেট হারাল মুম্বই।

রোহিতকে আউট করে মুম্বইকে বড় ধাক্কা দিলেন প্যাট কামিন্স। ১৬ ওভারে ৪ উইকেটে ১১৯ রান তুলল রোহিতের দল।

১৫ ওভারে ৩ উইকেটে ১১৪ রান তুলল মুম্বই। রোহিত ৩১ বলে ৪৩ ও হার্দিক ১৪ বলে ১০ রানে ক্রিজে আছেন।

খোলস ছেড়ে স্বমহিমায় ফিরছেন রোহিত। ১৪ ওভারে ৩ উইকেটে ১০৬ রান তুলল মুম্বই। রোহিত ২৭ বলে ৩৬ ও হার্দিক ১২ বলে ৯ রানে ক্রিজে আছেন।

১৩ ওভারে ৩ উইকেটে ৯৪ রান তুলল মুম্বই। রোহিত ২৫ বলে ২৯ ও হার্দিক ৮ বলে ৪ রানে ক্রিজে আছেন।

জোড়া সাফল্য। এ বার প্যাট কামিন্সের বলে সাজঘরে ফিরলেন ঈশান কিশন। ৮৮ রানে ৩ উইকেট হারাল রোহিতের দল। ১২ ওভারে ৩ উইকেটে ৯১ রান তুলল মুম্বই।


ওভারের তৃতীয় বলে এল সাফল্য। ৫৬ রানে শাকিবের বলে আউট হলেন সূর্য। তাঁর ক্যাচ ধরলেন শুভমন গিল। ৮৬ রানে ২ উইকেট হারাল মুম্বই। ১০ ওভারে মুম্বইয়ের রান ২ উইকেটে ৮৮।

প্যাট কামিন্সকে ছয় মেরে অর্ধ শতরান পূরণ করলেন 'প্রাক্তন নাইট' সূর্য কুমার যাদব। ১০ ওভারে ১ উইকেটে ৮১ রান করল মুম্বই। সূর্য ৩৪ বলে ৫২ ও রোহিত ২০ বলে ২৫ রানে ক্রিজে আছেন।

৯ ওভারে ১ উইকেটে ৭০ রান করল মুম্বই। সূর্য ৩০ বলে ৪৩ ও রোহিত ১৮ বলে ২৩ রানে ক্রিজে আছেন।

রোহিত এক দিক আগলে রাখলেও স্বভাবসিদ্ধ বিস্ফোরক মেজাজে ব্যাট করছেন সূর্য কুমার যাদব। প্রসিদ্ধ কৃষ্ণর প্রথম ওভারে ১৬ রান নিয়ে ৮ ওভারে ১ উইকেটে ৬৪ রান করল মুম্বই। সূর্য ২৭ বলে ৪০ ও রোহিত ১৫ বলে ২০ রানে ক্রিজে আছেন।


শাকিবের ওভারে এল ৬ রান। ৭ ওভারে ১ উইকেটে ৪৮ রান করল মুম্বই। সূর্য ২২ বলে ২৫ ও রোহিত ১৪ বলে ১৯ রানে ক্রিজে আছেন।

অবশেষে ষষ্ঠ ওভারে নতুন বল হাতে পেলেন প্যাট কামিন্স। ৬ ওভারে ১ উইকেটে ৪২ রান করল মুম্বই। সূর্য ১৮ বলে ২১ ও রোহিত ১১ বলে ১৬ রানে ক্রিজে আছেন।

৫ ওভারে ১ উইকেটে ৩৭ রান করল মুম্বই। সূর্য ১৩ বলে ১৭ ও রোহিত ১১ বলে ১৬ রানে ক্রিজে আছেন।

আবার বোলিংয়ে বদল। এ বার শাকিব আল হাসানের হাতে বল তুলে দেওয়া হল। ৪ ওভারে ১ উইকেটে ২৮ রান করল মুম্বই। সূর্য ১০ বলে ১৫ ও রোহিত ৮ বলে ১০ রানে ক্রিজে আছেন।

তবে সূর্য কুমার যাদব থেমে থাকার বান্দা নন। ক্রিজে এসেই ভাজ্জিকে ৩টি চার মারলেন সূর্য। ৩ ওভারে ১ উইকেটে ২৪ রান করল মুম্বই।

স্পিন দিয়ে বোলিং শুরু করলেন অইন মর্গ্যান। ভাজ্জির পর দ্বিতীয় ওভারে বল করলেন বরুণ চক্রবর্তী। শেষ বলে কুইন্টন ডি' ককের উইকেট নিয়ে মুম্বইকে প্রথম ধাক্কা দিল কেকেআর। ২ ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে ১০ রান তুলল রোহিতের দল।


১ ওভারে ৩ রান তুলল মুম্বই।

প্রথম ম্যাচের মতো এ বারও হরভজন সিংহের হাতে নতুন বল তুলে দিলেন অইন মর্গ্যান।

মুম্বইয়ের প্রথম একাদশ: রোহিত শর্মা, কুইন্টন ডি' কক, সূর্যকুমার যাদব, ঈশান কিশন, কায়রন পোলার্ড, হার্দিক পাণ্ড্য, ক্রুণাল পাণ্ড্য, মার্কো জ্যানসেন, যশপ্রীত বুমরা, ট্রেন্ট বোল্ট, রাহুল চাহার

কলকাতার প্রথম একাদশ: রাহুল ত্রিপাঠি, শুভমন গিল, নীতীশ রানা, শাকিব আল হাসান, অইন মর্গ্যান, দীনেশ কার্তিক, আন্দ্রে রাসেল, প্যাট কামিন্স, বরুণ চক্রবর্তী, প্রসিদ্ধ কৃষ্ণ, হরভজন সিংহ


প্রত্যাশিত ভাবেই মুম্বই ইন্ডিয়ান্স দলে একটি বদল করা হল। ক্রিস লিনের পরিবর্তে প্রথম একাদশে এলেন কুইন্টন ডি' কক।

নাইটদের প্রথম একাদশে কোনও বদল নেই। সানরাইজার্স হায়দরাবাদের দলকে মাঠে নামালেন অইন মর্গ্যান।

টসে জিতে বল করার সিদ্ধান্ত নিলেন অইন মর্গ্যান।


জাহির খান ‘তুরুপের তাস’ বলেছেন। প্রায় সব ম্যাচেই ‘ডেথ অভার’এ দলকে বাঁচান। গত আইপিএলে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে সবচেয়ে বেশি উইকেট নিয়েছেন। তাই যশপ্রীত বুমরার প্রতি বাড়তি প্রত্যাশা তো থাকবেই।

কেকেআরের সাফল্য অধিনায়ক অইন মর্গ্যানের উপর নির্ভর করছে। গত মরসুমের মাঝপথে দায়িত্ব নিলেও দল একেবারেই মেলে ধরতে পারেনি। তবে মিডল অর্ডারে দ্রুত রান তুলতে পারেন। প্রথম ম্যাচে রান আসেনি। এই ম্যাচে কেমন ব্যাট করেন সেটাই দেখার।


কেকেআরের জন্য প্রধান অস্ত্র হতে পারেন অভিজ্ঞ হরভজন সিংহ। যিনি দীর্ঘ ২ বছর পর আইপিএল জগতে ফিরে এসেছেন। মুম্বই সংসারে ১০ বছর কাটানো ভাজ্জি বিপক্ষের সবাইকে হাতের তালুর মতো চেনেন। তাছাড়া চেন্নাই সুপার কিংসে দুই মরসুম খেলার সুবাদে চিপকের বাইশ গজ তাঁর জানা।

গত আইপিএলে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের জার্সিতে দ্বিতীয় সর্বাধিক রান সংগ্রাহক সূর্যকুমার যাদব, ভারতীয় দলের জার্সিতে প্রথমবার খেলতে নেমেই অর্ধশতরান হাঁকিয়েছেন।

একদিনের ক্রিকেটে জমকালো অভিষেকের পর একেবারে টগবগ করে ফুটছেন প্রসিদ্ধ কৃষ্ণ। গত ম্যাচে ডেভিড ওয়ার্নারকে আউট করে বেশ আত্মবিশ্বাসী কর্নাটকের এই তরুণ।


নাইটদের বিরুদ্ধে রোহিতের ব্যাট যেন কথা বলে। এখনও পর্যন্ত কলকাতার বিরুদ্ধে সর্বাধিক ৯৩৯ রান করেছেন ‘হিট ম্যান’। এর মধ্যে রয়েছে একটি শতরান। ২০১২ সালে ইডেনে ১০৯ রানে অপরাজিত ছিলেন মুম্বই অধিনায়ক। আর মাত্র ৭১ রান করলেই কলকাতার বিরুদ্ধে ১০০০ রান করে ফেলবেন রোহিত।

এখনও পর্যন্ত দুটো দল ২৭বার মুখোমুখি হয়েছে। এর মধ্যে মুম্বইয়ের পাল্লা ভারী। তাদের জয় ২১বার। কেকেআর মাত্র ৬বার জয়ের মুখ দেখেছে। গত বছর দুবারের সাক্ষাতেই জয় পেয়েছেন রোহিত।

২০১২ থেকে ২০২১ পর্যন্ত টানা ৯ বছর প্রথম ম্যাচ হেরেছে রোহিত শর্মার মুম্বই ইন্ডিয়ান্স। তবে এতে তাদের ট্রফি জিততে বেগ পেতে হয়নি। অন্যদিকে গত মরসুমের খারাপ সময় কাটিয়ে এ বার জয় দিয়ে অভিযান শুরু করেছেন অইন মর্গ্যানের কলকাতা নাইট রাইডার্স।

Advertisement