×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৪ মার্চ ২০২১ ই-পেপার

শৃঙ্গ ১২,০০০: দ্রুততম কোহালি

জয়ে বাড়বে মনোবল, আশাবাদী অধিনায়ক

নিজস্ব প্রতিবেদন 
কলকাতা ০৩ ডিসেম্বর ২০২০ ০২:৫৪
দুরন্ত: ফিঞ্চ আউট। উল্লাস কোহালি ও জাডেজার। বুধবার। গেটি ইমেজেস

দুরন্ত: ফিঞ্চ আউট। উল্লাস কোহালি ও জাডেজার। বুধবার। গেটি ইমেজেস

সিরিজ হারলেও অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার লজ্জা থেকে রেহাই পেল ভারত। বুধবার ক্যানবেরায় তৃতীয় ওয়ান ডে-তে অস্ট্রেলিয়াকে ১৩ রানে হারিয়ে জয়ের খাতা খুলল বিরাট-বাহিনী। ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহালির মুকুটেও নতুন পালক যোগ হল বুধবার। ওয়ান ডে ক্রিকেটে দ্রুততম ক্রিকেটার হিসেবে ১২ হাজার রানের গণ্ডি পেরিয়ে গেলেন তিনি।

বিরাট ভেঙে দিলেন সচিন তেন্ডুলকরের ১৭ বছরের পুরনো রেকর্ড। মাত্র ২৪২ ইনিংসে এই মাইলফলকে পৌঁছলেন বিরাট, যা সচিনের চেয়ে ৫৮ ইনিংস কম। ১২ হাজার রানের গণ্ডি পেরোতে সচিনের লেগেছিল ৩০০ ইনিংস। সচিন ও বিরাটের সঙ্গেই ১২ হাজার রানের ক্লাবে রয়েছেন কুমার সঙ্গকারা (১৪,২৩৪), রিকি পন্টিং (১৩,৭০৪), সনৎ জয়সূর্য (১৩, ৪৩০) ও মাহেলা জয়বর্ধনে (১২,৭৫০)। কিন্তু আড়াইশোরও কম ইনিংসে ১২ হাজার রানে পৌঁছনোটা বিস্ময়কর রেকর্ড। অস্ট্রেলিয়ার পেসার শন অ্যাবটের বল মিড-উইকেটে ঠেলে এক রান নিয়ে এই মাইলফলকে পৌঁছন বিরাট।

যদিও ভারত অধিনায়ক এ নিয়ে কোনও প্রতিক্রিয়া দেননি। বলেছেন, আগেই সিরিজ হেরে গেলেও তিনি চেয়েছিলেন, দল লড়াই দেখাক। শেষ ম্যাচে সেই লড়াই দেখিয়ে ম্যাচ জেতায় তিনি খুশি। পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে এসে বিরাট বলেন, ‘‘অস্ট্রেলিয়ায় সব সময় হাড্ডাহাড্ডি ক্রিকেট খেলতে হয়। হৃদয় ও নিষ্ঠার সঙ্গে খেলতে হয় এখানে।’’ যোগ করেন, ‘‘সিরিজ হারলেও সমর্থকদের বোঝাতে চেয়েছি আমাদের মধ্যে জেতার তাগিদ রয়েছে। সেটাই আসল।’’ তৃতীয় ওয়ান ডে-তে চারটি বদল করে ভারতীয় দল। বিরাট বলে যান, এই পরিবর্তন দলের মধ্যে তরতাজা ভাব এনে দেয়। ‘‘এই ম্যাচটা জেতায় আমরা সবাই খুশি। আশা করব, বাকি সিরিজেও আমাদের খেলায় গতি এনে দেবে এই জয়।’’

Advertisement

ওয়ান ডে-তে ১২ হাজার


• বিরাট কোহালি (ভারত) ২৪২ ইনিংসে।
• সচিন তেন্ডুলকর (ভারত) ৩০০ ইনিংসে।
• রিকি পন্টিং (অস্ট্রেলিয়া) ৩১৪ ইনিংসে।
• কুমার সঙ্গকারা (শ্রীলঙ্কা) ৩৩৬ ইনিংসে।
• সনৎ জয়সূর্য (শ্রীলঙ্কা) ৩৭৯ ইনিংসে।

ম্যাচের দু’টি টার্নিং পয়েন্ট বাছতে গিয়ে বিরাট বলেন, ‘‘ম্যাচে দু’বার চাপে পড়ে গিয়েছিলাম। আমাদের ইনিংসের শুরুর দিকে ও অস্ট্রেলীয় ইনিংসের শেষের দিকে। দু’বারই ম্যাচে ফিরে আসতে পেরেছি। এই লড়াই দেখার জন্যই সমর্থকেরা মাঠে এসে আমাদের সমর্থন করেন।’’ বিরাট নিজে ৬৩ রান করলেও বেশি খুশি হার্দিক পাণ্ড্য ও রবীন্দ্র জাডেজা দেড়শো রানের জুটি দেখে। বিরাটের কথায়, ‘‘হার্দিক ও জাড্ডুই ম্যাচে ফিরিয়ে এনেছে আমাদের।’’ হার্দিক ৭৬ বলে ৯২ রানে অপরাজিত থাকেন। ৫০ বলে ৬৬ রানে অপরাজিত জাডেজা। ম্যাচের সেরাও বেছে নেওয়া হয় হার্দিককে। গ্লেন ম্যাকগ্রা পর্যন্ত বলেন, ‘‘হার্দিক এখন অনেক পরিণত। দারুণ ব্যাট করল। এর পরে বোলিংটা শুরু করে দিলে আরওই ভয়ঙ্কর হয়ে উঠবে ও।’’

ম্যাচের সেরার পুরস্কার নিয়ে হার্দিক বলে গেলেন, ‘‘অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে অস্ট্রেলিয়ায় খেলাটা সব সময়ই তাতিয়ে তোলে। খেলোয়াড় হিসেবে এই চ্যালেঞ্জটা জিততে ইচ্ছা করে।’’ শুক্রবার থেকে শুরু হচ্ছে কুড়ি ওভারের সিরিজ। হার্দিকের মুখে বাঁ-হাতি পেসার, নতুন মুখ নটরাজনের প্রশংসা। বলে গেলেন, ‘‘অভিষেক ম্যাচে নটরাজন দারুণ বল করেছে।’’ ওয়ান ডে সিরিজের সেরা ক্রিকেটার বেছে নেওয়া হয় স্টিভ স্মিথকে। পর-পর দুই ম্যাচে সেঞ্চুরি পেলেও এ দিন ৭ রানে শার্দূল ঠাকুরের শিকার হন তিনি। বললেন, ‘‘সিডনির চেয়ে ক্যানবেরায় অনেক বেশি সাহায্য পেয়েছে পেসাররা। সিরিজের শেষ ম্যাচেও হাড্ডাহাড্ডি লড়াই দেখা গিয়েছে। দু’টি ভাল দল খেললে এ রকমই আকর্ষণীয় হয়ে ওঠে ক্রিকেট। টি-টোয়েন্টি সিরিজের জন্য আশা করি প্রত্যেকেই তৈরি।’’

Advertisement