×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৯ জুন ২০২১ ই-পেপার

শেষ মুহূর্তের কাঁপুনি কাটিয়ে আইএসএলে তৃতীয় জয় এসসি ইস্টবেঙ্গলের

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১৬:৫৮
এসসি ইস্টবেঙ্গলের হয়ে দ্বিতীয় গোল করলেন পিলকিংটন।

এসসি ইস্টবেঙ্গলের হয়ে দ্বিতীয় গোল করলেন পিলকিংটন।
ছবি টুইটার

খেলা শেষ। শেষ মুহূর্তে জামশেদপুর একের পর এক আক্রমণ তুলে আনলেও শেষ হাসি লাল-হলুদের। আইএসএলের তৃতীয় জয় তুলে নিল তারা।

৯২ মিনিট। শেষ মুহূর্তে মরণ কামড় দিচ্ছে জামশেদপুর। ভালসকিসের হেড দুরন্ত সেভ করলেন সুব্রত।

৯০ মিনিট। পাঁচ মিনিট অতিরিক্ত সময় দেওয়া হল। এখনও এগিয়ে রয়েছে লাল-হলুদ।

Advertisement

৮৩ মিনিট। গো-ও-ও-ও-ও-ও-ও-ল। খেলার বিপরীতে গিয়ে গোল করল জামশেদপুর। আইজ্যাকের ক্রস থেকে গোল করলেন অধিনায়ক পিটার হার্ডলি।

৭৯ মিনিট। দুরন্ত কাউন্টার অ্যাটাক এসসি ইস্টবেভঙ্গলের। পিলকিংটনের গড়ানো শট পোস্টে লেগে রেহেনেশের হাতে।

৭০ মিনিট। ফের সুযোগ পেয়ে গিয়েছিলেন পিলকিংটন। কিন্তু ব্রাইটের ক্রস একটু দূরে থাকায় গোল হল না।

৬৮ মিনিট। গো-ও-ও-ও-ও-ও-ও-ল। দ্বিতীয় গোল এসসি ইস্টবেঙ্গলের। স্টেনম্যানের কাছ থেকে বল পেয়ে দুরন্ত শটে গোল করলেন পিলকিংটন। মাঝমাঠে সৌরভ দাস বল কেড়ে নেন বিপক্ষের থেকে। পাস করেন স্টেনম্যানকে। পিলকিংটন কাজ সম্পূর্ণ করলেন।

৬৭ মিনিট। ফল বদলানোর লক্ষ্যে একের পর এক পরিবর্তন করছেন জামশেদপুর কোচ ওয়েন কোয়েল।

৬৩ মিনিট। আচমকাই চাপে পড়ে গিয়েছে এসসি ইস্টবেঙ্গল। বক্সে দারুণ ঘুরে শট নিয়েছিলেন ভালসকিস। তাঁর শট পোস্টে লেগে বেরিয়ে গেল।

৫৮ মিনিট। বাঁ দিক থেকে অনেকটা দৌড়ে এসে শট নিয়েছিলেন নারায়ণ। কিন্তু তাঁর জোরালো শট বাঁচালেন রেহেনেশ।

৫০ মিনিট। বিরতির পর শুরু হল খেলা। দ্বিতীয় গোল করে জয় নিশ্চিত করতে চাইছে এসসি ইস্টবেঙ্গল।

বিরতি। রাজুর লম্বা থ্রো থেকে স্টেনম্যানের হেড অল্পের জন্যে বাইরে গেল। ফলে এসসি ইস্টবেঙ্গলের ব্যবধান বাড়ল না। খেলার ফল ১-০।

৪৫ মিনিট। ৩ মিনিট অতিরিক্ত সময়। এসসি ইস্টবেঙ্গল এখনও এক গোলে এগিয়ে।

৪১ মিনিট। দুরন্ত আক্রমণ এসসি ইস্টবেঙ্গলের। জামশেদপুরের বক্সে ঝড় তুলে দিয়েছে তারা। ব্রাইট একাই ঢুকতে গিয়েছিলেন বক্সে। কিন্তু বাধা পেলেন। তারপরেও গোলের সুযোগ এসেছিল। জামশেদপুরের তৎপরতায় গোল এল না।

৩৫ মিনিট। এসসি ইস্টবেঙ্গলের বেশিরভাগ আক্রমণই উঠে আসছে ডানদিক থেকে। দ্বিতীয় গোল তোলার লক্ষ্যে মরিয়া তারা।

৩১ মিনিট। লাল-হলুদের ফ্রিকিকে একাধিক বৈচিত্র। পিলকিংটনের দুরন্ত শট অল্পের জন্য বাইরে।

২৯ মিনিট। এসসি ইস্টবেঙ্গলের মাঝমাঠে ভাল খেলছেন সৌরভ দাস। জামশেদপুরের আক্রমণ বাঁচিয়ে দিচ্ছেন অনায়াসে। বিপক্ষের নেরিজুস ভালসকিসকে সে ভাবে চোখে পড়েনি এখনও।

২২ মিনিট। কর্নার থেকে অন্যরকম প্রচেষ্টা। গড়ানো শট নিতে গিয়েছিলেন স্টেনম্যান। তবে তা কার্যকর হল না।

১৯ মিনিট। আবার বাঁ দিক থেকে ভাল ক্রস করেছিলেন নারায়ণ। তবে পিলকিংটনরা বল পেলেন না। জামশেদপুর বল ক্লিয়ার করে গেল।

১৫ মিনিট। গোল খেয়ে ফিরে আসার চেষ্টা করছে জামশেদপুর। কিন্তু ম্যাচের রাশ রয়েছে লাল-হলুদের হাতেই। বলের নিয়ন্ত্রণও তাদেরই বেশি। দুটি উইং দারুণ ভাবে ব্যবহার করছে ইস্টবেঙ্গল।

৬ মিনিট। গো-ও-ও-ও-ও-ও-ও-ও-ও-ল। নারায়ণের কর্নার থেকে এগিয়ে গেল এসসি ইস্টবেঙ্গল। বক্সে দুরন্ত বল ভাসালেন। মাথা ছুঁইয়ে এগিয়ে দিলেন মাঠি স্টেনম্যান।

৪ মিনিট। শুরুতেই এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ এসেছিল এসসি ইস্টবেঙ্গলের সামনে। নারায়ণের ক্রস গোলে রাখতে ব্যর্থ পিলকিংটন।

প্লে-অফের আশা কার্যত শেষ হয়ে গিয়েছে এসসি ইস্টবেঙ্গলের। রবিবার জামশেদপুরের বিরুদ্ধে কার্যত সম্মানরক্ষার ম্যাচে নামছে লাল-হলুদ বাহিনি।

প্রত্যাশামতোই গোলে দেবজিৎ মজুমদারকে সরিয়ে অভিষেক হচ্ছে ভারতের প্রাক্তন অধিনায়ক সুব্রত পালের। দীর্ঘ ১২ বছর পর লাল-হলুদে ফিরেছেন তিনি। পাশাপাশি সার্থক গোলুই, সৌরভ দাসও রয়েছেন প্রথম একাদশে।

এসসি ইস্টবেঙ্গলের আক্রমণভাগে রয়েছে অ্যান্টনি পিলকিংটন, জা মাঘোমা এবং ব্রাইট এনোবাখারে। মিডফিল্ডে জায়গা পেয়েছে মাঠি স্টেনম্যান। ডিফেন্সে অধিনায়ক ড্যানি ফক্স বাদে আর কোনও বিদেশি নেই। বাইরে বসতে হচ্ছে স্কট নেভিলকে।

নির্বাসিত থাকায় এই ম্যাচে লাল-হলুদের ডাগ-আউটে নেই কোচ রবি ফাওলার। বদলে দলকে নির্দেশ দেবেন সহকারি কোচ টনি গ্রান্ট।

Advertisement