Advertisement
২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
wrestling

সাক্ষী-সঙ্গীতা এশিয়ান গেমসের টিকিট পেলেন না, ট্রায়ালে হার অলিম্পিক্স পদকজয়ীরও

এশিয়ান গেমসে যেতে পারছেন না অলিম্পিক্স পদকজয়ী কুস্তিগির সাক্ষী। তাঁর মতোই ট্রায়ালে অংশ না নেওয়ায় যাওয়া হবে না সঙ্গীতার। ট্রায়ালে হেরে গেলেন অলিম্পিক্স পদকজয়ী রবি দাহিয়া।

picture of Sakshi Malik

সাক্ষী মালিক। —ফাইল চিত্র।

আনন্দবাজার অনলাইন ডেস্ক
শেষ আপডেট: ২৩ জুলাই ২০২৩ ১৪:১১
Share: Save:

এশিয়ান গেমসে যাওয়া হচ্ছে না কুস্তিগির অলিম্পিয়ান সাক্ষী মালিক এবং সঙ্গীতা ফোগটের। ট্রায়ালে অংশগ্রহণ না করা করায় তাঁদের এশিয়ান গেমসের জন্য বিবেচনা করা হচ্ছে না। ট্রায়ালে হেরে গেলেন অলিম্পিক্সের রুপো জয়ী রবি দাহিয়াও।

বজরং পুনিয়া এবং বিনেশ ফোগটকে ট্রায়াল ছাড়াই সরাসরি এশিয়ান গেমসে অংশগ্রহণের জন্য বেছে নিয়েছে ইন্ডিয়ান অলিম্পিক্স কমিটির অ্যাডহক কমিটি। সাক্ষীকে একই প্রস্তাব দেওয়া হলেও তিনি ফিরিয়ে দিয়েছিলেন। এশিয়ান গেমসের ট্রায়ালের জন্য ২২ এবং ২৩ জুলাই আগেই ঠিক করা হয়েছিল। কিন্তু অলিম্পিক্স পদক জয়ী সাক্ষী প্রস্ততির অভাবের জন্য ১০ অগস্টের পর ট্রায়াল নেওয়ার অনুরোধ করেছিলেন। তাঁর আর্জি মানেননি ইন্ডিয়ান অলিম্পিক্স অ্যাসোসিয়েশনের কর্তারা। নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী সাক্ষী ট্রায়ালে অংশগ্রহণ না করায় আগামী এশিয়ান গেমসে তাঁর অংশগ্রহণে সুযোগ রইল না। একই কারণে এশিয়ান গেমসে যেতে পারবেন না সঙ্গীতাও। কুস্তিকর্তা ব্রিজভূষণ শরণ সিংহের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগে প্রতিবাদী ছয় কুস্তিগিরের দু’জন সাক্ষী এবং সঙ্গীতা। রবিবার পুরুষদের ৫৭ কেজি বিভাগের ট্রায়ালে হেরে গিয়েছেন অলিম্পিক্স পদকজয়ী রবি। তিনি হেরে গিয়েছেন অতীশ টডকরের কাছে। ফলে তাঁরও এশিয়ান গেমসে অংশগ্রহণের সুযোগ থাকল না।

অন্য দিকে বজরং এবং বিনেশকে সরাসরি এশিয়ান গেমসের জন্য নির্বাচিত করার সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে দিল্লি হাই কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন কুস্তিগির অন্তিম পাঙ্ঘাল। হাই কোর্ট কুস্তির ট্রায়াল বা দল নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করতে রাজি হয়নি। ফলে মহিলাদের ৫৩ কেজি বিভাগে এশিয়ান গেমসে যাবেন বিনেশই। স্ট্যান্ডবাই থাকবেন অন্তিম। বিনেশ কোনও কারণে এশিয়ান গেমস থেকে সরে দাঁড়ালে অন্তিম ভারতের প্রতিনিধিত্ব করবেন মহিলাদের ৫৩ কেজি বিভাগে।

একই ভাবে পুরুষদের ৬৫ কেজি বিভাগে এশিয়ান গেমসে যাবেন বজরং। ট্রায়ালে যে কুস্তিগির জিতবেন, তিনি থাকবেন স্ট্যান্ডবাই হিসাবে। বজরং নাম প্রত্যাহার করে নিলে তিনি সুযোগ পাবেন। উল্লেখ্য, কুস্তিকর্তা ব্রিজভূষণের বিরুদ্ধে আন্দোলনের অন্যতম মুখ ছিলেন বজরং এবং বিনেশও।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE