Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৬ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

বাড়িতে বসেই রেশন পাবেন প্রতিবন্ধীরা

লকডাউন জারির পর থেকেই রেশন থেকে বিনামূল্যে চাল-আটা দিচ্ছে সরকার।

সমীরণ দাস
জয়নগর ০৯ মে ২০২০ ০৩:৪৬
প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

বয়স বা শারীরিক প্রতিবন্ধকতার কারণে রেশন দোকানের লাইনে দাঁড়ানোর ক্ষমতা নেই। নেই সাহায্য করার কেউ। এ রকম মানুষদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে সরকারি রেশন পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে রেশন দোকানের তরফেই। জয়নগরের দক্ষিণ বারাসত এলাকার ঘটনা।

লকডাউন জারির পর থেকেই রেশন থেকে বিনামূল্যে চাল-আটা দিচ্ছে সরকার। সেই চাল-আটা নিতে রেশন দোকানগুলির সামনে শয়ে শয়ে মানুষ লাইন দিচ্ছেন। গোটা রাজ্যজুড়েই দোখা যাচ্ছে এই ছবি। হুড়োহুড়ি, ক্ষোভ-বিক্ষোভও চলছে বহু জায়গাতেই। এই পরিস্থিতিতে শারীরিক প্রতিবন্ধী বা বয়স্ক মানুষরা সমস্যায় পড়ছেন। শারীরিক কারণে দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়ে চাল-আটা নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। চাল-আটা না পেয়ে এই লকডাউন পরিস্থিতিতে খাবার জোগাড় করাই সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে অনেক ক্ষেত্রে। কোথাও কোথাও, রেশন তুলে দেওয়ার নাম করে তাঁদের কাছ থেকে কার্ড চেয়ে নিয়ে গিয়ে অনেকে চাল-আটার অনেকটা আত্মসাৎ করে নিচ্ছে বলেও অভিযোগ। এই পরিস্থিতিতে এইসব মানুষদের সাহায্য করতেই তাঁদের বাড়ি বাড়ি চাল-আটা পৌঁছে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দক্ষিণ বারাসত কো-অপারেটিভ সংস্থা।

দক্ষিণ বারাসত কো-অপারেটিভের অধীনেই রয়েছে এলাকার একমাত্র রেশন দোকান। সংস্থা সূত্রের খবর, রেশনের গ্রাহক সংখ্যা প্রায় তিরিশ হাজার। কো-অপারেটিভের আধিকারিক চিন্ময় দে জানান, চলতি মাসে কয়েকজন প্রতিবন্ধী এবং একা থাকেন এমন অসহায় বয়স্ক মানুষের বাড়ি রেশন সামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। পঞ্চায়েত ও পুলিশ কর্মীদের সাহায্য নিয়ে আরও এরকম মানুষের তালিকা তৈরি হচ্ছে। আগামী মাস থেকে তাঁদের সকলের বাড়িতেই চাল-আটা পৌঁছে দেওয়া হবে। এরকম কেউ যদি রেশনে এসে চাল-আটা সংগ্রহ করতে চান, তাঁরা যাতে লাইন না দিয়ে দ্রুত চাল-আটা পেতে পারেন, তারও ব্যবস্থা করা হবে।

Advertisement

চিন্ময় বলেন, ‘‘এই পরিস্থিতিতে বহু মানুষ রেশন সামগ্রীর উপর নির্ভরশীল। কিন্তু শারীরিক প্রতিবন্ধকতা বা বয়সজনিত কারণে অনেকেই লাইন দিয়ে রেশন সংগ্রহ করতে পারছেন না। এরকম অসহায় মানুষদের জন্যই আমরা এই ব্যবস্থা চালু করেছি।’’

দক্ষিণ বারাসত পঞ্চায়েতের উপপ্রধান অরুণ নস্কর বলেন, ‘‘খুবই ভাল পরিকল্পনা। এই পরিস্থিতিতে কেউ যাতে না খেয়ে থাকেন, সে জন্যই সরকারি ভাবে বিনামূল্যে রেশন দেওয়া হচ্ছে। প্রত্যেকের কাছে তা যাতে ঠিক ভাবে পৌঁছয়, তা নিশ্চিত করতে হবে। পঞ্চায়েতের তরফে কো-অপারেটিভের এই কাজে সব রকম ভাবে সহযোগিতা করা হবে। এরপরেও কেউ যদি রেশন না পান পঞ্চায়েতে যোগাযোগ করলেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’’

আরও পড়ুন

Advertisement