Advertisement
০৫ ডিসেম্বর ২০২২
সেমিফাইনাল দেখছেন সহবাগ

ছুটির মেজাজে টিম ইন্ডিয়া, ধবন যাচ্ছেন শ্বশুরবাড়ি

বিরাট কোহলির ফ্লাইং কিসের সমর্থনে কপিল দেবের নেমে পড়া। ভারত বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে উঠবে বলে বীরেন্দ্র সহবাগের ভবিষ্যদ্বাণী। মহেন্দ্র সিংহ ধোনি, শিখর ধবনদের মহাযুদ্ধের আগে অপ্রত্যাশিত ছুটি পেয়ে যাওয়া। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান নিয়ে জাঁকজমকের ইঙ্গিত। চিরশত্রু ইংল্যান্ডকে মিচেল জনসনের আগাম হুঙ্কার দিয়ে রাখা। বিশ্বযুদ্ধের বাকি আর দিন বারো। তাতে কী? ক্রিকেটের সেরা টুর্নামেন্টকে ঘিরে উত্তাপ ছড়ানো তো শুরু হয়ে গেল। সোমবারই পারথ থেকে অ্যাডিলেড পৌঁছে গেল ভারত। আর তার পরই ধোনির টিমকে জানিয়ে দেওয়া হল, আগামী তিন দিন তাঁদের ছুটি। যদি কেউ কোথাও যেতে চান, যেতে পারেন।

নিজস্ব প্রতিবেদন
শেষ আপডেট: ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ ০১:৪৩
Share: Save:

বিরাট কোহলির ফ্লাইং কিসের সমর্থনে কপিল দেবের নেমে পড়া।

Advertisement

ভারত বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে উঠবে বলে বীরেন্দ্র সহবাগের ভবিষ্যদ্বাণী।

মহেন্দ্র সিংহ ধোনি, শিখর ধবনদের মহাযুদ্ধের আগে অপ্রত্যাশিত ছুটি পেয়ে যাওয়া।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠান নিয়ে জাঁকজমকের ইঙ্গিত।

Advertisement

চিরশত্রু ইংল্যান্ডকে মিচেল জনসনের আগাম হুঙ্কার দিয়ে রাখা।

বিশ্বযুদ্ধের বাকি আর দিন বারো। তাতে কী? ক্রিকেটের সেরা টুর্নামেন্টকে ঘিরে উত্তাপ ছড়ানো তো শুরু হয়ে গেল।

সোমবারই পারথ থেকে অ্যাডিলেড পৌঁছে গেল ভারত। আর তার পরই ধোনির টিমকে জানিয়ে দেওয়া হল, আগামী তিন দিন তাঁদের ছুটি। যদি কেউ কোথাও যেতে চান, যেতে পারেন। আবার কেউ যদি টিম হোটেলে থেকে জিম, পুল সেশন করে রিল্যাক্স করতে চান, তাতেও অসুবিধে নেই। অ্যাডিলেডে ফোন করে যে নির্যাস পাওয়া গেল তা এ রকম: টানা ম্যাচ আর প্র্যাকটিসের পর টিমকে এখন বিশ্রাম দেওয়া প্রয়োজন। দরকার ক্রিকেটের বাইরে রাখা। তাই এমনটা ভাবা হয়েছে। তবে এটাও প্লেয়ারদের মনে করিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, অতিরিক্ত ধকল এই তিন দিনে না নিতে। ছুটিটা দেওয়া হচ্ছে রিল্যাক্স করার জন্য। পরিবারের কারও সঙ্গে যদি দেখা করার থাকে, তা হলে অসুবিধে নেই। শোনা গেল, শিখর ধবন ইতিমধ্যেই টিম ম্যানেজমেন্টকে জানিয়েছেন, তিনি মেলবোর্নে স্ত্রীর সঙ্গে তিনটে দিন কাটাতে চান। স্টুয়ার্ট বিনি আবার সিডনি যাবেন দিদির সঙ্গে দেখা করতে।

এটা যদি হয় বিশ্বকাপে ভারতীয় টিমকে নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার অবস্থার বিবরণ, তা হলে ভারতেও খুব কম কিছু নেই। দেশের প্রথম বিশ্বজয়ী অধিনায়ক এ দিন এক অনুষ্ঠানে বলে দিয়েছেন, কোহলি সেঞ্চুরি করে বান্ধবীর দিকে ফ্লাইং কিস দিলে তাঁর কোনও সমস্যা নেই। কিন্তু কোনও প্লেয়ার যদি রান না করে ফ্লাইং কিংস দিতে থাকেন, সমস্যা আছে। “ক্রিকেট আর জেন্টলম্যানস গেম নেই, এ সব ভেবে এখন আর লাভ নেই। সময় পাল্টেছে। আমরা যে সময় ক্রিকেট খেলতাম, সেটা অন্য যুগ ছিল। আর এটা অন্য,” বলে দিয়েছেন কপিল। আর বিশ্বকাপে ভারতের সম্ভাবনা নিয়ে কপিলের বক্তব্য, সম্ভাবনা পঁচিশ শতাংশ। “টিমটা সেমিফাইনাল যাবে। আর সেমিফাইনালের চারটে টিমেরই পঁচিশ শতাংশ সম্ভাবনা আছে কাপ জেতার। তবে প্রথম ম্যাচটা ভাল করে শুরু করা দরকার। আর ম্যাচে ভারত কেমন করবে, সেটা প্রথম পনেরো ওভার দেখেই অনেকটা পরিষ্কার হয়ে যাবে।”

বিশ্বকাপ-সম্ভাবনা নিয়ে কপিলের সঙ্গে সহমত সহবাগও। বলে দিয়েছেন, “সেমিফাইনাল তো যাবেই। ওটা নিয়ে ভাবছি না। কিন্তু তার পর কী করবে, নির্ভর করবে ভারত সে দিন কেমন করে তার উপর।” ভারত বাদে বাকি তিন সম্ভাব্য সেমিফাইনালিস্ট যথাক্রমে অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং নিউজিল্যান্ডকে বেছে দিয়েছেন সহবাগ। যিনি মনে করেন বিশ্বকাপের আগে ত্রিদেশীয় সিরিজে ভারতের জঘন্য পারফরম্যান্স বিশ্বকাপে প্রভাব ফেলবে না। “বিশ্বকাপে সব টিমই নিজেদের একশো শতাংশ দিতে চাইবে। আর সেখানে সাম্প্রতিক রেজাল্ট ফ্যাক্টর হবে না,” বলে উদাহরণও পেশ করেছেন সহবাগ। তাঁর যুক্তি, ২০০৩ বিশ্বকাপের আগে নিউজিল্যান্ডে চূড়ান্ত ব্যর্থ হয়েছিল ভারত। কেউ ভাবেওনি টিমটা বিশ্বকাপে কিছু করতে পারবে। কিন্তু তার পর বিশ্বকাপ ফাইনালে উঠেছিল টিম।

আয়োজক দেশও কাপ-জ্বরে আচ্ছন্ন। সংগঠক থেকে ক্রিকেটার— সবাই। অস্ট্রেলীয় ফাস্ট বোলার মিচেল জনসন যেমন ইংল্যান্ডকে শুনিয়ে রেখেছেন, আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি অস্ট্রেলিয়া বনাম ইংল্যান্ডে ইয়ন মর্গ্যানের টিম যদি ভাবে তাদের উপর চাপ থাকবে না, তা হলে যেন সেই দিবাস্বপ্ন দেখা এখনই বন্ধ করে দেয়! “প্রত্যেকটা টিম চাপে থাকবে। এটা বিশ্বকাপ। ইংল্যান্ড সেটা না ভাবলে দিবাস্বপ্ন দেখছে,” বলেছেন জনসন। সঙ্গে আরও হুঙ্কার, তিনি শুধু কোনও একটা টিমের বিরুদ্ধে জিঘাংসা নিয়ে নামবেন না। সব টিমের বিরুদ্ধে নামবেন। ও দিকে, বিশ্বকাপ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জাঁকজমক আনতে চেষ্টা কম করছে না ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। ১২ ফেব্রুয়ারির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জেসিকা মাউবয়, টিনা এরেনার মতো অস্ট্রেলীয় পারফর্মারদের দেখা যাবে অনুষ্ঠানে।

কোহলি যদি সেঞ্চুরি করে ওর গার্লফ্রেন্ডকে একটা ফ্লাইং কিস দেয় তো ক্ষতি কী? কেউ শূন্য করে কিস দিলে তখন সমস্যা।

কপিল দেব

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.