Advertisement
২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

সাম্বার ঝলক ফেরাতে মরিয়া পাওলিনহোরা

আটচল্লিশ ঘণ্টার মধ্যেই আশ্চর্যজনক ভাবে বদলে গিয়েছে ব্রাজিল শিবিরের অন্দরমহলের আবহ। শুক্রবার সন্ধ্যায় মালি-র বিরুদ্ধে তৃতীয় ও চতুর্থ স্থান নির্ণায়ক ম্যাচের প্রস্তুতিতে ফের চনমনে পাওলিনহো-রা।

নজরে: ব্রাজিলের অনুশীলনে পাওলিনহো। শুক্রবার। —নিজস্ব চিত্র।

নজরে: ব্রাজিলের অনুশীলনে পাওলিনহো। শুক্রবার। —নিজস্ব চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ২৮ অক্টোবর ২০১৭ ০৪:১৫
Share: Save:

অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপে চোদ্দো বছর পর ব্রাজিলের চ্যাম্পিয়ন হওয়ার স্বপ্ন দু’দিন আগেই গুড়িয়ে দিয়েছিল ইংল্যান্ড। হারের ধাক্কায় মানসিক ভাবে রীতিমতো বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছিল পাওলো হেনরিক সাম্পাইও ফিলপো (পাওলিনহো), লিঙ্কন ডস স্যান্টোস-রা।

আটচল্লিশ ঘণ্টার মধ্যেই আশ্চর্যজনক ভাবে বদলে গিয়েছে ব্রাজিল শিবিরের অন্দরমহলের আবহ। শুক্রবার সন্ধ্যায় মালি-র বিরুদ্ধে তৃতীয় ও চতুর্থ স্থান নির্ণায়ক ম্যাচের প্রস্তুতিতে ফের চনমনে পাওলিনহো-রা।

কী ভাবে বদলে গেল ছবিটা? সাংবাদিক বৈঠকে ব্রাজিল কোচ কার্লোস আমাদেউ বললেন, ‘‘ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে হেরে আমাদের খেতাবের স্বপ্ন শেষ হয়ে গিয়েছে ঠিকই। কিন্তু বিশ্বকাপ খেলার চেয়ে গর্বের কিছু হয় না। টেলিভিশনে ম্যাচ দেখার চেয়ে যন্ত্রণার কিছু হয় না। আর ব্রাজিল মানেই তো ফুটবল।’’ সঙ্গে যোগ করেছেন, ‘‘আমাদের সামনে তৃতীয় হওয়ার যে সুযোগ এসেছে, সেটা এখন কাজে লাগাতে চাই। ফুটবলারদের বলেছি, স্বাভাবিক খেলা খেলতে।’’ সেই সঙ্গে জানিয়ে দিলেন, মালি-কে একেবারেই সমীহ করছেন না তিনি। কার্লোস বলেছেন, ‘‘মালি খুবই শক্তিশালী দল। ওদের আমরা যথেষ্ট গুরুত্ব দিচ্ছি।’’

তৃতীয় ও চতুর্থ স্থান নির্ণায়ক ম্যাচ:

ব্রাজিল বনাম মালি (বিকেল ৫.০০, সোনি টেন টু ও থ্রি চ্যানেলে)।

অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপে গত বারের রানার্স মালি। এ বারও ঘানাকে ছিটকে গিয়ে শেষ চারে পৌঁছেছিল আফ্রিকার এই দেশ। যদিও শেষরক্ষা হয়নি। স্পেনের বিরুদ্ধে হেরে ছিটকে গিয়েছে খেতাবি দৌড় থেকে। জোনাস কোকোউ কোমলা শুক্রবার সাংবাদিক বৈঠকে বলছিলেন, ‘‘ব্রাজিল শক্তিশালী দল। কিন্তু আমরা জয়ের জন্য মরিয়া হয়ে ঝাঁপাব। ব্রাজিলকে হারিয়েই এই বিশ্বকাপটা স্মরণীয় করে রাখতে চাই।’’

আজ, শনিবার যুবভারতীর সমর্থন থাকবে ব্রাজিলের পক্ষেই। তা নিয়ে যে তিনি চিন্তত নন, বলে দিলেন মালি কোচ। জোনাসের কথায়, ‘‘আফ্রিকাতে ষাট হাজার দর্শকের সামনে ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা আমাদের আছে। তাই ব্রাজিলের সমর্থক বেশি থাকলেও তা নিয়ে আমরা ভাবছি না।’’

মালি কোচের উদ্বেগের কারণ অবশ্য অন্য। অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপের প্রস্তুতি নিতে ইউরোপ সফরে গিয়েছিলেন। অনেক ফুটবলারই দলের সঙ্গে দেশে ফিরে যায়নি। তিনি বলছিলেন, ‘‘ইউরোপের আধুনিক জীবন, জৌলুস অনেক ফুটবলারেরই মাথ ঘুরিয়ে দিয়েছে। ওদের কাছে দেশের হয়ে খেলার কোনও আগ্রহ নেই। এটা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। ভয়াবহ প্রবণতা।’’

অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপে তৃতীয় ও চতুর্থ স্থান নির্ণায়ক ম্যাচের গুরুত্ব হঠাৎ করেই বেড়ে গিয়েছে ব্রাজিলের জন্য। শনিবারও যে পাওলিনহো-দের দেখতে যুবভারতীর গ্যালারি ভর্তি থাকবে, তার আঁচ এ দিনই পাওয়া গিয়েছে। বাংলার ক্রীড়াপ্রেমীদের কাছে ব্রাজিল বনাম মালি ম্যাচের আকর্ষণ যে ফাইনালের চেয়েও বেশি!

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE