• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

দিলীপ ও সৌমিত্রের দ্বন্দ্ব মিটল বিজয়ায়

Dilip and Saumitra
ফাইল চিত্র।

বিবাদ পাকিয়ে উঠেছিল। কিন্তু সোমবার দশমীর রাতে সাক্ষাতে বিজয়ার শুভেচ্ছা বিনিময়ের পরে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ এবং দলের যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতি সৌমিত্র খান দাবি করলেন, জট কেটে গিয়েছে। দিলীপবাবু মঙ্গলবার বলেন, ‘‘সৌমিত্র বিজয়ার শুভেচ্ছা জানাতে এসেছিলেন। তাঁর সঙ্গে কথা হয়েছে। সমস্যাও মিটেছে। সংশ্লিষ্ট সকলের সঙ্গে আলোচনা করে যুব মোর্চার জেলা সভাপতিদের নামের তালিকা প্রকাশ করা হবে।’’ সৌমিত্ররও বক্তব্য, ‘‘কোনও সমস্যা আর নেই। ২০২১-এ ঐক্যবদ্ধ ভাবে লড়ে তৃণমূলকে হারানোই এখন প্রধান কাজ।’’

তৃণমূল থেকে বিজেপিতে আসা সৌমিত্র বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি মুকুল রায়ের ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত। এই প্রেক্ষিতেই রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের অনেকে দিলীপবাবুর সঙ্গে সৌমিত্রর মতান্তরকে মুকুল-শিবিরের সঙ্গে দিলীপবাবুর দ্বন্দ্ব হিসাবে দেখেন। সেই বিতর্কই আপাতত ধামাচাপা পড়ল বলে পর্যবেক্ষকদের অনুমান। যদিও বিজেপির দাবি, বিবাদ মিটে গিয়েছে।  

গত বৃহস্পতিবার যুব মোর্চার রাজ্য পদাধিকারী তালিকায় নতুন সাত জনকে অন্তর্ভুক্ত এবং ছ’টি জেলার সভাপতির নাম প্রকাশ করেন সৌমিত্র। সেখান থেকেই দিলীপবাবুর সঙ্গে সৌমিত্রর গোলমালের সূত্রপাত্র। শুক্রবার যুব মোর্চার সব জেলা সভাপতিকে এবং জেলা কমিটিগুলি বাতিল করে আপাতত সেই দায়িত্ব বিজেপির জেলা সভাপতিদের সামলানোর নির্দেশ দেন দিলীপবাবু। দলের অন্দরে সৌমিত্রর পাল্টা দাবি, তাঁর প্রকাশিত জেলা সভাপতিদের নামের তালিকায় কোনও বদল হবে না। দিলীপবাবুর সঙ্গে মতান্তরের জেরে সৌমিত্র গত শনিবার যুব মোর্চার হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে পদত্যাগের ইচ্ছা প্রকাশ করে সেই গ্রুপ থেকে বেরিয়ে যান। কিছু ক্ষণ পরে অবশ্য সেখানে ফিরেও যান তিনি। দিলীপবাবু বলেন, ‘‘সৌমিত্র দলে নতুন বলে সব নিয়ম জানেন না। পুজোর পরে আলোচনা করে সমস্যা মেটানো হবে।’’ সৌমিত্র তার প্রতিক্রিয়ায় বলেছিলেন, ‘‘দিলীপ ঘোষকে দেখে নয়, নরেন্দ্র মোদী, অমিত শাহ, জে পি নড্ডাকে দেখে বিজেপিতে এসেছি।’’  

আরও পড়ুন: শুভেচ্ছা তোরণে ছেঁড়া শুভেন্দুর ছবি

সোমবারের বৈঠকের পরে মঙ্গলবার অবশ্য সৌমিত্র সুর নরম করে বলেন, ‘‘কোনও বিতর্ক আর চাইছি না।’’ সোমবার দিলীপবাবু এবং সৌমিত্রর আলোচনায় রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক (সংগঠন) সুব্রত চট্টোপাধ্যায় এবং রাজ্য দলের সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসুও ছিলেন। দলীয় সূত্রের খবর, সায়ন্তনের মধ্যস্থতাতেই দিলীপ-সৌমিত্র মতান্তর মিটেছে। পরে সায়ন্তন বলেন, ‘‘অনেক জেলাতেই সর্বসম্মতির ভিত্তিতে যুব মোর্চার সভাপতির নাম চূড়ান্ত হয়েছে। কয়েকটি জেলায় সমস্যা আছে। আলোচনার মধ্য দিয়ে মিটবে।’’

আরও পড়ুন: জঙ্গলমহল জুড়ে বার্তা ‘মুক্তিসূর্যে’র

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন