রাজ্যে রাজনৈতিক হিংসা প্রসঙ্গে নির্বাচন কমিশন এবং বিজেপি-কে কাঠগড়ায় তুললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিধানসভায় দাঁড়িয়ে আঙুল তুললেন পুলিশের দিকেও। ছ’মাস নির্বাচন কমিশনের নিয়ন্ত্রণে থেকে পুলিশের অভ্যাস খারাপ হয়ে গিয়েছে— বুধবার এই রকম মন্তব্যই করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

ভোটপর্ব চলাকালীন যে অভিযোগ মুখ্যমন্ত্রী বার বার করছিলেন, এ দিন বিধানসভায় ভাষণ দিতে গিয়ে সে কথা ফের বলেন তিনি। নির্বাচনের সময়ে চার মাস ধরে বিজেপি বাংলায় সমান্তরাল প্রশাসন চালিয়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। ভোটপর্বে পুলিশ-প্রশাসন নির্বাচন কমিশনের নিয়ন্ত্রণে থাকে এবং কমিশনের মাধ্যমেই বাংলায় সমান্তরাল প্রশাসন চালাচ্ছিল বিজেপি— মুখ্যমন্ত্রীর ইঙ্গিত স্পষ্ট।

ভোটের ফল প্রকাশিত হওয়ার পর থেকে রাজ্যে লাগাতার রাজনৈতিক হিংসার যে অভিযোগ উঠছে, তার দায়ও বিজেপির ঘাড়েই চাপিয়েছেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রীর দাবি, ভোটের পরে রাজনৈতিক হিংসায় এখনও পর্যন্ত রাজ্যে ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং সেই ১০ জনের মধ্যে ৮ জন তৃণমূলের, ২ জন বিজেপির। ‘‘ভোটের পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সময় লাগে,’’— মন্তব্য মুখ্যমন্ত্রীর।

আরও পড়ুন: দুর্গোৎসবে গেরুয়া নজর, রং বদলাতে চলেছে কলকাতার বেশ কিছু বিগ বাজেট পুজো

কমিশন বা বিজেপির দিকে আঙুল তোলার পরে মুখ্যমন্ত্রীর নিশানায় আসে পুলিশ। রাজ্য বিজেপির দুই সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু ও রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাম্প্রতিক মন্তব্যের দিকে ইঙ্গিত করে মুখ্যমন্ত্রী এ দিন প্রশ্ন তোলেন, ‘‘এনকাউন্টারের কথা বলছেন বিজেপি নেতারা, পুলিশ কেন স্বতঃপ্রণোদিত মামলা করছে না?’’ উত্তরটাও নিজেই দিয়ে দেন তিনি। বলেন, ‘‘৬ মাস নির্বাচন কমিশনের নিয়ন্ত্রণে ছিল, পুলিশের অভ্যাস নষ্ট হয়ে গিয়েছে।’’

আরও পড়ুন: ঝাড়খণ্ডে গণপিটুনি ব্যথিত করেছে, দোষীদের শাস্তি হওয়া উচিত, রাজ্যসভায় বললেন প্রধানমন্ত্রী

বিধানসভায় এ দিন কংগ্রেস এবং বামেদের কাছে টানার চেষ্টাও মুখ্যমন্ত্রী করেছেন। বিজেপি-কে রুখতে একজোট হয়ে লড়ার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

এবার শুধু খবর পড়া নয়, খবর দেখাও।সাবস্ক্রাইব করুনআমাদেরYouTube Channel - এ।