Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ ই-পেপার

আইএনটিটিইউসি-র নাম করে চাঁদা আদায়ের নালিশ

সুশান্ত বণিক
আসানসোল ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ০৪:৪৪
এই রকম রসিদ দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ। নিজস্ব চিত্র

এই রকম রসিদ দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ। নিজস্ব চিত্র

নেতৃত্বের অনুমতি ছাড়া তৃণমূল প্রভাবিত শ্রমিক সংগঠন আইএনটিটিইউসি-র নামে রসিদ ছাপিয়ে বাস, মিনিবাস, অটো চালকদের কাছে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ উঠল আসানসোলে। বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ তৈরি হয়েছে বাসকর্মী ও অটো চালকদের মধ্যে। তাঁদের আরও অভিযোগ, চাঁদা না দিলে গাড়ি চালাতে না দেওয়ার হুমকি দেওয়া হচ্ছে। আইএনটিটিইউসি-র পশ্চিম বর্ধমান জেলা চেয়ারম্যান ভি শিবদাসন জানান, বিষয়টি খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সিটি বাসস্ট্যান্ড দেখভালের দায়িত্বে রয়েছে আসানসোল পুরসভা। পুরসভা সূত্রে জানা গিয়েছে, স্ট্যান্ডের রক্ষণাবেক্ষণের জন্য প্রতিদিন বাস পিছু ১০ টাকা করে নেওয়া হয়। রাতে যে বাসগুলি স্ট্যান্ডে থাকে সেগুলির কাছ থেকে পাহারার জন্য ২০ টাকা করে নেওয়া হয়। এ ছাড়া, আর কোনও টাকা বাসকর্মীদের কাছে নেওয়ার কথা নয়। কিন্তু অভিযোগ, গত কয়েক মাস ধরে বাস, মিনিবাস ও অটো চালকদের কাছ থেকে ‘আসানসোল সাব-ডিভিশনাল মোটর ট্রান্সপোর্ট ওয়ার্কার্স ইউনিয়ন’ এবং আইএনটিটিইউসি লেখা রসিদ দিয়ে দু’টাকা থেকে পাঁচ টাকা করে আদায় করা হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক মিনিবাস চালকের অভিযোগ, ‘‘আমরা অনেকেই বেআইনি ভাবে আদায় করা এই টাকা দিতে অস্বীকার করেছি। কিন্তু এক নেতার নাম করে জোর করে এই টাকা তোলা হচ্ছে। না দিলে রাস্তায় গাড়ি বার করতে দেওয়া হবে না বলে হুমকিও দেওয়া হচ্ছে।’’ চালকদের দাবি, সিটি বাসস্ট্যান্ড প্রতিদিন যাতায়াত করা প্রায় তিনশো বাস, সাড়ে তিনশো মিনিবাস, ৭০টি ভিন্‌ রাজ্যের বাস ও অন্তত হাজার তিনেক অটোর কাছে এই চাঁদা নেওয়া হচ্ছে। দূরপাল্লার বাসের ছাদে পণ্য আনা-নেওয়ার জন্য রসিদ ছাড়া আলাদা ভাবে টাকা নেওয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ।

Advertisement

২০১৭ সালে একই রকম ভাবে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ উঠেছিল এই বাসস্ট্যান্ডে। সে নিয়ে তদন্ত কমিটি তৈরি করেন আইএনটিটিইউসি জেলা নেতৃত্ব। তার পরেই চাঁদা আদায় বন্ধ হয়। বছর তিনেক পরে ফের একই অভিযোগ উঠেছে। আইএনটিটিইউসি-র জেলা চেয়ারম্যান ভি শিবদাসন বলেন, ‘‘আমার কাছে এখনও এ নিয়ে অভিয়োগ আসেনি। সিটি বাসস্ট্যান্ডে সংগঠনের রসিদে চাঁদা তোলার কোনও অনুমোদন দেয়নি জেলা নেতৃত্ব। বিষয়টি অবশ্যই খতিয়ে দেখা হবে।’’ তিনি আরও জানান, কোনও ব্যবসায়িক বা শিল্প প্রতিষ্ঠান থেকেও জেলা নেতৃত্বের অনুমতি ছাড়া, চাঁদা আদায় করা যাবে না। যারা এই কাজের সঙ্গে যুক্ত, তাদের সঙ্গে সংগঠনের কোনও সম্পর্ক আছে কি না খতিয়ে দেখা হবে বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুন

More from My Kolkata
Advertisement