×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৩ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

কেন্দ্রীয় সরকারের মাপকাঠিতে শৌচ মুক্তি ২৫ পুরসভায়

প্রদীপ্তকান্তি ঘোষ
কলকাতা ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ ০৩:৫৫
—ফাইল ছবি

—ফাইল ছবি

মন্ত্রীর হুঁশিয়ারি সত্ত্বেও কোনও কোনও পুর কর্তৃপক্ষের ‘গা-ছাড়া’ মনোভাব। বারবার সময়সীমা বৃদ্ধি। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন নিয়ে বিক্ষিপ্ত বিক্ষোভ। আর দীর্ঘ সময় ধরে করোনার দাপট। সব মিলিয়ে রাজ্যে উন্মুক্ত শৌচ মুক্তির (ওডিএফ) কর্মকাণ্ড ‘কেঁচে গণ্ডুষ’ হয়েছে অনেকটা। আর সে কারণে প্রায় নতুন করে ওডিএফে পাশ-ফেলের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বঙ্গে। সেই প্রক্রিয়ায় সদ্য পাশ করেছে রাজ্যের ১২টি পুরসভা। আগে আরও ১৩টি পাশ করেছিল।

নগরোন্নয়ন মন্ত্রক স্থির করেছে, একটি তৃতীয় সংস্থাকে (থার্ড পার্টি) দিয়ে পুরসভার শৌচ মুক্তির দাবির সত্যতা যাচাই করা হবে। আর সমীক্ষা করা তৃতীয় সংস্থাটি ওডিএফ নিয়ে শংসাপত্র দিলে সংশ্লিষ্ট পুরসভাকে ‘পাশ’ বলে জানাচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার।

গত পনেরো দিন ধরে রাজ্যের বিভিন্ন পুর এলাকায় যাচ্ছেন ওই সমীক্ষার দায়িত্বে থাকা তৃতীয় সংস্থার সদস্যরা। তাঁদের জন্য নথিপত্র তৈরি করে দিচ্ছেন পুর দফতরের দায়িত্বপ্রাপ্তরা। সেই নথি ধরেই কাজ করছেন তৃতীয় সংস্থা কোয়ালিটি কাউন্সিল অব ইন্ডিয়া (কিউসিআই)। পুর এলাকায় কতগুলি জন-ব্যবহার শৌচালয় (পাবলিক টয়লেট), কমিউনিটি শৌচালয় রয়েছে তার হিসেব করছে সমীক্ষক দলটি। এমনকি, বিভিন্ন ক্লাব, বাজার, হাট, ঘাটে থাকা শৌচালয়গুলির অবস্থা নিয়ে এলাকাবাসীর সঙ্গে কথাও বলেছে তারা। সঙ্গে ২০১৪ সাল থেকে কত পারিবারিক ব্যবহার্য শৌচালয় নির্মাণ হয়েছে, তা-ও খতিয়ে দেখছেন দলের সদস্যরা। সেসব শেষ করে পুরসভাটি ‘ওডিএফ’ হল কি না তা রাজ্য এবং কেন্দ্রকে জানাচ্ছেন তাঁরা। তার পরেই কেন্দ্রীয় সরকারের সংশ্লিষ্ট পোর্টালে উঠে যাচ্ছে পাশ করা পুরসভার নামটি। তবে করোনার কারণে স্কুল পরিদর্শন করতে পারেননি দলের সদস্যরা। এমনকি, এই সংক্রান্ত ব্যাপারে কারও কিছু জানানোর থাকলে হেল্পলাইনে ফোন করার জন্য বিভিন্ন পুর এলাকার বাসিন্দাদের বলছেন পরিদর্শকরা।

Advertisement

কিউসিআই-এর সমীক্ষার পরেই বৈদ্যবাটি, কোন্নগর, সাঁইথিয়া, বিষ্ণুপুর, কাঁচরা পাড়া, কল্যাণী, ডায়মন্ড হারবার, পূজালি, উলুবেড়িয়া, হলদিবাড়ি, মেখলিগঞ্জ এবং দিনহাটা পুরসভাকে ওডিএফ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে কিউসিআই। এক্ষেত্রে পুরসভার পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে রাজ্য নগর উন্নয়ন সংস্থা (সুডা)-র। এমন ভাবে ৩০টি পুরসভায় সমীক্ষার কাজ প্রায় শেষ করেছে সমীক্ষক দলটি। আরও ২০টির কাজ কয়েক দিনের মধ্যে শুরু হবে। উন্মুক্ত শৌচ মুক্তির কথা ঘোষণা করেছিল রাজ্যের ৭৫টি পুরসভা। নিজস্ব ঘোষণাপত্রে দেওয়া ৭৫টির মধ্যে ১৩টি পুরসভা আগেই ওডিএফের স্বীকৃতি পেয়েছে। সব মিলিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের মাপকাঠিতে এখন রাজ্যে ২৫টি পুর এলাকা উন্মুক্ত শৌচ থেকে মুক্ত হয়েছে। তবে সমীক্ষক দলের কাজে ছেদ না পড়লে চলতি বছরে রাজ্যের ৭৫-৮০টি পুরসভা অনায়াসেই ওডিএফের স্বীকৃতি পাবে বলে মত পুর দফতরের কর্তাদের।

Advertisement