×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৫ মার্চ ২০২১ ই-পেপার

বোলিংয়ে ঘাটতি দেখছেন বিরাটও

নিজস্ব প্রতিবেদন 
কলকাতা ৩০ নভেম্বর ২০২০ ০৫:৩৪
ক্য়াচ আউট হয়ে ফিরছেন বিরাট। রয়টার্স।

ক্য়াচ আউট হয়ে ফিরছেন বিরাট। রয়টার্স।

অস্ট্রেলিয়া সফরের প্রথম সিরিজেই হার বিরাট কোহালির ভারতের। দ্বিতীয় ম্যাচে ভারতকে ৫১ রানে হারিয়ে ওয়ান ডে সিরিজ জিতে নিল অস্ট্রেলিয়া। অধিনায়ক বিরাট কোহালি জানিয়ে দিলেন, সব বিভাগেই ভারতের চেয়ে এগিয়ে ছিল অস্ট্রেলিয়া। অধিনায়কের মতে, সুযোগের সদ্ব্যবহার না করতে পারাই সিরিজ হারের সব চেয়ে বড় কারণ।

ম্যাচ শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বিরাট বলেছেন, ‘‘ওদের বিরুদ্ধে আমরা দাঁড়াতেই পারিনি। সব বিভাগেই এগিয়ে ছিল ওরা। বোলিংয়ে ঠিক জায়গায় বল রাখতে পারিনি। বল হাতে কোনও প্রভাব ফেলতে পারিনি। ব্যাটিংয়ে গভীরতাই ওদের অস্ত্র হয়ে উঠেছে। সেটাই অনেকটা এগিয়ে দিয়েছে অস্ট্রেলিয়াকে।’’ সাংবাদিক বৈঠকে কে এল রাহুল বলেন, ‘‘বোলারদের কাছে চ্যালেঞ্জটা হল, পরিস্থিতির সঙ্গে নিজেদের দ্রুত মানিয়ে নিতে পারা। আমাদের দেখতে হবে, নিষ্প্রাণ পিচে কী ভাবে ভাল খেলা যায়।’’

কোহালির মত, সুযোগ তৈরি করে তা হাতছাড়া করেনি অস্ট্রেলিয়া। ভারত অধিনায়কের কথায়, ‘‘সুযোগের সদ্ব্যবহার করাই প্রত্যেকের কাজ। অস্ট্রেলিয়া সেটা করেছে। এমন জায়গায় বল রেখেছে, যেখানে ব্যাটসম্যানদের ঝুঁকি নিয়ে শট খেলতে হয়েছে। ফলে সুযোগ তৈরি হয়েছে। আর সেই সুযোগটা ওরা কাজে লাগিয়েছে।’’ রাহুল আর কোহালি যখন ব্যাট করছিলেন, তখন আশা দেখছিল ভারত। কোহালির মন্তব্য, ‘‘আমরা ভেবেছিলাম, শেষ ১০ ওভারে ১০০ রানও তুলে দেওয়া যাবে উইকেটে থাকলে। বিশেষ করে হার্দিক তখনও নামেনি। আমি আর কে এল যদি ৪০ ওভার পর্যন্ত খেলে দিতাম, তা হলে অস্ট্রেলিয়ার উপরে চাপ তৈরি করা যেত। কিন্তু আমার দুর্দান্ত একটা ক্যাচ নিয়ে নিল ওরা।’’ কোহালি আউট হন ৩৫তম ওভারে।

Advertisement

এক বছরেরও বেশি সময় পরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বল করলেন হার্দিক পাণ্ড্য। কী পরিকল্পনা ছিল? কোহালির কথায়, ‘‘হার্দিককে দিয়ে বল করানোর কোনও ভাবনা ছিল না। আমি হঠাৎ ওকে ডেকে বল করতে দিই।’’ যোগ করেন, ‘‘ভেবেছিলাম দু'ওভার বল করিয়ে বিশ্রাম দেব। কিন্তু ও ভাল বল করতে থাকে। তাই আরও দু'ওভার করানোর সাহস পাই।’’

ম্যাচের সেরা স্টিভ স্মিথ নিজের পারফরম্যান্সে সন্তুষ্ট। তাঁর কথায়, ‘‘ফিঞ্চ ও ওয়ার্নারকে ধন্যবাদ দেব। এত ভাল শুরু করার ফল পেলাম আমি। প্রথম বল থেকেই নিজেকে আত্মবিশ্বাসী মনে হচ্ছিল। আইপিএলে চেষ্টা করতাম বেশি জোরে বল মারার। এখানে কৌশল কিছুটা পরিবর্তন করেছি। জোরে বল মারার চেষ্টা করছি না। শুধুমাত্র টাইমিংয়ের সাহায্যে ফিল্ডারদের মাঝে ফাঁক খোঁজার চেষ্টা করছি। সেটাই সাফল্যের রসদ বলা যেতে পারে।’’ ভারতের বিরুদ্ধে কম রান করে যে জেতা সম্ভব নয়, তা জানিয়ে দেন স্মিথ। বলেন, ‘‘শেষ দু'ম্যাচে হয়তো আপনারা দেখেছেন বড় রান করলেও ভারত কী রকম লড়াই করেছে। ওদের বিরুদ্ধে চারশোর কাছাকাছি রান করতেই হবে।’’ এ দিনই কুঁচকিতে চোট পেয়ে মাঠ ছাড়েন ডেভিড ওয়ার্নার। তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যেতে হয় স্ক্যান করতে।

Advertisement