×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৫ জুন ২০২১ ই-পেপার

এই খেলাটাই ধরে রাখতে মরিয়া প্রজ্ঞেশ

শমীক সরকার
১১ মার্চ ২০১৯ ০৩:১৩
আগ্রাসী: র‌্যাঙ্কিংয়ে ৮০ নম্বরে উঠে আসা নিশ্চিত প্রজ্ঞেশের। ফাইল চিত্র

আগ্রাসী: র‌্যাঙ্কিংয়ে ৮০ নম্বরে উঠে আসা নিশ্চিত প্রজ্ঞেশের। ফাইল চিত্র

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইন্ডিয়ান ওয়েলসে তিনি যখন খেলোয়াড় জীবনের সেরা জয় ছিনিয়ে নিয়ে টেনিস মহলে হইচই ফেলে দিয়েছেন, ভারতে তখন ভোরের আলো ফুটছে। রবিবার সাত সকালে টেনিস জীবনের সবচেয়ে বড় জয় পাওয়ার উচ্ছ্বাসে ভাসছেন প্রজ্ঞেশ গুণেশ্বরনও। হোটেলে ফেরার পরে একের পর এক শুভেচ্ছাবার্তার জবাব দেওয়ার ফাঁকেই আনন্দবাজারকে বললেন, এটাই তাঁর অন্যতম সেরা পারফরম্যান্স।

ইন্ডিয়ান ওয়েলস টেনিস মার্স্টার্সে যোগ্যতা নির্ণায়ক রাউন্ড থেকেই দুরন্ত ছন্দে খেলছেন ভারতের এক নম্বর সিঙ্গলস খেলোয়াড়। প্রথম রাউন্ডে তাঁর চেয়ে বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে ২৮ ধাপ এগিয়ে থাকা খেলোয়াড় ফ্রান্সের বেনোয়া পেয়ারকে স্ট্রেট সেটে হারানোর পরে দ্বিতীয় রাউন্ডে বাঁ হাতি প্রজ্ঞেশ রবিবার হারালেন বিশ্ব ক্রম পর্যায়ে ১৮ নম্বরে থাকা প্রতিদ্বন্দ্বী জর্জিয়ার নিকোলোজ বাসিলাশভিলিকে। ফল প্রজ্ঞেশের পক্ষে ৬-৪, ৬-৭ (৬), ৭-৬ (৪)। প্রায় আড়াই ঘণ্টার এই লড়াই কতটা কঠিন ছিল বিশ্বের ৯৭ নম্বরের কাছে?

রবিবার ইন্ডিয়ান ওয়েলস থেকে ফোনে উচ্ছ্বসিত প্রজ্ঞেশ বলেন, ‘‘দুর্দান্ত জয়। এখনও পর্যন্ত আমার কেরিয়ারের সবচেয়ে বড় সাফল্য। গোটা ম্যাচে হার না মানা মানসিকতা ধরে রেখে গিয়েছি। জানতাম আমার চেয়ে প্রতিপক্ষ বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে অনেকটা এগিয়ে। তবু লড়াই ছাড়িনি। সমানে পাল্লা দেওয়ার চেষ্টা করে গিয়েছি। তাতেই শেষ পর্যন্ত সাফল্য পেলাম।’’ তিনি আরও যোগ করেন, ‘‘তবে সব সময়ই লক্ষ্য ছিল নিজের স্বাভাবিক খেলাটা খেলার।’’

Advertisement

এই ম্যাচে সবচেয়ে কঠিন কী ছিল তাঁর কাছে?

‘‘সবচেয়ে কঠিন ছিল পুরো ম্যাচে ফোকাস ধরে রাখা। আমার লক্ষ্য এই খেলাটা ধরে রাখা,’’ বলেন প্রজ্ঞেশ। তৃতীয় রাউন্ডে তাঁর প্রতিপক্ষ ক্রোয়েশিয়ার ইভো কার্লোভিচ। যাঁর বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং ৮৯। টেনিস সার্কিটে প্রচণ্ড গতিতে সার্ভিস করার জন্য বিখ্যাত কার্লোভিচ। কী ভাবছেন জীবনের প্রথম মাস্টার্স ১০০০ প্রতিযোগিতার তৃতীয় রাউন্ডের প্রতিদ্বন্দ্বীকে নিয়ে?

প্রজ্ঞেশ বলেন, ‘‘পরবর্তী ম্যাচের প্রতিদ্বন্দ্বীকে নিয়ে এখনও কিছু ভাবিনি। এই মাত্র হোটেলে ফিরলাম। এখন বিশ্রাম নেব। তার পরে ভাবব। আপাতত এ দিনের সাফল্যটা উপভোগ করছি।’’

রবিবারের এই সাফল্যের আগে গুণেশ্বরনের সবচেয়ে বড় জয় ছিল গত বছর বিশ্বের ২৩ নম্বর ডেনিস শাপোভালভের বিরুদ্ধে স্টুটগার্টে। তাঁর আগে ন’বছরের পেশাদার টেনিস জীবনে প্রথম বার গ্র্যান্ড স্ল্যামে খেলার কৃতিত্ব দেখান প্রজ্ঞেশ চলতি মরসুমে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে। গত ১৯ বছরে পঞ্চম ভারতীয় খেলোয়াড় হিসেবে তিনি গ্র্যান্ড স্ল্যামের মূলপর্বে খেলার নজির তৈরি করেন। গত মরসুম থেকেই দুরন্ত ফর্মে আছেন প্রজ্ঞেশ। গত মরসুমের গোড়ার তাঁর বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং ছিল ২৪৩। সেখান থেকে এ বছর ফেব্রুয়ারিতে ৯৭ নম্বরে উঠে আসেন তিনি। এ বার ইন্ডিয়ান ওয়েলসে এই দুই জয়ের ফলে প্রথম ৮০-তে উঠে আসা নিশ্চিত করে ফেললেন প্রজ্ঞেশ। যা সোমবারই প্রকাশ হবে। এখনও পর্যন্ত এটাই তাঁর কেরিয়ারের সেরা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং হতে চলেছে।

প্রজ্ঞেশ ছাড়া ডাবলসে ভারতের এক মাত্র প্রতিনিধি রোহন বোপান্নাও দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠেছেন তাঁর সঙ্গী ডেনিস শাপোভালভের সঙ্গে। তাঁরা দ্বিতীয় বাছাই জুটি জেমি মারে ও ব্রুনো সোয়ারেসকে হারান ৬-৪, ৬-৪। বোপান্না তাঁর নিয়মিত সঙ্গী দ্বিবীজ শরনের সঙ্গে খেলছেন না তাঁদের মিলিত বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং ইন্ডিয়ান ওয়েলসের ড্র-এর জন্য যথেষ্ট না হওয়ায়।

Advertisement